শতখালী-সিংহেশ্বর পাড়া গণকবর, মাগুরা/ Shatkhali-Singheshwar Para Mass Grave, Magura

শতখালী-সিংহেশ্বর পাড়া গণকবর 

আড়পাড়া থেকে পশ্চিমে যশোরের দিকে যেতে শতখালী ইউনিয়নে শতখালী বাজারের পাশে সিংহেশ্বর পাড়ায় ঢাকা যশোর রোডে লোহার ব্রীজে যে গণহত্যা সংগঠিত হয় সেই সব শহিদের হাড়গোড় যত্র তত্র পড়ে থাকতে দেখা যায়।  সেই সব হাড়গোড় স্থানীয় জনগণ মাটি চাপা দেয়। 

 

Shatkhali-Singheshwar Para Mass Grave, Magura

A massive genocide had been perpetrated beside the Shatkhali market in Singheshwar Para. On the Iron Bridge at Dhaka Jessore Road, piles of bone of the martyrs were seen here and there. The local people grounded those bones.

 
নিকটবর্তী আরও স্থান
  • post-image
    শতখালী-সিংহেশ্বর পাড়া গণহত্যা, মাগুরা/Shatkhali-Singheshwar Para Genocide
    <p>শতখালী-সিংহেশ্বর পাড়া গণহত্যা&nbsp;</p> <p>মুক্তিযুদ্ধের সময় লোহার ব্রিজে (বর্তমানে এই ব্রিজটি পাকা করা হয়েছে) টহলরত পাকিস্তানি সেনারা ৮ জন মুক্তিযোদ্ধাকে ধরে নিয়ে আসে। পরিচয় নেয়ার পর দুজনকে ছেড়ে দেয়। বাকি ৬ জনকে গুলি করে নির্মমভাবে হত্যা করে। শতখালী গ্রামের অধিবাসী চান্দ আলী বিশ্বাস এই হত্যাযজ্ঞের একজন প্রত্যক্ষদর্শী। সেদিন যারা শহিদ হয়েছিলেন তারা হলেন দেশমুখপাড়ার মান্নাফ, মমিন, রউফ ও পান্নু, শরশুনার কুদ্দুস। অপর একজনের নাম জানা যায় নি।&nbsp;</p> <p>&nbsp;</p> <p><span style="font-family: 'Times New Roman', serif; font-size: 14pt; text-align: justify; text-indent: -0.25in;">Shatkhali-Singheshwar Para Genocide</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">During the Liberation War, the Pakistani army captured 8 freedom fighters on the Iron Bridge. After cheaking, they let two of them to leave and killed the rest. Those who were martyred on that day are Manaf, Momin, Rauf and Pannu. The other names were not known.</span></p>
  • post-image
    শতখালী-সিংহেশ্বর পাড়া গণকবর, মাগুরা/ Shatkhali-Singheshwar Para Mass Grave, Magura
    <p>শতখালী-সিংহেশ্বর পাড়া গণকবর&nbsp;</p> <p>আড়পাড়া থেকে পশ্চিমে যশোরের দিকে যেতে শতখালী ইউনিয়নে শতখালী বাজারের পাশে সিংহেশ্বর পাড়ায় ঢাকা যশোর রোডে লোহার ব্রীজে যে গণহত্যা সংগঠিত হয় সেই সব শহিদের হাড়গোড় যত্র তত্র পড়ে থাকতে দেখা যায়।&nbsp; সেই সব হাড়গোড় স্থানীয় জনগণ মাটি চাপা দেয়।&nbsp;</p> <p>&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">Shatkhali-Singheshwar Para Mass Grave, Magura</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">A massive genocide had been perpetrated beside the Shatkhali market in Singheshwar Para. On the Iron Bridge at Dhaka Jessore Road, piles of bone of the martyrs were seen here and there. The local people grounded those bones.</span></p> <div id="gtx-trans" style="position: absolute; left: 15px; top: 50px;">&nbsp;</div>
  • post-image
    সীমাখালী বাজার রাজাকার ক্যাম্প ও নির্যাতন কেন্দ্র, মাগুরা/Seemakhali Bazar Torture Center and Camp of Razakar forces, Magura
