রস্তম আজগড়া গণকবর/ Rustom Ajgara mass graves

১৯৭১ সালের ১৭ মতান্তরে ২৭ এপ্রিল আজগড়া  গ্রামে এক নৃশংস গণহত্যা সংঘটিত হয়। সেদিনের সেই ভয়াবহ গণহত্যায় আজগড়া গ্রামের এবং বহিরাগত যারা নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য এই গ্রামে থাকতো সব মিলিয়ে ৪০ জনের অধিক সংখ্যক নিরীহ লোককে সেদিনে স্থানীয় রাজাকার এবং শান্তি বাহিনীর সহায়তায় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী হত্যা করে। পুরো গ্রাম জুড়ে এই গণহত্যা চলে বলে যেখানে যাকে হত্যা করেছিল, সেখানেই তাকে গ্রামবাসীর সহায়তায় পুতে রাখা হয়। সেই হিসেবে সমস্থ গ্রাম জুড়ে ছড়িয়ে আছে তাদের কবর। তবে রোস্তম আজগড়ার শান্তি সিকদার, সুধির সিকদার, শিশির সহ আরোও কয়েক জনের লাশ পাকিস্তানিদের হাত থেকে সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে যাওয়া রাজকুমার সিকদারের বাড়ির পশিমপাশে বাঁশ বাগানের কাছে একটি গণকবর দেয়া আছে।

 

***

 

A brutal massacre took place in Ajgara village on 27th April (or 17th April), 1971. More than 40 people were killed by Pakistani military force on this massacre. Razakars helped actively in this genocide. As the genocide took place throughout the whole village, the dead bodies were buried here and there. As a result, there are a lot of graves throughout the village. However there is a mass grave in the west side of the Sikidar’s house.  

 

নিকটবর্তী আরও স্থান
  • post-image
    রস্তম আজগড়া গণকবর/ Rustom Ajgara mass graves
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালের ১৭ মতান্তরে ২৭ এপ্রিল আজগড়া<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>গ্রামে এক নৃশংস গণহত্যা সংঘটিত হয়। সেদিনের সেই ভয়াবহ গণহত্যায় আজগড়া গ্রামের এবং বহিরাগত যারা নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য এই গ্রামে থাকতো সব মিলিয়ে ৪০ জনের অধিক সংখ্যক নিরীহ লোককে সেদিনে স্থানীয় রাজাকার এবং শান্তি বাহিনীর সহায়তায় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী হত্যা করে। পুরো গ্রাম জুড়ে এই গণহত্যা চলে বলে যেখানে যাকে হত্যা করেছিল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সেখানেই তাকে গ্রামবাসীর সহায়তায় পুতে রাখা হয়। সেই হিসেবে সমস্থ গ্রাম জুড়ে ছড়িয়ে আছে তাদের কবর। তবে রোস্তম আজগড়ার শান্তি সিকদার</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সুধির সিকদার</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">শিশির সহ আরোও কয়েক জনের লাশ পাকিস্তানিদের হাত থেকে সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে যাওয়া রাজকুমার সিকদারের বাড়ির পশিমপাশে বাঁশ বাগানের কাছে একটি গণকবর দেয়া আছে।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: 'Siyam Rupali'; background-image: initial; background-position: initial; background-size: initial; background-repeat: initial; background-attachment: initial; background-origin: initial; background-clip: initial;">A brutal massacre took place in Ajgara village on 27<sup>th</sup> April (or 17<sup>th</sup> April), 1971. More than 40 people were killed by Pakistani military force on this massacre. Razakars helped actively in this genocide. As the genocide took place throughout the whole village, the dead bodies were buried here and there. As a result, there are a lot of graves throughout the village. </span><span style="font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: 'Siyam Rupali'; background-image: initial; background-position: initial; background-size: initial; background-repeat: initial; background-attachment: initial; background-origin: initial; background-clip: initial;">However there is a mass grave in the west side of the Sikidar&rsquo;s house.</span><span style="font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: 'Siyam Rupali'; background-image: initial; background-position: initial; background-size: initial; background-repeat: initial; background-attachment: initial; background-origin: initial; background-clip: initial;"> &nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p>
