মোড়েলগঞ্জ সিও অফিস রাজাকার ক্যাম্প, বাগেরহাট

মোড়েলগঞ্জ সিও অফিস রাজাকার ক্যাম্প

মুক্তিযুদ্ধকালীন কালা রায়ের বিল্ডিং, সুকুমার রায়ের বিল্ডিং, জিতেন হালদারের বিল্ডিং -এই তিনটি ভবনে রাজাকার ক্যাম্প এবং নির্যাতন কেন্দ্র ছিল। যুদ্ধকালীন রাজাকারের প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা ইউসুফ আলীর ঘনিষ্ট সহচর খাউলিয়া গ্রামের মাওলানা মোসলেম উদ্দিন ও বারইখালী গ্রামের আরব আলী এই ক্যাম্প তিনটি সহ বড়াইখালি ইউনিয়ন পরিষদ রাজাকার ক্যাম্পটিরও নেতৃত্বে ছিলেন। এই সকল রাজাকার ক্যাম্পে নারীদের ধরে এনে নির্যাতন এবং ধর্ষণ করা হতো। পুরুষদের ধরে এনে নির্যাতন করে হত্যা করা হতো।  

During the Liberation War, Kala Roy's building, Sukumar Roy's building, Jiten Haldar's building - these three buildings were the Razakar camps and torture centers. Maulana Moslem Uddin of Khaulia village and Arab Ali of Barikhali village, a close associate of Maulana Yusuf Ali, the founder of the Razakar, also led the Baraikhali Union Parishad Razakar camp. In all these razakar camps, women were caught, tortured and raped. Men were captured, tortured and killed.

 

নিকটবর্তী আরও স্থান
  • post-image
    মোড়েলগঞ্জ সিও অফিস রাজাকার ক্যাম্প, বাগেরহাট
    <p>মোড়েলগঞ্জ সিও অফিস রাজাকার ক্যাম্প</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">মুক্তিযুদ্ধকালীন কালা রায়ের বিল্ডিং</span><span style="font-family: SutonnyOMJ;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">সুকুমার রায়ের বিল্ডিং</span><span style="font-family: SutonnyOMJ;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">জিতেন হালদারের বিল্ডিং -এই তিনটি ভবনে রাজাকার ক্যাম্প এবং নির্যাতন কেন্দ্র ছিল। যুদ্ধকালীন রাজাকারের প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা ইউসুফ আলীর ঘনিষ্ট সহচর খাউলিয়া গ্রামের মাওলানা মোসলেম উদ্দিন ও বারইখালী গ্রামের আরব আলী এই ক্যাম্প তিনটি সহ বড়াইখালি ইউনিয়ন পরিষদ রাজাকার ক্যাম্পটিরও নেতৃত্বে ছিলেন। এই সকল রাজাকার ক্যাম্পে নারীদের ধরে এনে নির্যাতন এবং ধর্ষণ করা হতো। পুরুষদের ধরে এনে নির্যাতন করে হত্যা করা হতো।<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;&nbsp;</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD"><span style="mso-spacerun: yes;"><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">During the Liberation War, Kala Roy's building, Sukumar Roy's building, Jiten Haldar's building - these three buildings were the Razakar camps and torture centers. Maulana Moslem Uddin of Khaulia village and Arab Ali of Barikhali village, a close associate of Maulana Yusuf Ali, the founder of the Razakar, also led the Baraikhali Union Parishad Razakar camp. In all these razakar camps, women were caught, tortured and raped. Men were captured, tortured and killed.</span></span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p>
  • post-image
    বগী গণহত্যা, বাগেরহাট