    <p>সীমাখালী বাজার রাজাকার ক্যাম্প ও নির্যাতন কেন্দ্র&nbsp;</p> <p>সীমাখালী হাইস্কুলের পেছনে অবস্থিত ডাকবাংলোটি ছিল পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ক্যাম্প। এখানেই বিভিন্ন এলাকা থেকে নিরীহ মুক্তিকামী মানুষকে ধরে এনে অকথ্য নির্যাতন করা হতো। নির্যাতন শেষে পাশে প্রবাহিত প্রখ্যাত চিত্রা নদীর পাড়ে নিমতলা শ্মশান ঘাটে নিয়ে হত্যা করে নদীতে ভাসিয়ে দিতো।&nbsp;&nbsp;</p> <p>&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">Seemakhali Bazar Torture Center and Camp of Razakar forces, Magura</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">The Dakbungalow behind Seemakhali High School was the camp of the Pakistani Army. Several innocent people from different areas were taken and were tortured here. Later, they were killed at Nimtala Swashan and were dumped to the river.</span></p>
  • post-image
    সীমাখালী বাজার হত্যাকাণ্ড, মাগুরা/Shimakhali Bazar Genocide
    <p>সীমাখালী বাজার গণহত্যা:</p> <p>রজব আলী নামে একজন পাটনি ছিলেন যিনি চিত্রা নদীতে ঘাট পারাপার করতেন। মুক্তিযোদ্ধাদেরকে পারাপার করার অপরাধে ১৫ আগস্ট তাকে রাজাকাররা জবাই করে হত্যা করে নদীতে ফেলে দেয়।&nbsp;</p> <p>&nbsp;</p> <p>আশ্বিন মাসে নদীর পাড়ে বসে কাজ করা অবস্থায় রিজিয়া এবং হারেছ বিশ্বাসের মেয়ে সায়রাকে ধরে আনে, সীমাখালী বাজারের পশ্চিম পাশে নিম তলায় শ্মশান ঘাটে নিয়ে যেয়ে গুলি করে হত্যা করে চিত্রা নদীতে ভাসিয়ে দেয়।</p> <p>&nbsp;</p> <p>&nbsp;শ্রাবণ মাসের দিকে দুলাল বিশ্বাস এবং মকসেদ নামে দুজনকে প্রেমচারা গ্রামে নিয়ে যেয়ে গুলি করে। কিন্তু তারা তখনও মারা যায় নি। তাদের দুজনকে একসাথে বেঁধে নদীতে ভাসিয়ে দেয়। ভেসে যাওয়ার সময় ইনসার মোল্লা নামে একজন রাজাকার তাকে দেখতে পায়, তখন কমান্ডারের অনুমতি নিয়ে গাছি দা দিয়ে ১ কোপে তাদের ভুড়ি বের করে দেয়। সেই অবস্থায় তারা মারা যায়।&nbsp;</p> <p>&nbsp;</p> <p>*********************</p> <p><span style="font-family: 'Times New Roman', serif; font-size: 14pt; text-align: justify; text-indent: -0.25in;">Shimakhali Bazar Genocide</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">The Razakar had slaughted a waterman named Rajab Ali for helping the freedom fighters and thrown his body in the river on 15 August.</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">They took two girls named Rizia and Sayra, and shot them at the west side of the Simakhali then thrown their bodies in the river. </span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">At the end of the August, Dulal Biswas and Moksed were taken to Premchara village and shot. But they were still alive. They were tied together and thrown away into the river. A razakar named Insar Molla saw them floating alive and killed them with chopper. </span></p>
  • post-image
    প্রেমচারা গ্রাম গণহত্যা/ Premchara village Genocide
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;" lang="BN">বাঘারপাড়া উপজেলার ২নং বন্দবিলা ইউনিয়নের প্রেমচারা গ্রামের অসংখ্য মানুষকে হত্যা করে এই এলাকার রাজাকাররা। প্রেমচারা গ্রামের রাজাকার আমজেদ মোল্লা ও কায়েম আলীর নেতৃত্বে এই গণহত্যা সংঘটিত হয়। রাজাকার বাহিনীতে আরও ছিল নওশের</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">, <span lang="BN">ইদ্রিস</span>, <span lang="BN">সবুর বিশ্বাস </span>, <span lang="BN">দলিল উদ্দীন</span>, <span lang="BN">মোজাহার বিশ্বাস</span>, <span lang="BN">আহমদ আলী</span>, <span