  • post-image
    আজগড়া গণকবর, তেরখাদা/Ajgora Mass Grave, Terkhada
    <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালের ১৭ মতান্তরে ২৭ এপ্রিল আজগড়া<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>গ্রামে এক নৃশংস গণহত্যা সংঘটিত হয়। সেদিনের সেই ভয়াবহ গণহত্যায় আজগড়া গ্রামের এবং বহিরাগত যারা নিরাপদ আশ্রয়ের জন্য এই গ্রামে থাকতো। সব মিলিয়ে ৪০ জনের অধিক সংখ্যক নিরীহ লোককে সেদিনে স্থানীয় রাজাকার এবং শান্তি বাহিনীর সহায়তায় পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী হত্যা করে। পুরো গ্রাম জুড়ে এই গণহত্যা চলে বলে যেখানে যাকে হত্যা করেছিল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;">, <span lang="BN">সেখানেই তাকে গ্রামবাসীর সহায়তায় পুতে রাখা হয়। সেই হিসেবে সমস্ত গ্রাম জুড়ে ছড়িয়ে আছে তাদের কবর। তবে রোস্তম আজগড়ার শান্তি সিকদার</span>, <span lang="BN">সুধির সিকদার</span>, <span lang="BN">শিশির সহ আরোও কয়েক জনের লাশ পাকিস্তানিদের হাত থেকে সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে যাওয়া রাজকুমার সিকদারের বাড়ির পশিমপাশে বাঁশ বাগানের কাছে একটি গণকবর দেয়া আছে।</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">***</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="background-image: initial; background-position: initial; background-size: initial; background-repeat: initial; background-attachment: initial; background-origin: initial; background-clip: initial; font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: #212529;">On 17<sup style="box-sizing: border-box;">th</sup></span><span style="background-image: initial; background-position: initial; background-size: initial; background-repeat: initial; background-attachment: initial; background-origin: initial; background-clip: initial; font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: Cambria, serif; color: #212529;">&nbsp;</span><span style="background-image: initial; background-position: initial; background-size: initial; background-repeat: initial; background-attachment: initial; background-origin: initial; background-clip: initial; font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: #212529;">April, 1971 (27<sup style="box-sizing: border-box;">th</sup></span><span style="background-image: initial; background-position: initial; background-size: initial; background-repeat: initial; background-attachment: initial; background-origin: initial; background-clip: initial; font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: Cambria, serif; color: #212529;">&nbsp;</span><span style="background-image: initial; background-position: initial; background-size: initial; background-repeat: initial; background-attachment: initial; background-origin: initial; background-clip: initial; font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: #212529;">April by other opinion) an outrageous massacre took place on Ajgora village, Terokhada Thana at Khulna. With the assist of a local member of Shanti Bahhini (Razakar) named Jumman Khan, a troop of Pakistani Military force entered into the village and killed more than 40 people indiscriminately. </span><span style="background-image: initial; background-position: initial; background-size: initial; background-repeat: initial; background-attachment: initial; background-origin: initial; background-clip: initial; font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: #212529;">Then they were buried in the village.