লক্ষ্মিকুণ্ডা মুচিপাড়া গণকবর/ Laksikunda Muchi Para Mass Graves

এ গ্রামে ছিলো মুচিদের পাড়া। আর মুচিরা যেহেতু হিন্দু তাই পাকিস্তানি হায়েনাদের আক্রোশটা একটু বেশিই পড়েছিলো। পাকিস্তানি বাহিনী মুচিপাড়া সম্পূর্ণ ভস্মীভূত করে দে। সেই সাথে কাফের নিধনের 'পুণ্য' অর্জনের লক্ষে মুচিপাড়ার দরিদ্র সকল মুচিকেই তারা হত্যা করে। এ গ্রামে পাকিস্তানি হানদিরি বাহিনী প্রায় ৩০ জনকে হত্যা করে। যেদিন এই গণহত্যা হয়েছিলো সেদিন ছিলো রবিবার, ২৫ এপ্রিল।  পরবর্তীতে স্থানীয় লোকেরা সকল মৃতদেহগুলোকে জড়ো করে আগুনে পুড়িয়ে ফেলে এবং মাত্র ৬ জনকে এক স্থানে গণকবর দেয়।

 

**** 

There was cobbler area in the village. And since the cobblers are from Hindu community, the outrage of Pakistani army was a bit much. They completely devastated the area. At the same time, they killed all the poor cobblers in order to achieve the 'purification' by ending up disbelievers. The Pakistani occupation forces killed around 5 people in the village. It was Sunday, April 25. Later, the locals gathered all the bodies and set them on fire and buried 6 bodies in a mass grave.

 