    <p>বগী গণহত্যা</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">২১ অক্টোবর বৃহষ্পতিবার বগী বন্দরের নিকটে একটি গণহত্যার ঘটনা ঘটে। পাশ্ববর্তী পিরোজপুর জেলা থেকে একটি গানবোট বাগেরহাটের শরণখোলা উপজেলার গাবতলা স্লুইসগেটের কাছে নেমে ব্রাশফায়ার করতে করতে বগী গ্রামের দিকে অগ্রসর হচ্ছিল। এসময়ে মাঠের মধ্যে বীজতলার কাজ করছিলেন বগী গ্রামের হিঙ্গুল তালুকদার</span><span style="font-family: SutonnyOMJ;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">আখতার তালুকদার</span><span style="font-family: SutonnyOMJ;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">সোহরাব হোসেন</span><span style="font-family: SutonnyOMJ;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">দেলোয়ার হোসেন এবং গাবতলা গ্রামের মন্তাজ মোল্লা। পাকবাহিনীর সরাসরি গুলিতে এরা সবাই ঘটনাস্থলে শহিদ হয়েছিলেন।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD"><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">A genocide took place near Bogi port on Thursday, October 21. A gunboat from the Pirojpur district was heading towards Bogi village near Gabtala Sluicegate in Sharankhola upazila of Bagerhat. At that time Hingul Talukder, Akhtar Talukder, Sohrab Hossain, Delwar Hossain and Montaz Mollah of Gabtala village were working on the field. All of them were martyred on the spot by the direct fire of the Pak army.</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p>
  • post-image
    বগী বধ্যভূমি, বাগেরহাট
    <p>বগী বধ্যভূমি</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">২১ অক্টোবর পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী বলেশ্বর নদীতে আসা গানবোট থেকে ঐ এলাকায় উঠে গ্রামে লুটপাট অগ্নি সংযোগ</span><span style="font-family: SutonnyOMJ;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">নারী ধর্ষণের নারকীয় ঘটনা ঘটায়। জমিতে কর্মরত কয়েকজন কৃষক এবং আরও বেশ কয়েকজন নিরীহ মানুষকে হত্যা করে পকিস্তানী বাহিনী। জায়গাটি বধ্যভূমি হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে।<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD"><span style="mso-spacerun: yes;"><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;">On 21st October, the Pakistani aggressors boarded a gunboat on the Baleshwar river and looted the village, setting it on fire and raped women. The Pakistani forces killed several farmers and several other innocent people who were working on the field. The place has been identified as a mass killing site.</span></span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p>
  • post-image
    বগী গণকবর, বাগেরহাট
    <p>বগী গণকবর</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">২১ অক্টোবর পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী বলেশ্বর নদীতে আসা গানবোট থেকে ঐ এলাকায় উঠে গ্রামে লুটপাট অগ্নি সংযোগ</span><span style="font-family: SutonnyOMJ;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">নারী ধর্ষণের নারকীয় ঘটনা ঘটায়। জমিতে কর্মরত কয়েকজন কৃষক এবং আরও বেশ কয়েকজন নিরীহ মানুষকে হত্যা করে পকিস্তানী বাহিনী। জায়গাটি বধ্যভূমি হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে।<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span></span></p>
  • post-image
    মোড়েলগঞ্জ বাজার বধ্যভূমি, বাগেরহাট