lang="BN">মতিয়ার</span>, <span lang="BN">দাউদ</span>, <span lang="BN">গফুর</span>, <span lang="BN">সোবহান</span>, <span lang="BN">লিয়াকত</span>, <span lang="BN">আজিবর</span>, <span lang="BN">সিদ্দিক হোসেনসহ আরো অনেকে। এই বাহিনী অসংখ্য মানুষকে হত্যা করেছে । তারা চানপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা নওশেরের মা ও বাবাকে গুলি করে হত্যা করেছিল। বিভিন্ন এলাকার সাতজন মুক্তিযোদ্ধাকে কৌশলে ধরে তাদেরকে হত্যা করে লাশ পাতকুয়োর মধ্যে ফেলে দেয়। খোকন ও তার বাবাকে তারা হত্যা করে লাশ নদীতে ফেলে দেয়। এই রাজাকার বাহিনী বন্দবিলা হাইস্কুলের তৎকালীন প্রধান শিক্ষক সিরাজুল ইসলাম</span>, <span lang="BN">ছাত্র সাখাওয়াতকে ঘুমন্ত অবস্থায় গুলি করে হত্যা করে। একইভাবে তারা হত্যা করে আবুল মন্ডল</span>, <span lang="BN">রুহুল ও আফসার</span>; <span lang="BN">গাইদ ঘাটার সুরত আলী</span>, <span lang="BN">মুক্তার আলী</span>; <span lang="BN">আড়োকান্দির মান্নান</span>, <span lang="BN">পিয়ারপুরের চাঁদ আলী ও তার স্ত্রী এবং রজব</span>; <span lang="BN">উত্তর চাঁদপুরের আয়নাল</span>, <span lang="BN">নিমটার তারাপদের স্ত্রীসহ অসংখ্য মানুষকে। এর পাশাপাশি এই বাহিনীর সদস্যরা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের এবং হিন্দু সম্প্রদায়ের শতশত ঘরবাড়িতে লুটতরাজ এবং<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>অগ্নিসংযোগ করেছিল। বহু নারীকে ধরে এনে তারা দিনের পর দিন ধর্ষণ ও হত্যা করেছে। আমজেদ মোল্লা ও কায়েম আলীর নেতৃত্বে এই দুর্ধর্ষ বিশাল রাজাকার বাহিনী কমপক্ষে ১০টি গণহত্যার মাধ্যমে শতাধিক মানুষকে হত্যা করেছে।</span></span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">*** </span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">The Razakars had killed many people in Premchara village of 2 no Bandobila union of Bagharpara Upazila. The genocide took place under the leadership of Razakar Amjad Molla and Quaim Ali of Premchara village. They had killed the mother and father of freedom fighter Nausher of Chandpur village and many others. They had also killed 7 freedom fighters from different areas and dumped their bodies in the well. They had also killed many others including Khokon and his father, headmaster Sirajul Islam, his student Sakhawat. Besides, the Razakars looted and burnt down hundreds of houses of the freedom fighters and the Hindu community. Many women were raped, and then killed. </span></p>
  • post-image
    আড়পাড়া সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় নির্যাতন কেন্দ্র, মাগুরা/Arpara Government High School Torture Center, Magura
    <p>আড়পাড়া সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় নির্যাতন কেন্দ্র</p> <p>১৯৭১ সালের ২৩ এপ্রিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী মাগুরা দখল করার পর মে মাসে শালিখা দখল করে আড়পাড়া ডাকবাংলোয় ক্যাম্প ও নির্যাতন কেন্দ্র স্থাপন করে। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে সাহায্য করার জন্য রাজাকার ও রেঞ্জার বাহিনী গঠন করে। পাশে আড়পাড়া উচ্চ বিদ্যালয় ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজাকারদের ক্যাম্প স্থাপন করে। এসব ক্যাম্পে অসংখ্য মানুষ নির্যাতিত হয়।