ফৈলজানা গণহত্যা, পাবনা

চাটমোহর উপজেলার দক্ষিণ পূর্ব সীমান্তবর্তী ইউনিয়ন হলো ফৈলজানা। এখানে ১৯৭১ সালের ৯ জুন পাকিস্তানি সেনাবাহীনি এখানে হামলা করে। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ফৈলজানা গ্রামে আসে মুলত লুটপাট করার জন্য।  সেখানে তারা তাহেজ উদ্দিন মৌলানা ও এজেম উদ্দিনকে গুলি করে হত্যা করে।  এ দুজনকে হত্যা ও গ্রাম পুড়ানোর পর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ফেরার পথে দুবলা পাড়া, টিবের পাড়া, কুদি পাড়া এলাকায় হামলা করে এবং বাড়ি ঘর জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দিয়ে যায়।  দুবলা পাড়া মাঠের মধ্যে কৃষকদের উপর হামলা করলে সবায় পালিয়ে যায় মাত্র একজন বৃদ্ধ ও একজন শিশুকে পাকিস্তান বাহিনী ধরতে পারে।  পরে সেই বৃদ্ধ ব্যক্তিকে সেখানেই গুলি করে হত্যা করে।

ঐদিনই তারা ইদিল পুড়ে এসে নদী পার হওয়ার সময় ঘাটের পাটনিকে গুলি করে হত্যা করে এবং শিবপুর গ্রামে একজন পাগলকে মুক্তি বাহিনীর চর সন্দেহ করে গুলি করে হত্যা করে।

নিকটবর্তী আরও স্থান
  • post-image
    ফৈলজানা গণহত্যা, পাবনা
    <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">চাটমোহর উপজেলার দক্ষিণ পূর্ব সীমান্তবর্তী ইউনিয়ন হলো ফৈলজানা। এখানে ১৯৭১ সালের ৯ জুন পাকিস্তানি সেনাবাহীনি এখানে হামলা করে। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ফৈলজানা গ্রামে আসে মুলত লুটপাট করার জন্য। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>সেখানে তারা তাহেজ উদ্দিন মৌলানা ও এজেম উদ্দিনকে গুলি করে হত্যা করে। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>এ দুজনকে হত্যা ও গ্রাম পুড়ানোর পর পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ফেরার পথে দুবলা পাড়া</span>, <span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">টিবের পাড়া</span>, <span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">কুদি পাড়া এলাকায় হামলা করে এবং বাড়ি ঘর জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দিয়ে যায়। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>দুবলা পাড়া মাঠের মধ্যে কৃষকদের উপর হামলা করলে সবায় পালিয়ে যায় মাত্র একজন বৃদ্ধ ও একজন শিশুকে পাকিস্তান বাহিনী ধরতে পারে। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>পরে সেই বৃদ্ধ ব্যক্তিকে সেখানেই গুলি করে হত্যা করে। </span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ঐদিনই তারা ইদিল পুড়ে এসে নদী পার হওয়ার সময় ঘাটের পাটনিকে গুলি করে হত্যা করে এবং শিবপুর গ্রামে একজন পাগলকে মুক্তি বাহিনীর চর সন্দেহ করে গুলি করে হত্যা করে। </span></p>
  • post-image
    গরুরি গণহত্যা, পাবনা
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><strong><span style="font-family: SutonnyMJ;"><span style="font-size: 18.6667px;">&nbsp;</span></span></strong></p> <h1 class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: SutonnyMJ;"><span style="font-size: 18.6667px;">বৈশাখ মাসে পাকিস্তানি বাহিনী গরুরি গ্রামে আসে। তাদের মূল লক্ষ্য ছিলো গ্রামে লুটপাট করা। তারা গরুরি গ্রামে এসে গ্রামের যত হিন্দু বাড়ি ছিলো সেগুলোতে আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়। এসময় গ্রামের পূর্ব পাশের অনেক মুসলমান বাড়িও এ আগুনে পুড়ে যায়। এদিন পাকিস্তানি বাহিনী গরুরি গ্রামের ৮ জন ব্যক্তিকে হত্যা করে। এরা হলো নিমাশাই, নেত্র, নিলী, সুজিত, বোম কশাই এর মা, সুরেশ সরকার। দুই জনের নাম জানা যায়নি।</span></span></h1>
  • post-image
    কুচিয়ামোড়া গণকবর, পাবনা
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Vrinda','sans-serif'; mso-ascii-font-family: SutonnyMJ; mso-hansi-font-family: SutonnyMJ; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">কুচিয়ামোড়া গণকবর</span><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: SutonnyMJ;">, </span><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Vrinda','sans-serif'; mso-ascii-font-family: SutonnyMJ; mso-hansi-font-family: SutonnyMJ; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পাবনা</span></p> <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Nirmala UI','sans-serif'; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৪ অক্টোবর ১৯৭১ কুচিয়ামোড়ার জন্য এক দুঃখের দিন। এদিন বাংলার তিন