মচন্দপুর গণহত্যা, নড়াইল/Machandapur Genocide

কালিয়া উপজেলার হামিদপুর ইউনিয়নে মচন্দপুর গ্রামের অবস্থা ন। ১৯৭১ সালে এপ্রিল মাসের শেষের দিকে সকাল দশটার সময় খুলনা থেকে দুইটি গানবোট ও একটি লঞ্চ গাজীর হাট লঞ্চ টার্মিনালে ভিড়ায়। এরপর স্থানীয় রাজাকারদের সহযোগিতায় খান সেনারা বিভিন্ন গ্রামে প্রবেশ করে। গাজীরহাট বাজারের পাশে মচন্দপুর গ্রাম। খান সেনাদের একটি দল গুলি করতে করতে মচন্দপুর গ্রামে প্রবেশ করে। খান সেনাদের গুলির শব্দে গ্রামের মানুষ জীবন বাঁচাতে বিভিন্ন স্থানে পালাতে থাকে। পাকিস্তানি হায়নার দল যাকে দেখতে পেয়েছে তাকে গুলি করে হত্যা করেছে। তাদের কাছে হিন্দু মুসলমান কোন বিভেদ ছিলনা। গৌর সাহা হারুন মোল্যার পুকুরের ভিতর কচুরি পানা মাথায় দিয়ে জীবন বাঁচাতে চেয়েছিল। কিন্তু খান সেনারা তাকে দেখা মাত্র গুলি করে হত্যা করে। মালেক শেখ, মুকাম শেখ, ইমন শেখ, কিরণ বিশ্বাস, বুধয় বিশ্বাস, নিশিকান্ত রায়, সতিশ মন্ডল সহ আর অনেকে প্রাণ রক্ষার জন্য বাড়ির পাশে পাট ক্ষেতে পালাতে যাচ্ছিল! খান সেনারা তাদের দেখা মাত্র পিছন থেকে বৃষ্টির মত গুলি করতে থাকে এবং গান পাউডার  ছিটিয়ে সমস্ত বাড়ি ঘর আগুন জ্বালিয়ে দেয়। দেখতে দেখতে মচন্দপুর গ্রামটি মহাশশ্মানে রূপ নিলো। এত কিছুর পরেও অত্যাচার এখানে শেষ হয়নি। রাজাকারদের সহযোগিতায় পাকিস্তানি হায়নার দল গুরুপদ কর্মকারের মেয়ে মমতা কর্মকার ও কালিপদ বিশ্বাসের মেয়ে শিবু বিশ্বাস কে নির্যাতনের পর বাড়ির পাশে পুকুর পাড়ে সম্মান হানি করে!

*** 

Machandapur village is situated in Hamidpur union of Kalia Upazila. Around 10 am 2 gunboats and a launch reached Ghazi’s Hat Launch Terminal. Then, with the help of local Razakars, the Pakistani Army entered into different villages.  The villagers fled to different places to save their lives. The Pakistani Army shot and killed anyone they could see. There was no discrimination between them and Hindu Muslims. They had burnt down the whole village and has turned into a crematorium. Not only these, the brutal Pakistani Army with the assist of Razakars had tortured and assaulted girls of the villages.

নিকটবর্তী আরও স্থান
  • post-image
    মচন্দপুর গণহত্যা, নড়াইল/Machandapur Genocide
    <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">কালিয়া উপজেলার হামিদপুর ইউনিয়নে মচন্দপুর গ্রামের অবস্থা ন। ১৯৭১ সালে এপ্রিল মাসের শেষের দিকে সকাল দশটার সময় খুলনা থেকে দুইটি গানবোট ও একটি লঞ্চ গাজীর হাট লঞ্চ টার্মিনালে ভিড়ায়। এরপর স্থানীয় রাজাকারদের সহযোগিতায় খান সেনারা বিভিন্ন গ্রামে প্রবেশ করে। গাজীরহাট বাজারের পাশে মচন্দপুর গ্রাম। খান সেনাদের একটি দল গুলি করতে করতে মচন্দপুর গ্রামে প্রবেশ করে। খান সেনাদের গুলির শব্দে গ্রামের মানুষ জীবন বাঁচাতে বিভিন্ন স্থানে পালাতে থাকে। পাকিস্তানি হায়নার দল যাকে দেখতে পেয়েছে তাকে গুলি করে হত্যা করেছে। তাদের কাছে হিন্দু মুসলমান কোন বিভেদ ছিলনা। গৌর সাহা হারুন মোল্যার পুকুরের ভিতর কচুরি পানা মাথায় দিয়ে জীবন বাঁচাতে চেয়েছিল। কিন্তু খান সেনারা তাকে দেখা মাত্র গুলি করে হত্যা করে। মালেক শেখ</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">মুকাম শেখ</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ইমন শেখ</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">কিরণ বিশ্বাস</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">বুধয় বিশ্বাস</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">নিশিকান্ত রায়</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সতিশ মন্ডল সহ আর অনেকে প্রাণ রক্ষার জন্য বাড়ির পাশে পাট ক্ষেতে পালাতে যাচ্ছিল! খান সেনারা তাদের দেখা মাত্র পিছন থেকে বৃষ্টির মত গুলি করতে থাকে এবং গান পাউডার<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>ছিটিয়ে সমস্ত বাড়ি ঘর আগুন জ্বালিয়ে দেয়। দেখতে দেখতে মচন্দপুর গ্রামটি মহাশশ্মানে রূপ নিলো। এত কিছুর পরেও অত্যাচার এখানে শেষ হয়নি। রাজাকারদের সহযোগিতায় পাকিস্তানি হায়নার দল গুরুপদ কর্মকারের মেয়ে মমতা কর্মকার ও কালিপদ বিশ্বাসের মেয়ে শিবু বিশ্বাস কে নির্যাতনের পর বাড়ির পাশে পুকুর পাড়ে সম্মান হানি করে!</span></p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">Machandapur village is situated in Hamidpur union of Kalia Upazila. Around 10 am 2 gunboats and a launch reached Ghazi&rsquo;s Hat Launch Terminal. Then, with the help of local Razakars, the Pakistani Army entered into different villages.<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>The village</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;">r</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">s fled to different places to save their lives. The Pakistani Army shot and killed anyone they could see. There was no discrimination between them and Hindu Muslims. They had burnt down the whole village and has turned into a crematorium. Not only these, the brutal Pakistani Army with the assist of Razakars had tortured and assaulted girls of the villages.</span></p>