নিকটবর্তী আরও স্থান
  • post-image
    লক্ষ্মিকুণ্ডা মুচিপাড়া গণকবর/ Laksikunda Muchi Para Mass Graves
    <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;" lang="BN-BD">এ গ্রামে ছিলো মুচিদের পাড়া। আর মুচিরা যেহেতু হিন্দু তাই পাকিস্তানি হায়েনাদের আক্রোশটা একটু বেশিই পড়েছিলো। পাকিস্তানি বাহিনী মুচিপাড়া সম্পূর্ণ ভস্মীভূত করে দে</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">য়<span lang="BN-BD">। সেই সাথে কাফের নিধনের 'পুণ্য' অর্জনের লক্ষে মুচিপাড়ার দরিদ্র সকল মুচিকেই তারা হত্যা করে। এ গ্রামে পাকিস্তানি হানদিরি বাহিনী প্রায় ৩০ জনকে হত্যা করে।<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>যেদিন এই গণহত্যা হয়েছিলো সেদিন ছিলো রবিবার</span>, <span lang="BN-BD">২৫ এপ্রিল।<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>পরবর্তীতে স্থানীয় লোকেরা সকল মৃতদেহগুলোকে জড়ো করে আগুনে পুড়িয়ে ফেলে এবং মাত্র ৬ জনকে এক স্থানে গণকবর দেয়।</span></span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;"><span lang="BN-BD">****&nbsp;</span></span></span></span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">There was cobbler area in the village. And since the cobblers are from Hindu community, the outrage of Pakistani army was a bit much. They completely devastated the area. At the same time, they killed all the poor cobblers in order to achieve the 'purification' by ending up disbelievers. The Pakistani occupation forces killed around 5 people in the village. It was Sunday, April 25. Later, the locals gathered all the bodies and set them on fire and buried 6 bodies in a mass grave.</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">&nbsp;</span></p>
  • post-image
    লক্ষ্মিকুণ্ডা গ্রাম গণহত্যা
    <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">এ গ্রামে ছিলো মুচিদের একটা পাড়া। আর মুচিরা যেহেতু হিন্দু তাই পাকিস্তানি হায়েনাদের আক্রোশটা একটু বেশিই পড়েছিলো। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>পাকিস্তানি বাহিনী মুচিপাড়া সম্পূর্ণ ভস্মীভ</span><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ূ</span><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ত করে দেই। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>সেই সাথে কাফের নিধনের পুণ্য অর্জনের লক্ষে মুচিপাড়ার দরিদ্র সকল মুচিকেই তারা হত্যা করে। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>এ গ্রামে পাকিস্তানি হানদিরি বাহিনী প্রায় ৩০ জনকে হত্যা করে। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>যেদিন এই গণহত্যা হয়েছিলো সেদিন ছিলো রবিবার</span>, <span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">২৫ এপ্রিল। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>পরবর্তীতে স্থানীয় লোকেরা সকল মৃতদেহগুলোকে জড়ো করে আগুনে পুড়িয়ে ফেলে এবং মাত্র ৬ জনকে এক স্থানে গণকবর দেয়।</span></p>
  • post-image
    দাদাপুর হাট গণহত্যা
    <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালের ২৫ এপ্রিল রবিবার দাদাপুরে সাপ্তাহিক হাট বসে। আশেপাশের গ্রামগুলো থেকে শত শত লোক কেনা বেচার জন্য হাটে এসেছিলো। হাটে যখন লোক সমাগম ঠিক তখন হাজির হয় যমদূতের ন্যায় পাকিস্তানি বাহিনী। তারা এসময় হাটের পাশে বর্তমান ইটের ভাটার বামপাশে প্রায় ৪০-৫০ জনকে ধরে সারিবদ্ধভাবে দার করিয়ে পাকিস্তানি পশুরা গুলি করে হত্যা করে। এবং ১ জন গুলি লেগে বেচে যায়।</span></p>
  • post-image
    পাকুরিয়া গণহত্যা
    <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ঈশ্বরদী উপজেলার সাহপুর ইউনিয়নের একটি গ্রাম পাকুরিয়া। ১৯৭১ সালের ২৫ এপ্রিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী স্থানীয় দোসরদের সহায়তায় এ গ্রামে প্রবেশ করে অল্পসময়ের মধ্যে স্কুল মাস্টার উম্মেদ আলী মৌলভী সহ পনের-বিশ জনকে হত্যা করে। একই সাথে সমস্ত গ্রাম আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়।</span></p>
  • post-image
    সাহাপুর গণহত্যা
    <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ঈশ্বরদী উপজেলার গণহত্যাগুলোর মধ্যে সাহাপুর গ্রামের গণহত্যা ছিলো খুবই হৃদয়বিদারক। ১৯৭১ সালের ২৫ এপ্রিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী অল্পসময়ের আক্রমনে প্রায় দুইশতরও অধীক মানুষকে হত্যা করে। সমস্ত গ্রাম পাকিস্তানি বাহিনী জ্বালিয়ে দেয়। এদিন যারা নিহত হন তাদের মধ্যে রয়েছে গ্যাদা মিস্ত্রি</span>, <span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">আরশেদ</span>, <span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">বদি খন্দকার (মহাদেবপুর) ও তাঁর ছেলেসহ নাম না জানা আরও অনেক। </span></p>
  • post-image
    রূপপুর গণহত্যা
    <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">নতুন রূপপুর ও চর রূপপুর পাশাপাশি দুটি গ্রাম। এ গ্রাম দুটিতে পাকিস্তানি হানাদার নির্মমতার প্রকাশ ঘটে ১৯৭১ সালের ২৫ এপ্রিল রবিবার। এদিনের হামলা ছিলো পরিকল্পিত একটি হামলা। পাকিস্তানি সেনা ও তাদের দোসরদের আগমনে রূপপুর গ্রামবাসী<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>দিগবিদিক পালাতে থাকে। এসময় পাকিস্তানিরা যাকে যেখানে পায় ধরে তখনি গুলি করে মারতে থাকে। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>রুপপুর গ্রামে এ হত্যাকা</span><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ন্ডে </span><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">প্রায় ১৩ জন নারী-পুরুষ শহিদ হন। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>মাত্র দুই জনের নাম জানা সম্ভব হয়। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>এরা হলেন আসগর(৪০) ও আশীতপর(৭০)।<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span></span></p>
  • post-image
    হার্ডিঞ্জ ব্রিজ বধ্যভূমি/ Hardinge bridge Mass killing Site