</span><span style="background-image: initial; background-position: initial; background-size: initial; background-repeat: initial; background-attachment: initial; background-origin: initial; background-clip: initial; font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: Cambria, serif; color: #212529;">&nbsp;</span><span style="background-image: initial; background-position: initial; background-size: initial; background-repeat: initial; background-attachment: initial; background-origin: initial; background-clip: initial; font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: #212529;">As most of the victims were from outside of the village and their identification remained unidentified. Some of the names are found, they are Kalipod Chakrabati, Dhirendranath Ghoshal, Heeralal Goshami, Munsur Shikder, Bashanta Bachar, Chondi Buri, and others.</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p>&nbsp;</p> <p>&nbsp;</p>
  • post-image
    আজগড়া গণহত্যা, আজগড়া ইউনিয়ন, তেরখাদা/ Ajgora Genocide, Ajgora Union, Terkhada
    <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালের ১৭ মতান্তরে ২৭ এপ্রিল পাকিস্তান সেনাবাহিনী একটি দল গানবোটে করে খুলনার আঠারোবেকী নদী দিয়ে পালেরহাট নামক বাজারে নামে। এরপর পায়ে হেটে আজগড়া গ্রামে প্রবেশ করে। বেলা আনুমানিক বারোটার হবে আজগড়া গ্রামে পৌঁছে তারা গ্রামের নিরীহ লোকগুলোর ওপর এক নারকীয় হত্যাযজ্ঞ ঘটায়। সেদিনে প্রায় চল্লিশ জনের অধিক নিরীহ লোককে তারা হত্যা করে। এদের বেশির ভাগ ছিলো বহিরাগত এবং বয়সে খুবই প্রবীণ।</span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">কেননা পাকিস্তানি বাহিনী গ্রামে প্রবেশ করার সংবাদ শুনে গ্রামের নারী এবং যুবকেরা বাড়ি ছেড়ে প্রায় সবাই পালিয়েছিলো। বাড়িতে ছিলো বেশীর ভাগ বয়স্ক লোক। তাদের এদিন নির্মমভাবে হত্যা করে সাথে সাথে পুরো গ্রাম লুটপাট এবং অগ্নিসংযোগ করে পুড়িয়ে দেয়। সমস্ত ধ্বংসযজ্ঞ এবং গণহত্যার পিছনে ছিলো জুম্মান নামে স্থানীয় শান্তিকমিটির এক সদস্য। সেদিনের গণহত্যায় যারা শহীদ হয়েছিলেন তাদের বেশিরভাগ বহিরাগত হওয়ায় সবার পরিচয় উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।</span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">যাদের পরিচয় জানা যায় তারা হলেন- কালিদাশ চক্রবর্তী</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">, <span lang="BN">ধীরেন্দ্র নাথ ঘোষাল</span>, <span lang="BN">হিরালাল গোস্বামী</span>, <span lang="BN">মুনসুর সিকদার</span>, <span lang="BN">বসন্ত বাছাড়</span>, <span lang="BN">বৈদ্য চরণ বাছাড়</span>, <span lang="BN">অতুল বাছাড়</span>, <span lang="BN">শিশির</span>, <span lang="BN">চন্ডি বুড়ি</span>, <span lang="BN">বাবুরাম</span>, <span lang="BN">কালীপদ মিত্র</span>, <span lang="BN">কালীদাশ বাছাড়</span>, <span lang="BN">দৈব চরণ রায়</span>, <span lang="BN">হরিবর বৈরাগী</span>, <span lang="BN">সুধীর সিকদার</span>, <span lang="BN">শান্তি সিকদার</span>, <span lang="BN">সন্যাসি সিকদার</span>, <span lang="BN">পলাশ সিকদার এবং পদ রায়।</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সম্প্রতি ১৯৭১ : গণহত্যা নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">, <span lang="BN">খুলনা</span>, <span lang="BN">গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সংস্কৃত বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে শহিদের স্মৃতি সংরক্ষণ কার্যক্রমের অংশ হিসেবে এখানে একটি শহীদ স্মৃতিফলক স্থাপন করে।</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;"><span lang="BN">***&nbsp;</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">On 17th April (27th April, by others opinion) in 1971, a troop of the Pakistani Military Force came to Palerhat Bazar (Market) by gunboat through Atharobeki River, Khulna. They had reached nearly at 12 pm and started attacked on the innocent villagers. They had killed almost 40 people on that day. Most of the martyrs were old and outsider of the village.