  • post-image
    গাজীরহাট লঞ্চ টার্মিনাল গণহত্যা, নড়াইল/ Gazirhat Launch Terminal Genocide
    <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">একাত্তরের মে মাসের প্রথম সপ্তাহ। স্থানীয় রাজাকার বাহিনীর সহযোগিতায় বিঞ্চুপুর</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পার বিঞ্চুপুর</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">মচন্দপুর</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সিলিমপুর</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">গাজীরহাট</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">মাধবপাশা ইত্যাদি গ্রাম ছাড়াও খান সেনারা অজ্ঞাতনামা অনেক মানুষকে ধরে নিয়ে গাজীরহাট লঞ্চ টার্মিনালের উপর গুলি করে লাশ নদীতে ভাসিয়ে দেয়।<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>শহিদের নাম পরিচয় ও সংখ্যা জানা যায়নি।</span></p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14pt; font-family: Kalpurush;">The first week of May in 1971. The Pakistani Military Force with the help of local Razakar forces, abducted people from Binchupur, Par Binchupur, Machandapur, Sillimpur, Gazirhat and Madhabpasha villages and shot them at Gazirhat launch terminal</span><span style="font-size: 14pt; font-family: Kalpurush;" lang="BN">,</span><span style="font-size: 14pt; font-family: Kalpurush;"> then floated the bodies in the river. The identity and number of the martyrs were not known.</span></p>
  • post-image
    গাজীরহাট লঞ্চ টার্মিনাল বধ্যভূমি, নড়াইল/ Gazirhat Launch Terminal Mass Killing site
    <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">একাত্তরের মে মাসের প্রথম সপ্তাহ। স্থানীয় রাজাকার বাহিনীর সহযোগিতায় বিঞ্চুপুর</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পার বিঞ্চুপুর</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">মচন্দপুর</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সিলিমপুর</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">গাজীরহাট</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">মাধবপাশা ইত্যাদি গ্রাম ছাড়াও খান সেনারা অজ্ঞাতনামা অনেক মানুষকে ধরে নিয়ে গাজীরহাট লঞ্চ টার্মিনালের উপর গুলি করে লাশ নদীতে ভাসিয়ে দেয়।<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>শহিদের নাম পরিচয় ও সংখ্যা জানা যায়নি।</span></p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">***&nbsp;&nbsp;</span></p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">It was the first week of May. Pakistani Army with the assistance of local Razakars abducted lot of people from different villages, and then exterminated them at Launch Ghat Terminal. The numbers and names of the martyrs remain unknown.</span></p>
  • post-image
    হাদল ও কালিকাপুর বধ্যভূমি, পাবনা
    <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Vrinda','sans-serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">হাদল ও কালিকাপুর বধ্যভূমি</span><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: SutonnyMJ; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">, </span><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Vrinda','sans-serif'; mso-ascii-font-family: SutonnyMJ; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: SutonnyMJ; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পাবনা</span></p> <p>&nbsp;</p>
  • post-image
    হাদল ও কালিকাপুর গণকবর, পাবনা
    <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Vrinda','sans-serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">হাদল ও কালিকাপুর গণকবর</span><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: SutonnyMJ; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">, </span><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Vrinda','sans-serif'; mso-ascii-font-family: SutonnyMJ; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: SutonnyMJ; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পাবনা</span></p> <p>&nbsp;</p>
