মুরালিকাটি পাল পাড়া গণকবর/ Murali Kathi Pal Para Mass Graves

২৮ এপ্রিল কলারোয়া থানায় প্রথম পাকসেনাদের হত্যার শিকার হন মাহমুদপুর গ্রামের আফছারউদ্দীন। অকারণে তাঁকে গোবিন্দকাটি মাঠের ভিতর নিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয়। এরপর একই দিনে থানার মুরারীকাটি গ্রামের পাল পাড়ায় খানসেনা ও রাজাকাররা এক নির্মম গণহত্যা চালায়। এ হত্যাকাণ্ডে নিরপরাধ কুম্ভকার বৈদ্যনাথ পাল, রঞ্জন পাল, বিমল চন্দ্র পাল, নিতাই চন্দ্র পাল, গোপাল চন্দ্র পাল, সতীশ পাল, রামচন্দ্র পাল, অনিল চন্দ্র পাল, রামপদ পাল নিহত হন এবং ত্রৈলক্য পালসহ আরও বহুলোক মারাত্মকভাবে আহত হয়েছিলেন।

 

*** 

 

Afsaruddin of Mahmudpur village was the first person to be killed by the Pakistani Army on 28th April at Kalaroa Thana. He was shot in the field of Gobindakati. Then, on the same day, the Pakistani Army and Razakars perpetrated genocide at Pal Para. In the killing, Kumvakar Vaidyanath Pal, Ranjan Pal, Bimal Chandra Pal, Nitai Chandra Pal, Gopal Chandra Pal, Satish Pal, Ram Chandra Pal, Anil Chandra Pal, Rampod Pal were killed and many others were seriously injured.