    <p>মোড়েলগঞ্জ বাজার বধ্যভূমি&nbsp;</p> <p><span style="font-size: 13.0pt; line-height: 115%; font-family: SutonnyMJ; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: SutonnyMJ; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">18 &dagger;g ivRvKvi evwnbx ev&Dagger;MinvU wd&Dagger;i hvevi ci &dagger;gv&Dagger;ijM&Auml; &dagger;ek wKQzw`b ivRvKvigy&sup3; wQj| wK&scaron;&lsquo; 2 Ryb Zviv Av&Dagger;iv kw&sup3; m&Acirc;q K&Dagger;i cybivq &dagger;gv&Dagger;ojM&Auml; Av&Dagger;m| ivRvKvi evwnbx Gw`b &dagger;gv&Dagger;ojM&Auml; &dagger;b&Dagger;gB K&Dagger;qKRb wn&rsaquo;`y e&uml;emvqx&Dagger;K nZ&uml;v K&Dagger;i Ges Zv&Dagger;`i &dagger;`vKvbcv&Dagger;U Av&cedil;b jvwM&Dagger;q &dagger;`q| GKB mg&Dagger;q Zviv &dagger;gv&Dagger;ojM&Auml; evRv&Dagger;i Aew&macr;&rsquo;Z m g Kexi Avng` gayi evmfeb cywo&Dagger;q &dagger;`q| &dagger;m&Dagger;i&macr;&Iacute;v`vi evwoi wfZ&Dagger;i K&Dagger;qKwU N&Dagger;i Zvjv jvwM&Dagger;q AwM&oelig;ms&Dagger;hvM K&Dagger;i| Gi d&Dagger;j N&Dagger;ii g&Dagger;a&uml;B cy&Dagger;o gviv hvb kirP&rsaquo;`&ordf; mvnv bv&Dagger;gi GK e&uml;emvqx| f~uBgvjx evwoi iv&Dagger;ak&uml;vg fu~Bgvjx&Dagger;K Uviwgbv&Dagger;j `uvo Kwi&Dagger;q &cedil;wj K&Dagger;i gviv nq|</span></p> <p><span style="font-size: 13.0pt; line-height: 115%; font-family: SutonnyMJ; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: SutonnyMJ; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;"><span style="font-family: 'Times New Roman', serif; font-size: 12pt;">Morelganj was free of Razakars for some time after the Razakars returned to Bagerhat on 18 May. But they came back to Morelgan with more power on June 2. The Razakar forces killed some Hindu traders in Morelganj and set their shops on fire. At the same time, they set fire to the residence of S M Kabir Ahmed Madhu in Morelganj Bazar. They also locked several houses inside and set them on fire in Serestadar. As a result, a businessman named Sarat Chandra Saha was burnt to death inside the house. Radheshyam Bhuimali of Bhuimali house was shot dead while standing in the terminal.</span>&nbsp;</span></p>
  • post-image
    মোড়েলগঞ্জ বাজার গণহত্যা, বাগেরহাট
    <p>মোড়েলগঞ্জ বাজার গণহত্যা</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">১৮ মে রাজাকার বাহিনী বাগেরহাট ফিরে যাবার পর মোরেলগঞ্জ বেশ কিছুদিন রাজাকারমুক্ত ছিল। কিন্তু ২ জুন তারা আরো শক্তি সঞ্চয় করে পুনরায় মোড়েলগঞ্জ আসে। রাজাকার বাহিনী এদিন মোড়েলগঞ্জ নেমেই কয়েকজন হিন্দু ব্যবসায়ীকে হত্যা করে এবং তাদের দোকানপাটে আগুন লাগিয়ে দেয়। একই সময়ে তারা মোড়েলগঞ্জ বাজারে অবস্থিত স ম কবীর আহমদ মধুর বাসভবন পুড়িয়ে দেয়। সেরেস্তাদার বাড়ির ভিতরে কয়েকটি ঘরে তালা লাগিয়ে অগ্নিসংযোগ করে। এর ফলে ঘরের মধ্যেই পুড়ে মারা যান শরৎচন্দ্র সাহা নামের এক ব্যবসায়ী। ভূঁইমালী বাড়ির রাধেশ্যাম ভূঁইমালীকে টারমিনালে দাঁড় করিয়ে গুলি করে মারা হয়।