শাখারীকাঠি গণহত্যা, বাগেরহাট

শাখারীকাঠি গণহত্যা

মোরেলগঞ্জ উপজেলার উত্তর প্রান্তের দৈবজ্ঞহাটি বাজারের কাছে বিশ্বাস বাড়িতে বসানো হয় রাজাকার ক্যাম্প। মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে সেখানে রাজাকারদের কয়েকদফা যুদ্ধ হয়। ৪ নভেম্বর ১৭ কার্তিক ১৩৭৮ বৃহস্পতিবার সারারাত উভয়পক্ষের মধ্যে গুলিবিনিময় চলে। স্থানীয় রাজাকারদের আহ্বানে পর দিন দুপুরের মধ্যেই কচুয়া উপজেলার রাজাকাররা সেখানে আসে। ৫ নভেম্বর শুক্রুবার কচুয়া উপজেলার শাখারীকাঠি গ্রামের হাট ছিল। সূর্য ডোবার বেশ আগেই শতাধিক অস্ত্রধারী রাজাকার বাজারটিকে ঘিরে ফেলে। বাজার থেকে ৮২ জনকে বেঁধে বিষখালী খালপাড়ে নেয় তারা। প্রত্যক্ষদর্শী আবদুল খালেক লিখেছেন, হুইসেল দিয়ে প্রচণ্ড গুলি করা শুরু করে তারা। ৮২ জনকে বাঁধা হলেও কয়েকজন বেঁচে যান। পরদিন বিষখালী খালের পূবে রামচন্দ্রপুর গ্রামের এক প্রান্তে লাশগুলো গণকবর দেওয়া হয়।

 