</span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">Many of the women and youth had fled from the village as they heard about the Pakistanis arrival. But the older people couldn&rsquo;t escape and as a result, they had been killed brutally by the Pakistani military. Besides that, the Pakistani Army had looted and set fire in the village. </span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">Recently, &lsquo;1971: Genocide-Torture Archive &amp; Museum,&rsquo; has established a memorial in this place. </span></p>
  • post-image
    আজগড়া শহীদ স্মৃতি ফলক/ Ajgora Martyr memorial
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল মতান্তরে ২৭ এপ্রিল খুলনা জেলার অন্তর্গত তেরখাদা থানার আজগড়া গ্রামে এক নারকীয় ধ্বংসযজ্ঞ চলে। স্থানীয় শান্তি কমিটির সদস্য জুম্মান খানের সহযোগীতায় খুলনা থেকে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর একটি দল এ দিন আজগড়া গ্রামে প্রবেশ করে ৪০ (চল্লিশ) জনের অধিক ব্যক্তিকে নির্বিচারে গুলি করে হত্যা করে। তাঁদের বেশির ভাগ ছিলো বহিরাগত ফলে তাঁদের পরিচয় খুজে বের করা খুবই কষ্টসাধ্য। যাদের পরিচয় জানা সম্ভব হয়েছে</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">তাঁরা হলেন: ১.কালীপদ চক্রবর্তী ২. ধীরেন্দ্র নাথ ঘোষাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">৩. হিরালাল গোস্বামী</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">৪. মুনসুর শিকদার ৫. বসন্ত বাছাড় ৬. বৈদ্য চরণ বাছাড়</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">৭. অতুল বাছাড় ৮. শিশির</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">৯. চন্ডি বুড়ি ১০. বাবুরাম বিশ্বাস</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১১. কালিপদ মিত্র</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১২. কালীদাশ বিশ্বাস</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৩. দৈবচরণ চক্রবর্র্তী</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৪. হরিরর বৈরাগী</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৫. সুধির শিকদার</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৬. শান্তিপদ শিকদার</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৭. সন্যাসী শিকদার</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৮. পলাশ শিকদার</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯. পদ রায়।</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">এখানে জনাব মল্লিক সুধাংশু</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">; </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ট্রাস্টি শংকর কুমার মল্লিক ও পরিচালনা পরিষদ সদষ্য অমল কুমার গাইন এর তত্তাবধানে স্মৃতিস্তম্ভ নির্মান কাজ শেষ করা হয়। গণহত্যা-নির্যাতন ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষণা কেন্দ্র ১৯৭১: গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাষ্ট</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">খুলনা এর অর্থে স্মৃতিস্তম্ভ গড়ে তোলা হয়। গত ১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে স্মৃতিফলকটি উন্মোচন করেন সংস্কৃতিক বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের সচিব জনাব মো: ইব্রাহিম হোসেন খান।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">On 17<sup>th</sup> April, 1971 (27<sup>th</sup> April by other opinion) an outrag</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;">eous</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;"> massacre took place on Ajgora village, Terokhada Thana at Khulna. With the assist of a local member of Shanti Bahhini (Razakar) named Jumman Khan, a troop of Pakistani Military force entered into the village and killed more than 40 people indiscriminately. &nbsp;As most of the victims were from outside of the village and their identification remain unidentified. Some of the names are found, they are Kalipod Chakrabati, Dhirendranath Ghoshal, Heeralal Goshami, Munsur Shikder, Bashanta Bachar, Chondi Buri, and others.