  • post-image
    দিঘলিয়ারাবাদ গ্রাম গণহত্যা
    <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: .0001pt; text-align: justify; line-height: normal;"><span style="font-size: 12.0pt; font-family: SutonnyMJ; mso-bidi-font-family: SutonnyMJ; mso-bidi-font-weight: bold;">AfqbMi Dc&Dagger;Rjvi 8bs wmw&times;cvkv BDwbq&Dagger;bi w`Nwjqvivev`, Rqvivev`, &dagger;cowj, wmw&times;cvkv, bvOwj c&Ouml;f&hellip;wZ M&Ouml;v&Dagger;g cvwK&macr;&Iacute;vwb &dagger;b&Scaron;evwnbxi m`m&uml;iv c&Ouml;&Dagger;ek K&Dagger;i Gwc&Ouml;j gv&Dagger;mi gvSvgvwS mg&Dagger;q| Lyjbv &dagger;_&Dagger;K &dagger;b&Scaron;evwnbxi m`m&uml;iv Mvb&Dagger;evU wb&Dagger;q &circ;fie b`x w`&Dagger;q P&Dagger;j Av&Dagger;m GBme M&Ouml;v&Dagger;g| &dagger;b&Scaron;evwnbxi m`m&uml;&Dagger;`i mv&Dagger;_ hy&sup3; nq &macr;&rsquo;vbxq ivRvKvi, gymwjg jx&Dagger;Mi &dagger;bZvKg&copy;x I wenvwiiv| Zv&Dagger;`i &cedil;wj&Dagger;Z Hw`b w`Nwjqvivev` M&Ouml;v&Dagger;g c&Ouml;vq `kRb gvbyl c&Ouml;vY nvivq| gyw&sup3;&Dagger;hv&times;v wbmvi Dw&Iuml;b Lvb Hw`b w`Nwjqvivev` M&Ouml;v&Dagger;gi MYnZ&uml;vq kwn` nb|</span></p>
  • post-image
    চাঁদপুর একক গণহত্যা, নড়াইল/ Chandpur Genocide
    <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">কালিয়া পৌরসভা মধ্যে চাঁদপুর গ্রামের অবস্থান। একাত্তরে ১১ই জুলাই কুমড়ী গ্রামের রাজাকার বাদশার নেতৃত্বে তিন জন খান সেনা ও পাঁচ থেকে ছয় জন রাজাকার মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল ওহাব বিশ্বাসকে নিজ বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে যায়। তখন ছিল বর্ষার সময়। বাড়ির চারপাশে হাঁটু পানি হয়ে গেছে। তারপর আব্দুল ওহাব বিশ্বাসকে পানি দিয়ে টেনে বাড়ির পাশে রাস্তার উপর খান সেনারা গুলি করে হত্যা করে এবং মৃত্যু নিশ্চিত করার জন্য বন্দুকের বেয়োনেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে পানিতে ফেলে দিয়ে চলে যায়।</span></p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">Chandpur is situated on Kalia Municipality. On 11<sup>th</sup></span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">July, with the lead of Razakar Badsha, 3 Pakistani Army and 5/6 Razakars had abducted freedom fighter Abdul Wahab Biswas from his home. It was a rainy season then. They had killed Abdul Wahab Biswas beside his house and left him in the water.</span></p>
  • post-image
    কালিয়া পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্যাতন কেন্দ্র, নড়াইল/ Kalia Pilot Secondary School Torture Centre
    <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">কালিয়া উপজেলার কালিয়া পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয় ছিল ১৯৭১ সালে একটি নির্যাতন কেন্দ্র। ২০ এপ্রিলের পর খান সেনাদের সহযোগিতায় রাজাকার আব্দুল হামিদ শেখ</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">শেখ খলিলুর রহমান</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">গাজী আব্দুল লতিফ</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">বাদশা প্রমুখ মিলে এই নির্যাতন কেন্দ্রটি স্থাপন করে। ২৮ মে রাজাকার শেখ খলিলের নেতৃত্বে নরেন</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">কুমুদ</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সুরেন ও বিমল রায়কে নির্যাতন করে বিকালে খান সেনাদের গানবোটে তুলে দেয়। এছাড়াও<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>স্থানীয় নিরীহ মুক্তিকামী ও শরণার্থী মানুষদেরকে ধরে নিয়ে পাশবিক নির্যাতন করত কালিয়া পাইলট মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে।</span></p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">***</span></p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">Kalia Pilot Secondary School was a torture center in 1971. After 27<sup>th</sup> April, the torture center was set up by Razakar Abdul Hameed Sheikh, Sheikh Khalilur Rahman, Ghazi Abdul Latif and Badsha with the help of the Pakistani Army. Many local people and refugees were brutally tortured in this place.</span></p>
  • post-image
    কালিয়া খেয়াঘাটে একক গণহত্যা, নড়াইল/ Kalia Kheyaghat genocide