নিকটবর্তী আরও স্থান
  • post-image
    শাখারীকাঠি গণহত্যা, বাগেরহাট
    <p>শাখারীকাঠি গণহত্যা</p> <p><span style="font-size: 13.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">মোরেলগঞ্জ উপজেলার উত্তর প্রান্তের দৈবজ্ঞহাটি বাজারের কাছে বিশ্বাস বাড়িতে বসানো হয় রাজাকার ক্যাম্প। মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে সেখানে রাজাকারদের কয়েকদফা যুদ্ধ হয়। ৪ নভেম্বর ১৭ কার্তিক ১৩৭৮ বৃহস্পতিবার সারারাত উভয়পক্ষের মধ্যে গুলিবিনিময় চলে। স্থানীয় রাজাকারদের আহ্বানে পর দিন দুপুরের মধ্যেই কচুয়া উপজেলার রাজাকাররা সেখানে আসে। ৫ নভেম্বর শুক্রুবার কচুয়া উপজেলার শাখারীকাঠি গ্রামের হাট ছিল। সূর্য ডোবার বেশ আগেই শতাধিক অস্ত্রধারী রাজাকার বাজারটিকে ঘিরে ফেলে। বাজার থেকে ৮২ জনকে বেঁধে বিষখালী খালপাড়ে নেয় তারা। প্রত্যক্ষদর্শী আবদুল খালেক লিখেছেন</span><span style="font-size: 13.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">, </span><span style="font-size: 13.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">হুইসেল দিয়ে প্রচণ্ড গুলি করা শুরু করে তারা। ৮২ জনকে বাঁধা হলেও কয়েকজন বেঁচে যান। পরদিন বিষখালী খালের পূবে রামচন্দ্রপুর গ্রামের এক প্রান্তে লাশগুলো গণকবর দেওয়া হয়।</span></p> <p>&nbsp;</p>
  • post-image
    দৈবজ্যহাটি রাজাকার ক্যাম্প, বাগেরহাট
    <p>দৈবজ্যহাটি রাজাকার ক্যাম্প</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">একটি হিন্দুবাড়ি দখল করে এ রাজাকার ক্যাম্পটি খোলা হয়েছিল। এটি নির্যাতন কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হত। একাত্তররে মানবতা</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">বিরোধী</span><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">অপরাধ মামলার অন্যতম আসামী খান আকরাম হোসেন দৈব্যজ্ঞহাটি গ্রামের বিশ্বাস বাড়ির দোতলা ভবন দখল করে রাজাকার ক্যাম্প প্রতিষ্ঠা করেন। ওই ক্যাম্পের কমান্ডার ছিলেন তিনি। এখনো বিশ্বাসদের ওই বাড়িটি আকরাম হোসেনের দখলে রয়েছে।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD"><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">A Razakar camp was set on a Hindu inhabitant house. It was used as a torture center. In 1971, Khan Akram Hossain, one of the accused in the case of crimes against humanity, established a Razakar camp by captureing the Biswas Bari in Daivajnahati village. He was the commander of that camp. The Biswas house is still in the possession of Akram Hossain.</span></span></p>
  • post-image
    রামপুর গণকবর, বাগেরহাট
    <p>রামপুর গণকবর</p>
  • post-image
    বল্ভদ্রপুর গণহত্যা, বাগেরহাট
    <p>বল ভদ্রপুর গণহত্যা</p>
  • post-image
    তেলিগাতি গণহত্যা, বাগেরহাট
    <p>তেলিগাতি গণহত্যা</p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: .0001pt; text-align: justify; line-height: normal;"><span style="font-size: 13.0pt; font-family: SutonnyMJ; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: SutonnyMJ;">1971 mv&Dagger;ji 13 b&Dagger;f&curren;^i ivRvKvi Lvub Avkivd Avjx, Lvub AvKivg &dagger;nv&Dagger;mb, myjZvb Avjx Lvub, iy&macr;&Iacute;g Avjx &dagger;gvj&not;v, Bw`&laquo;m Avjx &dagger;gvj&not;v, gK&Dagger;Q` Avjx w``vi, DwKj &dagger;kL, Bw`&laquo;m Avjx &dagger;kL Ges &dagger;kL iwdKyj Bmjvg Ii&Dagger;d eveyj ev&Dagger;MinvU &dagger;Rjvi &dagger;gv&Dagger;ojM&Auml; _vbvaxb XywjMvZx M&laquo;v&Dagger;g nvgjv Pvwj&Dagger;q 2 Rb wbi&macr;&iquest; gyw&sup3;&Dagger;hv&times;v&Dagger;K wbh&copy;vZb I &cedil;wj K&Dagger;i nZ&uml;v K&Dagger;i|</span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: .0001pt; text-align: justify; line-height: normal;"><span style="font-size: 12.0pt; font-family: 'Times New Roman','serif'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman';">On 13 November 1971, Razakar Khan Ashraf Ali, Khan Akram Hossain, Sultan Ali Khan, Rustam Ali Molla, Idris Ali Molla, Maqshed Ali Didar, Ukil Sheikh, Idris Ali Sheikh and Sheikh Rafiqul Islam alias Babul attcked Morelganj police station in Bagerhat district. They tortured and killed two unarmed freedom fighters there.</span></p>
  • post-image
    কচুয়া রাজাকার ক্যাম্প, বাগেরহাট
    <p>কচুয়া রাজাকার ক্যাম্প</p>
  • post-image
    বৈটপুর বধ্যভূমি, বাগেরহাট
    <p class="p1"><span class="s1">বৈটপুর&nbsp;</span><span class="s1">বধ্যভূমি</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">১০ অক্টোব রবিবার গভীর রাতে বাগেরহাট রাজাকার বাহিনীর অর্ধশতাধিক সদস্য সিরাজ মাষ্টারের নেতৃত্বে বৈটপুর হিন্দুপাড়ায় আক্রমণ চালায়। হত্যা করা হয় হরিশ গুহ</span><span style="font-family: SutonnyOMJ;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">নিলু গুহ</span><span style="font-family: SutonnyOMJ;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">প্রদীপ গুহ এবং সুশীল মজুমদারকে।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD"><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">On Sunday night, 10 October, more than 50 members of the Bagerhat Razakar force led by Siraj Master attacked Baitpur Hindupara. Harish Guhu, Nilu Guhu, Pradeep Guhu and Sushil Majumder were killed.</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p>
  • post-image
    বৈটপুর গণহত্যা, বাগেরহাট
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">বৈটপুর গণহত্যা</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">১০ অক্টোবর গভীর রাতে বাগেরহাট রাজাকার বাহিনীর অর্ধশতাধিক সদস্য সিরাজ মাস্টারের নেতৃত্বে বৈটপুর হিন্দুপাড়ায় আক্রমণ চালায়। রাত প্রায় ৩টার দিকে রাজাকার বাহিনীর সদস্যরা হরিশ গুহের বাড়িটা চারিদিক থেকে ঘিরে ফেলে নিজেদের মুক্তিযোদ্ধা পরিচয় দিয়ে হরিশ গুহ ও তার পুত্র প্রদীপ গুহ ওরফে নীলু গুহকে ডাকাডাকি করতে থাকে। কিছুক্ষণের মধ্যেই রাজাকার বাহিনী দরজা ভেঙে বাড়ির মধ্যে ঢুকে হরিশ গুহ এবং তার ছোট ভাই গৌরপদ গুহকে ধরে বাইরে নিয়ে আসে। রাজাকাররা একইভাবে পাশের বাড়ির থেকে বোবা একটি কাজের লোকসহ প্রদীপ গুহ এবং সুশীল মজুমদারকেও ধরে আনে। এরপর একদল নওমুসলিমদের জবাই করার কাজে ব্যস্ত হয় এবং অন্যদল লুটপাটে মনোনিবেশ করে।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD"><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">In the mid-night on 10 October, more than 50 members of the Bagerhat Razakar force led by Siraj Master attacked Baitpur Hindupara. At around 3 am, the members of the Razakar forces surrounded Harish Guha's house and started calling Harish Guha and his son Pradeep Guha alias Nilu Guha pretending them as freedom fighters. After a while, the Razakars broke down the door and entered the house, grabbed Harish Guha and his younger brother Gaurapada Guha and brought them out. The Razakars similarly captured Pradeep Guha and Sushil Majumdar along with a dumb worker from the house next door. Then one group&nbsp; engaged in the slaughtering of the neo-Muslims and the other concentrated on looting.</span></span></p>
  • post-image
    মঘিয়া গণহত্যা, বাগেরহাট
    <p>মঘিয়া গণহত্যা</p>
  • post-image
    মঘিয়া বধ্যভূমি, বাগেরহাট
    <p>মঘিয়া বধ্যভূমি</p>