</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-family: Kalpurush; font-size: 14pt; text-indent: -0.25in;">A memorial has been built in this place by </span><em style="font-family: Kalpurush; font-size: 14pt; text-indent: -0.25in;">1971: Genocide- Torture Archive &amp; Museum Trust</em><span style="font-family: Kalpurush; font-size: 14pt; text-indent: -0.25in;"> in 2017.&nbsp;</span></p>
  • post-image
    সেনের বাজার গণহত্যা, আইচগাতী ইউনিয়ন/ Sen Bazar Genocide, Aichgati Union
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালের ০১ মে তারিখে খুলনা শহর থেকে পাকিস্তানি সৈন্যরা স্থানীয় পিস কমিটির সদস্যদের সহযোগিতায় জেলখানা ঘাট পার হয়ে সেনেরবাজারে আসে। সেনেরবাজার খুলনা শহরের জেলখানা ঘাটের ঠিক অপর পাড়ে অবস্থিত। অনেক আগে থেকেই এই এলাকায় ধনাঢ্য ও উচ্চশিক্ষিত হিন্দু সম্প্রদায়ের বাস। তাঁদের ঘরবাড়ি ও সহায় সম্পত্তি লুট করাই স্থানীয় রাজাকার ও পিস কমিটির লোকদের অন্যতম লক্ষ্য ছিল। পাকিস্তানি সেনাদের নিয়ে তারা প্রথমে শ্যামাপদ সিংহের বাড়ি গিয়ে ব্যাপক লুটপাট করে আগুন ধরিয়ে দেয়। তারপর আক্রমণ করে বি এল কলেজের প্রখ্যাত অধ্যাপক অমূল্যধন সিংহের বাড়ি।</span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">আক্রমণকারীরা তাঁর বাড়ির আসবাবপত্র</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">মূল্যবান দ্রব্যাদিসহ বইপত্র লুট করে নিয়ে যায়। এরপর যজ্ঞেশ্বর দে এর বাড়িতে যায় মিলিটারিরা। একমাত্র ছেলেকে বাড়ির বাইরে পাঠিয়ে দিয়ে তাঁরা স্বামী- স্ত্রী বাড়িতে ছিলেন। স্বাধীনতাবিরোধীরা তাঁর বাড়িতে থাকা টাকা পয়সা</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সোনাদানা লুট করে এবং মিলিটারিরা যজ্ঞেশ্বর বাবুকে গুলি করে হত্যা করে। এছাড়া এসময় আরো অনেক বাড়িতে পাকিস্তানি সেনা এবং পিস কমিটির লোকেরা লুটপাট<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>অগ্নিসংযোগ করে ও হত্যাযজ্ঞ চালায়। খুলনা শহরের আশেপাশের অনেক হিন্দু পরিবার এই গ্রামে এসে আশ্রয় নেয়। এই হত্যাকাণ্ডে প্রায় ২০ জনকে হত্যা করা হয়। বাইরের লোক বিধায় তাদের নাম পরিচয় জানা যায় নি।</span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">On 1<sup>st</sup></span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Cambria',serif; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: Cambria; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">May in 1971, The Pakistani Army, with the help of the members of Peace Committee came to Sen Bazar from Khulna. Sen Bazar is situated across the Jailkhana Ghat. The Razakars and members of peace committee targeted to loot the local highborn Hindu inhabitants, who were rich and highly educatedfor a long time. The Pakistani Army and their collaborators set fire and looted the houses of that area. They had looted furniture, valuable belongings, important books and papers. They had also killed Jogesshor Babu. Many of the people from the Hindu Community came to this village in search of shelter. Almost 20 people died on thisgenocide. As most of them were from outside of the village, so their names remains unidentified. </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Cambria',serif; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: Cambria; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;&nbsp;</span></p>
  • post-image
    মোকামপুর গণহত্যা, মধুপুর ইউনিয়ন/ Mokampur genocide, Madhupur Union