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;" lang="BN-BD">পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার যতগুলো বধ্যভুমি রয়েছে তার মধ্যে অন্যতম ও জঘন্য হল পাকশির হার্ডিঞ্জ ব্রিজ</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Mangal',serif; mso-ascii-font-family: Kalpurush; mso-hansi-font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: HI;" lang="HI">।</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;"><span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span></span><span style="font-size: 14pt; line-height: 21.4667px; font-family: Kalpurush;"><span lang="BN-BD">মুক্তিযুদ্ধ শেষ হওয়ার পরেও&nbsp;</span></span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;"><span lang="BN-BD">পাকশি হার্ডিঞ্জ ব্রিজের নিচে সেতুর দুদিকেই অসংখ্য মানুষের কঙ্কাল</span>, <span lang="BN-BD">মাথার খুলি</span>, <span lang="BN-BD">শাড়ি</span>, <span lang="BN-BD">জুতা পাওয়া গিয়েছিল</span></span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Mangal',serif; mso-ascii-font-family: Kalpurush; mso-hansi-font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: HI;" lang="HI">।</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">&nbsp;<span lang="BN-BD">দীর্ঘ সেতুর প্রতিটি বিশাল স্পানের ভেতরে ও নিচে গাদা গাদা মেয়েদের শাড়ি</span>, <span lang="BN-BD">নরকঙ্কাল</span>, <span lang="BN-BD">মাথার খুলি দেখে সহজেই অনুমান করা যায় সেতুর দুইদিকের এসব স্প্যানে শত শত নারীকে ধরে এনে অত্যাচার করে হত্যা করা হয়েছে</span>।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: left;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">***&nbsp;</span></p> <p><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-theme-font: minor-bidi; mso-bidi-language: BN-BD;">Hardinge bridge of Pakshi is one of the most heinous among all the mass killing sites of Ishwardi Upazila in Pabna district.</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-theme-font: minor-bidi; mso-bidi-language: BN-BD;"> Many skeletons, skulls, clothes, shoes were left under the</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman',serif; mso-bidi-language: BN-BD;">&nbsp;</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-theme-font: minor-bidi; mso-bidi-language: BN-BD;">both sides of </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman',serif; mso-bidi-language: BN-BD;">Pakshi</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-theme-font: minor-bidi; mso-bidi-language: BN-BD;"> Hardinge Bridge, even after the war was ended. Hundreds of women were tortured here and their skeletons and belongings were found here.</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman',serif; mso-bidi-language: BN-BD;">&nbsp;</span></p> <p>&nbsp;</p>
  • post-image
    চরকুরুলিয়া, চরগড়গড়ী গ্রাম গণহত্যা
    <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">মুক্তিযুদ্ধের সময় পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার চরকুরুলিয়া এবং চগড়গড়ী গ্রামের যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো ছিল না। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>সে কারণে এ স্থানে পাবনা শহর থেকে সাধারণ নারী পুরুষ এসে আশ্রয় নিয়েছিলো। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>সাধারণ মানুষের আশ্রয়ের পাশাপাশি এ অঞ্চল নিরাপদ হওয়ায় মুক্তিযোদ্ধারা এখানে অবস্থান করতো এবং বিভিন্ন সময়ে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর উপর হামলা করতো। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>আর এ কারণেই এই এলাকা পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ও তাদের দোসরদের নজরে চলে আসে। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>মুক্তিযুদ্ধের শেষ দিকে ১৯৭১ সালের ২৭ নভেম্বর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী এ গ্রামে হামলা করে। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>তারা প্রথমেই চরকুরুলিয়া এবং চগড়গড়ী গ্রাম আগুন দিয়ে নিশ্চিহ্ন করে দেই। সৌভাজ্ঞবসত সাধারণ বাঙালি পাকিস্তানিদের আসার খবর জানতে পেরে দ্রত গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে যায়। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>তারপরেও পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর গুলিতে এদিন এ গ্রামের ৪ জন শহিদ হন। </span></p>
  • post-image
    পাকশী রেল কলোনি গণহত্যা
    <h1>১৯৭১ সালের ১২ এপ্রিল যখন পাকিস্তানি সৈন্য পাকশীতে হামলা করে তখন তাদের সহায়তা করেছিলো বিহারিরা। পাকশি রেল কলোনি হামলায় ঐ দিন প্রায় ১৫ থেকে ২০ জন শহিদ হন। এরা ছিলেন- রেল কর্মচারী ইয়াকুব আলী, আব্দুল লতিফ, আব্দুল লতিফের দুই ভাই, পাকশী হাসপাতালের আরএস ও তাঁর পরিবারের সকল সদস্য, যুক্তিতলার ব্যবসায়ী জয়েন উদ্দিনসহ আরও অনেকে। এদিনের এই অবস্থা এতই ভয়াবহ ছিলো যে তাদের লাশ দাফন করার কোন লোক ছিলো না। পরে যখন পাকিস্তান বাহিনী চলে যায় তখন সুইপার কলোনির সুইপাররা লাশগুলো পুতে রাখে।&nbsp;&nbsp;</h1>
  • post-image
    পাকশি রেল কলোনি গণকবর
    <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালের ১২ এপ্রিল যখন পাকিস্তানি সৈন্য পাকশীতে হামলা করে তখন তাদের সহায়তা করেছিলো এই বিহারিরা। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>পাকশি রেল কলোনি হামলায় ঐ দিন প্রায় ১৫ থেকে ২০ জন শহিদ হন। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>এদিনের এই অবস্থা এতই ভয়াবহ ছিলো যে তাদের লাশ দাফন করার কোন লোক ছিলো না। পরে যখন পাকিস্তান বাহিনী চলে যায় তখন সুইপার কলোনির সুইপাররা পানির ট্যাংকির নিচে লাশগুলো পুতে রাখে।</span></p>