নিকটবর্তী আরও স্থান
  • post-image
    মুরালিকাটি পাল পাড়া গণকবর/ Murali Kathi Pal Para Mass Graves
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">২৮ এপ্রিল কলারোয়া থানায় প্রথম পাকসেনাদের হত্যার শিকার হন মাহমুদপুর গ্রামের আফছারউদ্দীন। অকারণে তাঁকে গোবিন্দকাটি মাঠের ভিতর নিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয়। এরপর একই দিনে থানার মুরারীকাটি গ্রামের পাল পাড়ায় খানসেনা ও রাজাকাররা এক নির্মম গণহত্যা চালায়। এ হত্যাকাণ্ডে নিরপরাধ কুম্ভকার বৈদ্যনাথ পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">রঞ্জন পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">বিমল চন্দ্র পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">নিতাই চন্দ্র পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">গোপাল চন্দ্র পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সতীশ পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">রামচন্দ্র পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">অনিল চন্দ্র পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">রামপদ পাল নিহত হন এবং ত্রৈলক্য পালসহ আরও বহুলোক মারাত্মকভাবে আহত হয়েছিলেন।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">Afsaruddin of Mahmudpur village was the first person to be killed by the Pakistani Army on </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">28</span><sup><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">th</span></sup><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;"> April at Kalaroa Thana. He was shot in the field of Gobindakati. Then, on the same day, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;">t</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">he Pakistani Army and Razakars perpetrated genocide at Pal Para. In the killing, Kumvakar Vaidyanath Pal, Ranjan Pal, Bimal Chandra Pal, Nitai Chandra Pal, Gopal Chandra Pal, Satish Pal, Ram Chandra Pal, Anil Chandra Pal, Rampod Pal were killed and many others were seriously injured.</span></p>
  • post-image
    মুরারীকাটির পালপাড়ার গণহত্যা/ Murarikatir Palpara Genocide
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">২৮ এপ্রিল কলারোয়া থানায় প্রথম পাকসেনাদের হত্যার শিকার হন মাহমুদপুর গ্রামের আফছারউদ্দীন। অকারণে তাঁকে গোবিন্দকাটি মাঠের ভিতর নিয়ে গুলি করে হত্যা করা হয়। এরপর একই দিনে থানার মুরারীকাটি গ্রামের পাল পাড়ায় খানসেনা ও রাজাকাররা এক নির্মম গণহত্যা চালায়। এ হত্যাকান্ডে নিরাপরাধ কুম্ভকার বৈদ্যনাথ পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">রঞ্জন পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">বিমল চন্দ্র পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">নিতাই চন্দ্র পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">গোপাল চন্দ্র পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সতীশ পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">রামচন্দ্র পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">অনিল চন্দ্র পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">রামপদ পাল নিহত হন এবং ত্রৈলক্য পালসহ আরও বহুলোক মারাত্মকভাবে আহত হয়েছিলেন।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">Afsaruddin of Mahmudpur village was the first person to be killed by the Pakistani Army on 28th April at Kolaroa Thana. He was shot in the field of Govindakati. Then, on the same day, The Pakistani Army and Razakars perpetrated brutal genocide at Pal Para. In the killing, Kumvakar Vaidyanath Pal, Ranjan Pal, Bimal Chandra Pal, Nitai Chandra Pal, Gopal Chandra Pal, Satish Pal, Ram Chandra Pal, Anil Chandra Pal, Rampod Pal were killed and many others were seriously injured.</span></p>
  • post-image
    কলারোয়া ফুটবল মাঠের রাস্তা সংলগ্ন গণহত্যা/ Kolaroa Football Field Genocide
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">কলারোয়া ফুটবল মাঠের রাস্তা সংলগ্ন দক্ষিণ পার্শ্বে : জুলাই মাসে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের লক্ষ্যে খুলনা এলাকা থেকে আগত ৬ জন ছাত্র কলারোয়া থানার হামিদপুর গ্রামে রাজাকার ডা: মোকছেদ আলীর কাছে ধরা পড়ে। পরবর্তীতে তাঁদেরকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সনাক্ত করে থানায় হস্তান্তর করা হয়। এদের মধ্যে ৩ জন ছাত্র অলৌকিকভাবে পালিয়ে ভারতে যেতে সক্ষম হয়। অপর ৩ জনকে নৃশংসভাবে হত্যা কওে ঘাতকরা। এরপর তাঁদেরকে উক্ত থানার<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>পার্শ্বে গর্ত খুঁড়ে অর্ধমৃত অবস্থায় মাটি চাপা দেয়। কলারোয়ার গণকবর চিহ্নিত না করে গণহত্যায় শহীদদের স্মরণে নির্মিত হয়েছে কলারোয়া উপজেলায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার ও মুক্তিযুদ্ধের বিজয় স্তম্ভ ফলক।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">The south side of the road beside Kolaroa football field: In July, six students from Khulna got arrested by Razakar Dr Mokched Ali in Hamidpur village of Kolaroa, who were coming to participate in the liberation war. Later, they were identified as freedom fighters and handed over to the police station. 3 of them were miraculously able to flee to India. Other 3 were brutally killed. They had been grounded besides the police station. Instead of recognizing the Kolaroa mass grave, a Central Shaheed Minar at Kolaroa Upazilla and a Victory Monument have been built to the memory of the martyrs. </span></p>
  • post-image
    কলারোয়া ফুটবল মাঠের দক্ষিণপাশে শহীদের কবর/ Mass Graves in northern side of Kalaroa Football Field
    <p>&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">জুলাই মাসে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের লক্ষ্যে খুলনা থেকে আগত ৬ জন ছাত্র রাজাকার বাহিনির হাতে ধরা পড়ে। তাদের তিনজনকে হত্যা করে রাজাকারেরা। কলারোয়া ফুটবল মাঠের দক্ষিনপাশে এই শহীদদের কবর দেওয়া হয়।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">On July, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;">6</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;"> students from Khulna were arrested by the Razakar troop who (students) were coming to join in the liberation war. The Razakars killed </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">3</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;"> of them. The martyrs were buried on the south of the Kalaroa football field.</span></p> <p>&nbsp;</p> <p>&nbsp;</p>