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালের ৫ মে তারিখে খুলনা নৌবাহিনীর ঘাট থেকে পাকিস্তানি সৈন্যরা ভৈরব নদী দিয়ে গানবোটে তেরখাদার মোকামপুর বাজারের কাছে উপস্থিত হয়। মোকামপুর বাজারের পাশ দিয়ে প্রবাহিত আতাই নদীতে গানবোট থামিয়ে তারা দ্রুত গতিতে বাজারের ভেতরে প্রবেশ করলে বাজারের লোকজন প্রাণভয়ে পালিয়ে যায়।&nbsp;</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">দোকান পাট ফেলে যে যেদিক পেরেছে দৌঁড়ে প্রাণ বাঁচিয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে বাজারে লোক সমাগম দেখে তারা নেমে গোলাগুলি শুরু করে। পাকিস্তানি সেনারা সেদিন মোকামপুর বাজারে গুলি করে কমপক্ষে ১০ জনকে হত্যা করে এবং অসংখ্য দোকানপাট ও ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেয়। শহিদদের মধ্যে ২ জনের নাম জানা গেছে</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">তাঁরা হলেন- ১) ময়েন শেখ</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">২) আবুল খায়ের।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; line-height: normal;"><span style="font-size: 14pt; font-family: 'Siyam Rupali';">In 5<sup>th</sup> may 1971, Pakistani military entered Mokampur Bazar by Atai river. The people of the bazar fled to forest, but those who were not able to flee became the victim of genocide. Pakistani military killed at least 10 people and burnt numerous shops and houses on that day.&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">&nbsp;</span></p>
  • post-image
    কাস্টমঘাট গণহত্যা/ Custom Ghat genocide
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14pt; font-family: Kalpurush;" lang="BN">ভৈরব নদীর পূর্ব তীরে সার্কিট হাউসের সন্নিকটে অবস্থিত কাস্টম ঘাট। ফরেস্ট ঘাটের ন্যায় এ ঘাটটিকেও ঘাতকরা তাদের জল্লাদখানা হিসেবে বেছে নেয়। বিহারীদের একটি দল সার্কিট হাউসে পাকসেনাদের সাথে সবসময়ই অবস্থান করত এবং এরাই কাস্টমঘাটে বাঙালিদেরকে নির্মমভাবে হত্যা করতো</span><span style="font-size: 14pt; font-family: Kalpurush;" lang="HI">।</span><span style="font-size: 14pt; font-family: Kalpurush;" lang="BN">এখানে ঘাতকেরা যাদেরকে ধরে আনতো তাদেরকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় নদীতে জীবন্ত ফেলে দিয়ে হত্যা করতো। এমনই একটা হত্যা প্রচেষ্টার হাত থেকে অলৌকিকভাবে বেঁচে যায় খুলনা জেলা প্রশসকের কার্যালয়ের কর্মচারী শক্তিপদ সেন। শক্তিপদ সেন বেঁচে যাওয়ায় এ ঘটনা সম্পর্কে জানা সম্ভব হয়েছে। এ ভাবে এ ঘাটে তথা এ নদীতে ডুবিয়ে কতজন নিরীহ বাঙালিকে পাকিস্তানি সেনারা হত্যা করেছে তার পরিসংখ্যান উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি</span><span style="font-size: 14pt; font-family: Kalpurush;" lang="HI">।</span></p> <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; line-height: normal;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; line-height: normal;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: Mangal; color: black; mso-bidi-language: HI;">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; line-height: normal;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: Mangal; color: black; mso-bidi-language: HI;">The Custom Ghat is located near the Circuit House on the eastern bank of the river Bhairab. A group of Biharis, along with Pakistani Military, used to live in the Circuit House, and the Biharis used to exterminate Bengali people in the Custom Ghat. No one knows how many people were exterminated in this place. <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; line-height: normal;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-theme-font: minor-bidi; color: black; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; line-height: normal;"><span style="font-size: 7.5pt; font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-hansi-font-family: Kalpurush; mso-bidi-theme-font: minor-bidi; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">&nbsp;</span></p>
  • post-image
    ফরেস্টঘাট নিযার্তন কেন্দ্র/ Forestghat Torture center