অকুতোভয় মুক্তিযোদ্ধাকে স্থানীয় রাজাকার ধরে এনে পাবনা-ঢাকা মহাসড়কের পাশে কুচিমোড়া মোড়ে বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন করে হত্যা করা। এসময় তাদের নির্যাতনের একপর্যায়ে পাকিস্তানি দোসর রাজাকার বাহিনী পাকিস্তান জিন্দাবাদ বলতে বলে কিন্তু তারা জয় বাংলা বলায় তিনজনের চোখ তুলে নেওয়া হয়। তারপরও যখন তারা পাকিস্তান জিন্দাবাদ বলে না</span><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Nirmala UI','sans-serif'; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">, </span><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Nirmala UI','sans-serif'; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">তখন তারা তাদের তিনজকে গুলি করে হত্যা করে। এই মোড়েই তিনজনের গণকবর রয়েছে। এই তিনজন হলেন- মুক্তিযোদ্ধা মতিয়ার রহমান মতি</span><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Nirmala UI','sans-serif'; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">, </span><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Nirmala UI','sans-serif'; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">আব্দুল মান্নান ও পল্টু মোহন চৌধুরী।</span></p> <p class="MsoNoSpacing" style="text-align: justify;">October 14, 1971, is a miserable day for Kuchiamora. On this day, three fearless freedom fighters of Bengal were captured by the local Razakars and tortured to death in various ways at the Kuchimora junction on the Pabna-Dhaka highway. At one stage of their torture, the Pakistani accomplices asked the Razakars to say &lsquo;Pakistan Zindabad&rsquo; but when they said &lsquo;Joy Bangla&rsquo;, the Razakar pilled their eyes out. Yet when they did not say &lsquo;Pakistan Zindabad&rsquo;, they were killed. They were mass graved at this junction. These three are freedom fighters Matiar Rahman Moti, Abdul Mannan and Poltu Mohan Chowdhury.</p>
  • post-image
    হাদল-কালিকাপুর গণহত্যা, পাবনা
    <h1 class="MsoNormal" style="text-align: left;"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালের ২৪ মে সোমবার ( ৯ জ্যৈষ্ঠ ১৩৭৮) ফরিদপুর থানার হাদল ইউনিয়নের হাদল ও কালিকাপুর গ্রামে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী নিরস্ত্র মানুষের ওপর চালায় বর্বর আক্রমন। হাদল মাদ্রাসার সাবেক প্রিন্সিপাল মৃত নওয়াব আলী হাজীর ছেলে এবং ফরিদপুর থানা শান্তি কমিটির নেতা মাওলানা হাছেন আলী আলবদর ও ঘাতক দালাল রাজাকার গং হানাদার বাহিনীর সঙ্গে মিলে চালায় এই অমানবিক আক্রমণ।</span></h1> <h1 class="MsoNormal" style="text-align: left;"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পাকিস্তানি হানাদারদের ৩০০ সদস্য বড়াল ব্রিজ স্টেশন থেকে হাদল-কালিকাপুর গ্রামে আসে। তারা প্রথমে তাদের সহযোগীদের নিয়ে রাতে সারা গ্রামটাকে ঘিরে ফেলে এবং ভোরবেলা হত্যাযজ্ঞ শুরু করে। তাদের এই হত্যা</span>, <span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">লুট</span>, <span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ধর্ষণ বেলা ১১টা পর্যন্ত চলতে থাকে। এতেই তারা ক্ষান্ত হয়না। সমগ্র গ্রাম আগুনে জালিয়ে পুড়িয়ে দেয়। হাদল ও কালিকাপুরের ৭০ জন এবং অন্যান্য এলাকা থেকে এসে আশ্রয় নেয়া ৭৫ জনসহ প্রায় ৩০০ নিরীহ মানুষ নিহত হয়। এদের মধ্যে ১৩১ জনের নাম জানা যায়।<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span></span></h1>
  • post-image
    মাছদিয়া-মাজপাড়া গণকবর, পাবনা
    <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Nirmala UI','sans-serif'; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">মাছদিয়া-মাজপাড়া গণকবর</span><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: SutonnyMJ; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">, </span><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Vrinda','sans-serif'; mso-ascii-font-family: SutonnyMJ; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: SutonnyMJ; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পাবনা</span></p> <h1><span style="font-size: 12.0pt; font-family: 'Nirmala UI','sans-serif'; mso-font-kerning: 0pt; mso-bidi-language: BN; font-weight: normal;">২২ এপ্রিল ১৯৭১ সালে ভোর বেলা পাকিস্তানি বাহিনী এ গ্রামে আক্রমণ করে। এসময় তারা এ গ্রামে আগুন লাগিয়ে দেয়। এদিন মাছদিয়া-মাজপাড়া গ্রামে প্রচণ্ড গুলাগুলি হয়। এতে শত শত মানুষ মারা যায় এবং বহু মানুষ আহত হয়। মানুষ মারার পাশাপাশি চলে তাদের পাশবিক নির্যাতন ও নারী ধর্ষণ। এ দিন বিহারিরা পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় মাছদিয়া-মাছপাড়া গ্রামে প্রায় পাঁচশত জনকে হত্যা করে।