&nbsp;</p> <p>&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">Arpara Government High School Torture Center, Magura</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">After the Pakistani army captured Magura, they captured Shalikha and set up torture camp at Arpara Dakbanglow in on April 23, 1971. Razakars and Rangers were formed to assist the Pakistani army. Later, Razakar camps were set up at Arapara High School and Primary School. In these camps, many people were tortured.</span></p>
  • post-image
    তালখড়ি গণহত্যা, মাগুরা/Talkhari Genocide
    <p>তালখড়ি গণহত্যা</p> <p>১৯৭১ সালে ৫ ডিসেম্বর তালখড়ি গ্রামে একটি সম্মুখ যুদ্ধ অনুষ্ঠিত হয়। এই যুদ্ধে তাৎক্ষণিকভাবে ৪ জন মৃত্যুবরণ করেছেন, ২ জন আহত অবস্থায় কাতরাচ্ছিলেন। রাজাকার এবং রেঞ্জার বাহিনীর সদস্যরা কাতরানোর শব্দ শুনে ফিরে এসে ঐ দুজনকে গুলি করে মৃত্যু নিশ্চিত করে। চিত্তরঞ্জন বলেন,&lsquo; বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার মাত্র ২ দিন আগে বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নের নেতৃত্বে ফরিদপুর জেলার ১০০০ অধিবাসী প্রশিক্ষণ শেষে পাকিস্তানি বাহিনী স্থাপিত আড়পাড়া ক্যাম্প দখল করতে আসে। এই সংবাদ পাকিস্তানি বাহিনী আগে থেকে জানতে পেরে প্রতিরোধের প্রস্তুতি নেয়। ফলে আড়পাড়া আসার পথে তালখড়িতে উক্ত মুক্তিযোদ্ধাদের সাথে সম্মুখ যুদ্ধ হয়। সেই যুদ্ধে খান সেনারা ৭ মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যা করে। পরে গ্রামবাসীরা এসে কবর খুঁড়ে একই কবরে ৭ জনকে মাটি চাপা দেয়।&rsquo;</p> <p>&nbsp;****</p> <p>&nbsp;</p> <p><span style="font-family: 'Times New Roman', serif; font-size: 14pt; text-align: justify;">Talkhari Genocide</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">A front battle perpetrated in Talkhari village on December 5. Here, 4 people died instantly and 2 were in critical condition. The Razakars and Rangers members returned and confirmed the death of the two. Chittaranjan said, &ldquo;Only 2 days before the independence, 1000 villagers of Faridpur district got training under the leadership of Bangabandhu's nephew and came to occupy Aparpara camp. The Pakistani army was informed about this and they prepared to resist. As a result, there was a war with the freedom fighters at Talkhari on their way to Arapara. The Pakistani army killed 7 freedom fighters here. Later, the villagers came and grounded them togather into the same grave.</span></p>
  • post-image
    তালখড়ি গণকবর মাগুরা/ Talkhari Mass Grave, Magura
    <p>তালখড়ি গণকবর:&nbsp;</p> <p>আড়পাড়া থেকে হাজরাহাটি যেতে প্রধান সড়কের পাশেই তালখড়ির যুদ্ধে নিহত ৭জনের গণকবরটি অবস্থিত। এই কবর সম্পর্কে বাংলাদেশ সরকার নথিভুক্ত করেছে। এই গণকবরের উপরে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হয়েছে।&nbsp;</p> <p>&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">Talkhari Mass Grave</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">The mass grave of 7 people, martyred in the battle of Talkhari, is located along the main road from Arpara to Hazarahati. Bangladesh Government has documented this grave. A monument has been erected over this mass grave.</span></p>