    <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"><span style="font-size: 14pt;" lang="BN">দক্ষিণ-পশ্চিম বাংলার স্বাধীন এবং মুক্ত অঞ্চলের প্রাণকেন্দ্র কলাবাড়িয়া।&nbsp; পিস্ কমিটির নেতা কালিয়ার রাজাকার প্রধান শেখ খলিলুর রহমান প্রথম আঘাত&nbsp; করে কলাবাড়িয়াকে। ১৫ মে &rsquo;৭১ শনিবার। ক্রিসেন্ট জুট মিলের (খুলনা) কর্মচারী কলাবাড়িয়ার দশআনী পাড়ার হাসমত আলী খোকন আর দশ জনের সাথে পড়ন্ত বেলায় কালিয়া লঞ্চ ঘাটে নামে। রাজাকার বাহিনীর শহিদ</span><span style="font-size: 14pt;">, </span><span style="font-size: 14pt;" lang="BN">বাদশা</span><span style="font-size: 14pt;">, </span><span style="font-size: 14pt;" lang="BN">ইসমাইল</span><span style="font-size: 14pt;">, </span><span style="font-size: 14pt;" lang="BN">আবু তালেব চৌধুরী</span><span style="font-size: 14pt;">, </span><span style="font-size: 14pt;" lang="BN">হাশেম</span><span style="font-size: 14pt;">, </span><span style="font-size: 14pt;" lang="BN">গোলাম হোসেন প্রমুখরা যাত্রীদের আটক করে। সত্য-মিথ্যা বলে সব যাত্রী&nbsp; মুক্তি পেল। কিন্তু&nbsp; সাহসী খোকন তার বাড়ি &lsquo;&lsquo;কলাবাড়িয়া&rsquo;&rsquo; বলতে মিথ্যার আশ্রয় নিলো না। রাজাকার গোলাম (কালিনগর) খোকনকে মুক্তিযুদ্ধ কমান্ডার আবুল কালাম আজাদের চাচা বলে সনাক্ত করে। তখন মাগরিবের আজান ধ্বনিত হচ্ছিল। খোকন ছিল নামাজি। সে নামাজ পড়তে চাইলে রাজাকার বাহিনী নবগঙ্গা নদীতে অজু করতে নিয়ে যায়। অজুর মাঝপথে শেখ খলিলের ইশারায় খোকনের পিঠে রাজাকাররা গুলি চালায়। পশ্চিমের লাল আকাশের সাথে নবগঙ্গার সাদা পানি লালে লাল হয়ে যায়। দু&rsquo;জন রাজাকার পা দিয়ে লাথি মেরে খোকনের লাশ পানিতে ফেলে দেয়।</span></span></p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">***</span><span style="font-family: Kalpurush; font-size: 14pt;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">Kolabariya </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;">was a</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;"> free zone of southwestern Bengal. Khalilur Rahman, the head of Peace Committee struck Kolabariya first. on 5th May Crescent Jute Mill (Khulna) employee Hasmat Ali Khokon of Dashani Para in Kalabariya and ten others </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;">arrived </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">on Kaliya Launch Ghat. Then the Razakars captured them and started to verify their identity. Among them, Khokhon, a valiant refuse to lie and become prey of their cruelty. The Pakistani army killed and throw his body on the river.</span></p>
  • post-image
    বারাকপুর গণকবর/ Barakpur Mass graves
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: black; background: white; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">রাজাকার কমান্ডার শরীফ আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে রাজাকাররা এপ্রিলের শেষদিকে বারাকপুরে যে গণহত্যা চালিয়েছিলো</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: black; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">,</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Cambria',serif; mso-bidi-font-family: Cambria; color: black; background: white;">&nbsp;</span></span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: black; background: white; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;">সেই গণহত্যায় যারা শহীদ হন তাদের লাশগুলোকে বারাকপুর বাজারের মসজিদের পাশে গণকবর দেওয়া হয়। এ স্থানটি এখনও অচিহ্নিত</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: black; background: white; mso-bidi-language: HI;" lang="HI">।<span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Cambria',serif; mso-bidi-font-family: Cambria; color: black; background: white;">&nbsp;</span></span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Cambria',serif; mso-bidi-font-family: Cambria; color: black; background: white;">&nbsp;***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Cambria',serif; mso-bidi-font-family: Cambria; color: black; background: white;">There was a genocide perpetrated by the Razakars in the month of April, 1971 at Barakpur. The death bodies were buried in a mass grave beside a mosque of Barakpur Bazar. The place is still unmarked. </span></p>