&nbsp;</span></h1> <p><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Vrinda','sans-serif'; mso-ascii-font-family: SutonnyMJ; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: SutonnyMJ; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif'; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">At the dawn on 22 April 1971, the Pakistani forces attacked the village. At that time, they set the village on fire. There was heavy ammunition in Masdaiya-Majpara village. &nbsp;Hundreds died and many were injured in this. In addition to killing people, there was brutality and violence against women. On this day, about 500 people were killed in Masdaiya-Machpara with the help of the Biharis.&nbsp; &nbsp;</span></span></p>
  • post-image
    মাছদিয়া-মাজপাড়া গণহত্যা, পাবনা
    <h1>&nbsp;</h1> <h1>২২ এপ্রিল ১৯৭১ সালে ভোর বেলা পাকিস্তানি বাহিনী এ গ্রামে আক্রমণ করে। এসময় তারা এ গ্রামে আগুন লাগিয়ে দেয়। এদিন মাছদিয়া-মাজপাড়া গ্রামে প্রচণ্ড গুলাগুলি হয়। এতে শত শত মানুষ মারা যায় এবং বহু মানুষ আহত হয়। মানুষ মারার পাশাপাশি চলে তাদের পাশবিক নির্যাতন ও নারী ধর্ষণ। এ দিন বিহারিরা পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় মাছদিয়া-মাছপাড়া গ্রামে প্রায় পাঁচশত জনকে হত্যা করে।&nbsp;</h1>
  • post-image
    মাঝদিয়া-মাঝপাড়া নির্যাতন কেন্দ্র, পাবনা
    <p><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Nirmala UI','sans-serif'; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;">২২ এপ্রিল ১৯৭১ সালে ভোর বেলা পাকিস্তানি বাহিনী এ গ্রামে আক্রমণ করে। এসময় তারা এ গ্রামে আগুন লাগিয়ে দেয়। এদিন মাছদিয়া-মাজপাড়া গ্রামে প্রচণ্ড গুলাগুলি হয়। এতে শত শত মানুষ মারা যায় এবং বহু মানুষ আহত হয়। মানুষ মারার পাশাপাশি চলে তাদের পাশবিক নির্যাতন ও নারী ধর্ষণ। এ দিন বিহারিরা পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর সহযোগিতায় মাছদিয়া-মাছপাড়া গ্রামে প্রায় পাঁচশত জনকে হত্যা করে।&nbsp;</span></p> <p><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman','serif'; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">At the dawn on 22 April 1971, the Pakistani forces attacked the village. At that time, they set the village on fire. There was heavy ammunition in Masdaiya-Majpara village. &nbsp;Hundreds died and many were injured in this. In addition to killing people, there was brutality and violence against women. On this day, about 500 people were killed in Masdaiya-Machpara with the help of the Biharis.</span></p>
  • post-image
    টেবুনিয়া গণহত্যা, পাবনা
    <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে পাবনা শহরের নূরপুর ডাকবাংলো থেকে রাজাকার ও পিস কমিটির চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুস সুবহানের খবরের ভিত্তিতে ১৯৭১ সালের ২৩ মে<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>আকবর হোসেন আকু</span>, <span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">হাসান খাঁ</span>, <span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">দুলাল</span>, <span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">হায়দার আলী</span>, <span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পুলিশ সিপাহি আল্লা রাখা</span>, <span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">মন্টু মিয়া ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের জনৈক শিক্ষকসহ ২০ জনকে পাকিস্তানি হানাদারবাহিনী কালো কাপড়ে চোখ ও মুখ বেঁধে নিয়ে যাওয়া হয় টেবুনিয়া ডাল ও তৈল বীজ খামারের শেষ প্রান্তের রাস্তার পাশের একটি জঙ্গলের মধ্যে। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>পাকবাহিনী নিষ্ঠুর ও নির্মমভাবে ওই ২০ জনকে গুলি করে ও বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করে। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>ভাগ্যক্রমে বেঁচে যায় পাবনা শহরের আরিফপুর মহল্লার পানের দোকানদার বাদশা মিয়া। সেখানে বর্তমানে শহীদদের গণকবরের স্মৃতি চিহ্ন নেই। </span></p>