  • post-image
    আড়পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্যাতন কেন্দ্র, মাগুরা/Arpara Government Primary School Torture Center, Magura
    <p>আড়পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্যাতন কেন্দ্র</p> <p>১৯৭১ সালের ২৩ এপ্রিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী মাগুরা দখল করার পর মে মাসে শালিখা দখল করে আড়পাড়া ডাকবাংলোয় ক্যাম্প ও নির্যাতন কেন্দ্র স্থাপন করে। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে সাহায্য করার জন্য রাজাকার ও রেঞ্জার বাহিনী গঠন করে। পাশে আড়পাড়া উচ্চ বিদ্যালয় ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজাকারদের ক্যাম্প স্থাপন করে। এসব ক্যাম্পে অসংখ্য মানুষ নির্যাতিত হয়।&nbsp;</p> <p>&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">Arpara Government Primary School Torture Center, Magura</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif';">After the Pakistani army captured Magura they captured Shalikha and set up torture camp at Arpara Dakbanglow in on April 23, 1971. Razakars and Rangers were formed to assist the Pakistani army. Later, Razakar camps were set up at Arapara High School and Primary School. In these camps, many people were tortured.</span></p> <div id="gtx-trans" style="position: absolute; left: -2px; top: 64px;">&nbsp;</div>
  • post-image
    আড়পাড়া ডাকবাংলো নির্যাতন কেন্দ্র, মাগুরা/ Arpara Dak Bungalow Premises Torture Site , Magura
    <p>আড়পাড়া ডাকবাংলো নির্যাতন কেন্দ্র&nbsp;</p> <p>১৯৭১ সালের ২৩ এপ্রিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী মাগুরা দখল করার পর মে মাসে শালিখা দখল করে আড়পাড়া ডাকবাংলোয় ক্যাম্প ও নির্যাতন কেন্দ্র স্থাপন করে। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে সাহায্য করার জন্য রাজাকার ও রেঞ্জার বাহিনী গঠন করে। পাশে আড়পাড়া উচ্চ বিদ্যালয় ও প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রাজাকারদের ক্যাম্প স্থাপন করে। এই ক্যাম্পে অসংখ্য মানুষ নির্যাতিত হয়। নির্যাতন শেষে তাদেরকে এনে ডাকবাংলোর পাশে জামতলায় গুলি করে হত্যা করতো অথবা নিমতলায় জবাই করতো।&nbsp;</p> <p>&nbsp;<span style="font-family: 'Times New Roman', serif; font-size: 14pt; text-align: justify;">Arpara Dak Bungalow Premises Torture Site , Magura</span></p> <p><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif'; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-fareast-theme-font: minor-latin; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">Arpara Dak Bungalow located at the Shalikha Upazila, beside Dhaka Jessore International Highway, Magura. To save lives from the Pakistani and their collaboretors, people of Jessore and Faridpur used to go to India through the inaccessible path of Arpara. Razakar and Ranger forces patrolled the highway and river to prevent the freedom fighters. They used to capture the frighted fleeing refugees and loot them. Later they would either shoot at Jamtala or slay at Nimtala near Dak Bungalow. The Pakistani forces killed around 2500 to 3000 people here.</span></p> <div id="gtx-trans" style="position: absolute; left: -14px; top: 92px;">&nbsp;</div>