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ভৈরব নদীর তীরে ফরেস্টঘাটটি ছিলো ১৯৭১ সালে<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>ঘাতকদের আর এক জল্লাদখানা। খুলনা জেলা জজের বাংলো সংলগ্ন এ ঘাটটি তখন বাগান পরিবেষ্ঠিত ছিলো। রাতের বেলা সাধারণ মানুষ এ পথ ধরে চলাচল করতো না। কেবল দিনের বেলা নদী পারাপার ও ঘাটের কাজে কিছু লোক এ ঘাট ব্যবহার করতো। তবে মুক্তিযুদ্ধের সময়ে পাকিস্তানি বাহিনী ও রাজাকারদের ভয়ে এ ঘাটের ব্যবহার বন্ধ হয়ে যায়। এটি তখন ঘাতকদের দখলে চলে যায়। এখানে ঘাট থাকায় নদীর কিনারা পর্যন্ত সহজে যাওয়া যেত বিধায় ঘাতকরা এ জায়গাকে জল্লাদ খানা হিসেবে বেছে নেয়। এখানে গড়ে প্রতিদিন ২০ জনকে (বিশজন) জবাই করে পেট চিরে লাশ নদীতে ভাসিয়ে দিতো বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়।</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';"><span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span></span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ফরেস্ট ঘাট ছিলো তৎকালীন জজ সাহেবের বাসার ঠিক পেছনে। প্রতিদিন রাতে নিরীহ বাঙালিদের আর্তনাদ তিনি সহ্য করতে না পেরে তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত সামরিক অফিসারকে অনুরোধ করেছিলেন</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">এ ধরনের কাজ এখানে না করার জন্য। তার উত্তরে তিনি পেয়েছিলেন শাসানি। এই নৃশংসতা সহ্য করতে না পেরে ১৯৭১ সালের ৩০ মে তিনি হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান। এখানকার নির্যাতন থেকে মুক্তি পাওয়া একজন শহীদ সোহরাওয়ার্দি উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারি প্রধান শিক্ষক এফ এম মাকসুদুর রহমান। তিনি বলেন</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">৪১ জনকে দঁড়ি দিয়ে বেঁধে জবাই করার জন্য সিরিয়াল করা হয়। তিনি ছিলেন ওই সিরিয়ালের ৬ নম্বরে। তার সামনে পর পর পাঁচ জনকে জবাই করা হয়। তিনি ছিলেন শক্তিশালী কুস্তিগীর। তাই মৃত্যু নিশ্চিত জেনে তিনি কসাইকে জাপটে ধরে নদীতে ঝাঁপ দেয়। ধস্তাধস্তি করে ছাড়া পেয়ে নদী দিয়ে ভেসে চলে যান নাগালের বাইরে। কিন্তু সেদিন বাকি কেউ বাঁচতে পারেনি। মুক্তিযুদ্ধকালীন প্রায় পুরোটা সময় জুড়ে চলে এখানে গণহত্যা। প্রতিদিন ভাটিতে লাশের সংখ্যা দেখে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায় এখানে কয়েক হাজার লোককে জবাই বা বিভিন্ন কায়দায় হত্যা করা হয়।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">দৈনিক বাংলা পত্রিকায় ১৯৭২ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি নিজস্ব প্রতিবেদক লিখেছেন-</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">রাতের বেলা জজ কোর্টের পেছনে ফরেস্ট ঘাটে বাঙালিদের এনে জবাই করা হতো এবং দেহগুলো পেট চিরে নদীতে ফেলে দেয়া হতো। এই ঘাটটি আবার জজ সাহেবের বাসার ঠিক পেছনেই। রাতের নিস্তব্ধতা ভেদ করে সেই সব মৃত্যুপথযাত্রী বাঙালিদের করুণ আর্তনাদ জজ সাহেবের কানে পৌঁছাতো। ঘুম হতো না তাঁর। ঐ সময় গড়ে অন্তত ২০ জনকে প্রতিরাতে এখানে জবাই করা হতো বলে ধারণা। নদীতে যেভাবে মৃতদেহ ভাসতো</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">তাতে তাই প্রমাণ করে। তবে পেট চিরে দেয়ার কারণে অনেকলাশ আবার নদীতে তলিয়ে যেতো। দিনে হেলিপোর্ট আর রাতে ফরেস্ট ঘাটের এইসব হত্যাকা- সহ্য করতে না পেরে জজ সাহেব তৎকালীন ভারপ্রাপ্ত সামরিক অফিসারকে অনুরোধ করেছিলেন যে</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">বিচালয়ের সামনে বা পাশে যেন এ ধরণের কাজ না করা হয়। তার উত্তরে তিনি পেয়েছিলেন মৃত্যুর শাসানি। এই নৃশংসতা সহ্য করতে না পেরে কিছুদিন পরে ৩০ মে তিনি হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান। এ ঘটনার একদিন পরে একইভাবে মারা যায় তার কর্মচারী সৈয়দ কায়ছার আলী এবং তার কয়েকদিন পরে মারা যায় তার পিয়ন আব্দুর রউফ।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"><span style="font-size: 18.6667px;">Forestghat, situated on the banks of Bhairav river, was used as an extermination camp in 1971. As the place had an ease access to the river, Pakistani military and their collaborator made it their camp. They slaughtered 20 people (on average) per day in Forestghat camp and threw out the bodies in the river.</span></span></p>