  • post-image
    টেবুনিয়া নির্যাতন কেন্দ্র, পাবনা
    <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Vrinda','sans-serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">টেবুনিয়া নির্যাতন কেন্দ্র</span><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: SutonnyMJ; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">, </span><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Vrinda','sans-serif'; mso-ascii-font-family: SutonnyMJ; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: SutonnyMJ; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পাবনা</span></p>
  • post-image
    টেবুনিয়া বধ্যভূমি, পাবনা/ Tebunia Mass Killing Site
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;" lang="BN-BD">দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম কৃষি খামার হচ্ছে পাবনার টেবুনিয়া কৃষি খামার</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Mangal',serif; mso-ascii-font-family: Kalpurush; mso-hansi-font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: HI;" lang="HI">।</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;"><span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span><span lang="BN-BD">স্বাধীনতা যুদ্ধ চলাকালে পাবনা শহরের নূরপুর ডাকবাংলো থেকে রাজাকার ও পিস কমিটির চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুস সুবহানের খবরের ভিত্তিতে আকবর হোসেন আকু</span>, <span lang="BN-BD">হাসান খাঁ</span>, <span lang="BN-BD">দুলাল</span>, <span lang="BN-BD">হায়দার আলী</span>, <span lang="BN-BD">পুলিশ সিপাহি আল্লা রাখা</span>, <span lang="BN-BD">মন্টু মিয়া ও রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের জনৈক শিক্ষকসহ ২০ জনকে পাকিস্তানি হানাদারবাহিনী কালো কাপড়ে চোখ ও মুখ বেঁধে নিয়ে যাওয়া হয় টেবুনিয়া ডাল ও তৈল বীজ খামারের শেষ প্রান্তের রাস্তার পাশের একটি জঙ্গলের মধ্যে</span></span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Mangal',serif; mso-ascii-font-family: Kalpurush; mso-hansi-font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: HI;" lang="HI">।</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;"><span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span><span lang="BN-BD">পাকবাহিনী নিষ্ঠুর ও নির্মমভাবে ওই ২০ জনকে গুলি করে ও বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করে</span></span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Mangal',serif; mso-ascii-font-family: Kalpurush; mso-hansi-font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: HI;" lang="HI">।&nbsp;</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;"><span lang="BN-BD">ভাগ্যক্রমে বেঁচে যান পাবনা শহরের আরিফপুর মহল্লার পানের দোকানদার বাদশা মিয়া</span></span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Mangal',serif; mso-ascii-font-family: Kalpurush; mso-hansi-font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: HI;" lang="HI">।</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;"><span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">***</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">Tebunia, Pabna is the second-largest agricultural farm in the country. During the wartime, Akbar Hossain Aku, Hassan Kha, Dulal, Haider Ali, police constable Alla Rakha, Mantu Mia and a teacher of Rajshahi University were abducted from Nurpur Dakbanglow in Pabna. Maulana Abdus Subhan, Razakar and chairman of Peace Committee informed the Pakistani army about them. Their eyes and mouth were tied up and taken to a nearby forest. Later the Pakistani army inhumanly and brutally killed these 20 men with bayonets. Fortunately, Badsha Mia from Arifpur survived that day.</span></p>