  • post-image
    ঝাউডাঙা বাজারের গণহত্যা/ Jhaudanga Bazar (Market) Genocide
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">২০ এপ্রিল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পাকবাহিনী বিশাল কনভয়ের আকারে সাতক্ষীরায় পৌঁছায়। ঐ দিন পাকবাহিনী যশোর-সাতক্ষীরা প্রধান সড়কের ঝাউডাঙ্গা বাজারে পৌঁছালে পার্শ্ববর্তী পাথরঘাটা গ্রামের কুখ্যাত নরপশু মতিয়ার রহমান (বুকড়া মতি) চলমান পাক-বাহিনীর একটি জীপ থামায়। ঐ সময় যশোর ছিয়ানব্বই গ্রাম থেকে আগত এক বিশাল শরণার্থী কাফেলা ঝাউডাঙ্গা বাজার অতিক্রম করছিল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">তখন উক্ত মতিয়ার রহমানের ইন্দনে উক্ত জীপের পাকসেনারা ঐ বিশাল শরণার্থী কাফেলার উপর নির্বিচারে গুলি বর্ষণ করে। অতঃপর পাকসেনারা ঝাউডাঙ্গা বাজারের কয়েকটি হিন্দুর দোকান লুটের নির্দেশ দিয়ে সাতক্ষীরা শহর অভিমুখে চলে যায়। পাকসেনাদের অতর্কিত গুলিতে শত শত নর-নারী ও শিশু নিহত ও আহত হয়</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">যা ছিল অতি হৃদয়বিদারক।</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঝাউডাঙ্গা হাই স্কুলের উত্তর-পশ্চিম কোনে এই স্থানে গণহত্যা সংঘটিত হয়েছিল। বর্তমানে গণহত্যার স্থানটিতে কয়েকটি বিল্ডিং নির্মাণ করা হয়েছে। এখানে কোন স্মৃতি ফলক নির্মাণ করা হয়নি।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;">***</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">On 20<sup>th</sup> April, Pakistani Military Force reached Satkhira with a huge convoy. The troop was crossing Jessore-Satkhira Main road. Vicious Motiyar Rahman (Bukra Moti) stopped the car and with the help of him Pakistani military fired to kill a huge number of refugees from Jessore; Pakistani army had fired on the huge refugee indiscriminately and burnt down many houses and shops. Hundreds of men, women and child got killed on that brutal genocide.</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">The genocide took place on the north-west side of Jhaudanga High School at Satkhira Sadar Upazilla. </span></p>
  • post-image
    ঝাউডাঙ্গার হাই স্কুলের মাঠের গণকবর
    ঝাউডাঙ্গার হাই স্কুলের মাঠের গণকবর
  • post-image
    ৭ নং চন্দনপুর ইউনিয়নের গয়ড়া গ্রামে কবর/ Mass Graves in Goyra of 7 No. Chandanpur Union
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">৭ নং চন্দনপুর ইউনিয়নের গয়ড়া গ্রামে রয়েছে শহীদদের গণকবর।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">There is a mass grave of martyrs in the village of Goyra in </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">7</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;"> no Chandanpur Union.</span></p>
  • post-image
    বাগআঁচড়ার গণহত্যা/ Baganchra Genocide
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">মে মাসের শেষ ভাগে ছিয়ানব্বই গ্রাম থেকে আগত কয়েক হাজার শরর্ণাথী কলারোয়া থানার কসিমত ইলশিপুর গ্রামরে উপর দিয়ে ভারত যাচ্ছিল। ঐ সময় র্পাশ্বর্বতী বাগআঁচড়া বাজার থেকে রাজাকার আব্দুর রশিদ এর নেতৃত্বে পাকসেনা ও রাজাকারদের একটি দল এসে ঐ বিশাল শরর্ণাথীদরে ঘেরাও করে ফেলে। অতঃপর ঐ শরর্ণাথীদরে সমস্ত মালামাল লুটসহ তাদের উপর নির্বিচারে গুলি র্বষণ করলে শিশুসহ অনেকেইে নিহত এবং র্অধশত আহত হয়। ভীত-সস্ত্রস্ত শরর্ণাথীরা ইলশিপুর</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">র্পূবকোটা</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পশ্চমিকোটা</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ভীখালীসহ বিস্তীর্ণ এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। সেই দিনের ঐ বভিৎস দৃশ্য আজও ঐসব এলাকার প্রত্যক্ষর্দশীরা ভুলতে পারেনি।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">***&nbsp;&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">At the end of May, thousands of refugees, who came from Chianabboi village, were moving towards India crossing over Kasimat Ilshipur village of Kolaroa Thana. At that time a group of Pakistani armies and Razakars led by Razakar Abdur Rashid came and surrounded the refugees. Then, the Pakistani Army looted and fired indiscriminately upon them, whereas many people, including children, were killed and injured. </span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">&nbsp;</span></p>
  • post-image
    সাতক্ষীরা শহরের আটপুকুর বধ্যভূমি/ Atpukur Mass killing cite in Satkhira
    <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ডায়মন্ড হোটেল ও পি.এন. স্কুলে যাদের নির্যাতন করা হত তাদের মারার পর বর্তমান সার্কিট হাউজের পিছনে আটপুকুরের ধারে নিয়ে ফেলে রাখা হত।</span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">Many people have been tortured and killed at the Diamond Hotel and P N School. Their bodies had been thrown at the side of Atpukur (Pond), besides present Circuit House.</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 22.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">&nbsp;</span></p>
  • post-image
    পারকুমিরা উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্রের পার্শ্বে গণকবর/ Mass Grave Beside Perkumira Sub-Health Center:
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify; line-height: 150%;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 150%; font-family: Kalpurush; color: #222222; background: white; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালে পারকুমিরা ছিল প্রায় হিন্দু অধ্যুষিত এলাকা। বর্তমানে স্থানটি ব্যক্তি মালিকানাধীন। মেহগনি ও তাল গাছ লাগানো তার মধ্যবর্তী স্থানে লম্বা ছোট খাল ছিল তার ভিতরে লাশগুলো দীর্ঘদিন পড়ে ছিল। পরে স্থানীয় লোকজন এসে লাশগুলো মাটির নীচে চাপা দেয়। বর্তমানে জমিটা অনাথ বিশ্বাসের দখলে।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify; line-height: 150%;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 150%; font-family: Kalpurush; color: #222222; background: white; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify; line-height: 150%;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 150%; font-family: Kalpurush; color: #222222; background: white;">In 1971, Perkumira was nearly a Hindu inhabitant area. Presently, the place is owned by a person. There was a long canal between the Mahogany and the palm trees and dead bodies were left here for many days. Later, locals buried the bodies under the ground. At present, the land is in the possession of the Anath Biswas.</span></p>