  • post-image
    ফরেস্টঘাট বধ্যভূমি, খুলনা সদর, কোতয়ালী থানা/ Forest Ghat Mass killing site, Khulna Sadar
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ভৈরব নদীর তীরে ফরেস্টঘাট ছিলো ১৯৭১ সালে একটি বধ্যভূমি। বধ্যভূমিটি ছিলো জজ সাহেবের বাসার ঠিক পেছনে। খুলনা সার্কিট হাউজের হেলিপোর্ট থেকে দিনের বেলার নির্যাতিত বাঙালি<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>এবং রাতের ঐ এলাকা দিয়ে চলমান নিরীহ মানুষদের হত্যা করে রাতের আঁধারে এখানে এনে লাশ নদীতে ফেলে দেয়া হতো। অনেক সময় এই ঘাটে জবাই করার সময় তাদের গগনবিদারী আর্তচিৎকার জজ সাহেব তার বাসা থেকে শুনতে পেতেন। নিরীহ মানুষের এই করুণ আর্তনাদ তৎকালীন জজ নেছারুল হক সহ্য করতে না পেরে তৎকালীন সামরিক অফিসারকে এ ধরনের কাজ এখানে না করার জন্য অনুরোধ করলে তাকে সামরিক অফিসারের শাসানি খেতে হয়। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>১৯৭১ এর ৩০ শে মে এই জজ সাহেব হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান। এখানে ফেলে দেওয়া লাশগুলো ভৈরব নদীতে ভেসে উঠত। যার সাক্ষী এলাকার লোকজন। ফরেস্ট ঘাটে নির্যাতনের এক জন প্রত্যক্ষ সাক্ষী শহিদ সোহরাওয়ার্দী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এফ এম মাকসুদুর রহমান</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">যিনি নিজেই জল্লাদের হাত থেকে বেঁচে গিয়েছিলেন গায়ের শক্তির জোরে। যেদিন<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>তিনি বেঁচে যান সেদিন তার সংগে আরো যে ৪০ জন ছিলো তাদের সবাইকে জবাই করে ভৈরব নদীতে ফেলে দেয়। একাত্তরের নয় মাসে এখানে ৫০০ অধিক বাঙালি কে হত্যা করা হয়। হতভাগ্যদের মধ্যে খুলনার আইনবিদ ও রাজনীতিবিদ আব্দুল জব্বার</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">লাকী মেডিসিনের মালিক আবুল কাশেমের ভাই নজরুল ইসলাম উল্লেখযোগ্য। এখানে একটি স্মৃতি ফলক আছে।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">Forestghat, situated on the banks of Bhairav river, was used as an extermination camp and mass killing site in </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">1971. </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">As the place had an ease access to the river, Pakistani military and their collaborator made it their camp. They slaughtered more than </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">500 </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">people in Forestghat camp and threw out the bodies in the river.</span></p>
  • post-image
    ফরেস্টঘাট গণহত্যা/Forestghat genocide
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ভৈরব নদীর তীরে ফরেস্টঘাটটি ছিলো ১৯৭১ সালে<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>ঘাতকদের আর এক জল্লাদখানা। খুলনা জেলা জজের বাংলো সংলগ্ন এ ঘাটটি তখন বাগান পরিবেষ্ঠিত ছিলো। রাতের বেলা সাধারণ মানুষ এ পথ ধরে চলাচল করতো না। কেবল দিনের বেলা নদী পারাপার ও ঘাটের কাজে কিছু লোক এ ঘাট ব্যবহার করতো।&nbsp;</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">তবে মুক্তিযুদ্ধের সময়ে পাকিস্তানি বাহিনী ও রাজাকারদের ভয়ে এ ঘাটের ব্যবহার বন্ধ হয়ে যায়। এটি তখন ঘাতকদের দখলে চলে যায়। এখানে ঘাট থাকায় নদীর কিনারা পর্যন্ত সহজে যাওয়া যেত বিধায় ঘাতকরা এ জায়গাকে জল্লাদ খানা হিসেবে বেছে নেয়। এখানে গড়ে প্রতিদিন ২০ জনকে (বিশজন) জবাই করে পেট চিরে লাশ নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হতো বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Siyam Rupali'; color: black; background: white;">Forestghat, situated on the banks of Bhairav river, was used as an extermination camp in 1971. As the place had an ease access to the river, Pakistani military and their collaborator made it their camp. They slaughtered 20 people (on average) per day in Forestghat camp and threw out the bodies in the river. </span></p>