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD"><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">Morelganj was free of Razakars for some time after the Razakars returned to Bagerhat on 18 May. But they came back to Morelgan with more power on June 2. The Razakar forces killed some Hindu traders in Morelganj and set their shops on fire. At the same time, they set fire to the residence of S M Kabir Ahmed Madhu in Morelganj Bazar. They also locked several houses inside and set them on fire in Serestadar. As a result, a businessman named Sarat Chandra Saha was burnt to death inside the house. Radheshyam Bhuimali of Bhuimali house was shot dead while standing in the terminal.</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p>
  • post-image
    মোড়েলগঞ্জ লঞ্চঘাট গণহত্যা, বাগেরহাট
    <p>মোড়েলগঞ্জ লঞ্চঘাট গণহত্যা</p>
  • post-image
    মোড়েলগঞ্জ লঞ্চঘাট বধ্যভূমি, বাগেরহাট
    <p>মোড়েলগঞ্জ লঞ্চঘাট বধ্যভূমি&nbsp;</p>
  • post-image
    দৈবজ্যহাটি রাজাকার ক্যাম্প, বাগেরহাট
    <p>দৈবজ্যহাটি রাজাকার ক্যাম্প</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">একটি হিন্দুবাড়ি দখল করে এ রাজাকার ক্যাম্পটি খোলা হয়েছিল। এটি নির্যাতন কেন্দ্র হিসেবে ব্যবহৃত হত। একাত্তররে মানবতা</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">বিরোধী</span><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD">অপরাধ মামলার অন্যতম আসামী খান আকরাম হোসেন দৈব্যজ্ঞহাটি গ্রামের বিশ্বাস বাড়ির দোতলা ভবন দখল করে রাজাকার ক্যাম্প প্রতিষ্ঠা করেন। ওই ক্যাম্পের কমান্ডার ছিলেন তিনি। এখনো বিশ্বাসদের ওই বাড়িটি আকরাম হোসেনের দখলে রয়েছে।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; mso-ansi-font-size: 11.0pt; line-height: 107%; font-family: SutonnyOMJ;" lang="BN-BD"><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">A Razakar camp was set on a Hindu inhabitant house. It was used as a torture center. In 1971, Khan Akram Hossain, one of the accused in the case of crimes against humanity, established a Razakar camp by captureing the Biswas Bari in Daivajnahati village. He was the commander of that camp. The Biswas house is still in the possession of Akram Hossain.</span></span></p>
  • post-image
    শাখারীকাঠি গণহত্যা, বাগেরহাট
    <p>শাখারীকাঠি গণহত্যা</p> <p><span style="font-size: 13.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">মোরেলগঞ্জ উপজেলার উত্তর প্রান্তের দৈবজ্ঞহাটি বাজারের কাছে বিশ্বাস বাড়িতে বসানো হয় রাজাকার ক্যাম্প। মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে সেখানে রাজাকারদের কয়েকদফা যুদ্ধ হয়। ৪ নভেম্বর ১৭ কার্তিক ১৩৭৮ বৃহস্পতিবার সারারাত উভয়পক্ষের মধ্যে গুলিবিনিময় চলে। স্থানীয় রাজাকারদের আহ্বানে পর দিন দুপুরের মধ্যেই কচুয়া উপজেলার রাজাকাররা সেখানে আসে। ৫ নভেম্বর শুক্রুবার কচুয়া উপজেলার শাখারীকাঠি গ্রামের হাট ছিল। সূর্য ডোবার বেশ আগেই শতাধিক অস্ত্রধারী রাজাকার বাজারটিকে ঘিরে ফেলে। বাজার থেকে ৮২ জনকে বেঁধে বিষখালী খালপাড়ে নেয় তারা। প্রত্যক্ষদর্শী আবদুল খালেক লিখেছেন</span><span style="font-size: 13.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">, </span><span style="font-size: 13.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">হুইসেল দিয়ে প্রচণ্ড গুলি করা শুরু করে তারা। ৮২ জনকে বাঁধা হলেও কয়েকজন বেঁচে যান। পরদিন বিষখালী খালের পূবে রামচন্দ্রপুর গ্রামের এক প্রান্তে লাশগুলো গণকবর দেওয়া হয়।</span></p> <p>&nbsp;</p>