নসু খানের ইটভাটা শহীদ স্মৃতি ফলক/ Nosu Khan Brick field martyr memorial

খানজাহান আলী থানার অন্তর্গত মিরেরডাঙ্গা আর আর এফ কোয়ার্টারের পশ্চিমপাশে যশোর-খুলনা সড়কের পাশে  মুক্তিযুদ্ধের সময় নসু খানের ইটভাটা ছিল। একাত্তরে এখানে মর্মান্তিক হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়। সবচেয়ে বেদনাবহুল ঘটনাটি ঘটে ২৯ মে ১৯৭১। দিঘলিয়ার দেয়াড়া গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকেরা টাকার বিনিময়ে মুকাররম মেট নামক একজন ব্যক্তির সহযোগিতায় ভারতে পালিয়ে যাওয়ার চুক্তি করে। রওনাও হয়। কিন্তু মুকাররম মেট বিশ্বাসঘাতকতা করে দৌলতপুরে বসবাসরত অবাঙালি ইলিয়াস খানের ছেলে ইসমাইল খানের মাধ্যমে পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে তাদের তুলে দেয়। কয়েকজন পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও ১৪ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করে । তারা হলেন ১] অধির কুমার দাশ ২] অরবিন্দু কুমার দাস। ৩] দিলীপ কুমার দাস ৪] শেখর কুমার দাস ৫] ঠাকুর পদ দাস ৬] দয়াল কুমার নন্দী ৭] মনোরঞ্জন দাস ৮]কালীপদ দাস  ৯] কনেক চন্দ্র দাস ১০] মংগল চন্দ্র দাস ১১] রাজিন্দ্র দাস ১২] হরিপদ দাস  ১৩] সঞ্জয় কুমার দাস ১৪] রাধানাথ দাস  । এ ছাড়া নারী সদস্যদের  ইটের ভাটায় এবং ফরিদপুর জুট বেলিং অ্যান্ড শিপিং কোং লিঃ এর একটি নির্মিতব্য গুদামঘরে আটকে রেখে দিনের পর দিন নির্যাতন করে।

 

১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর-এর উদ্যোগে ২০১৭ সালে এখানে একটি স্মৃতিফলক স্থাপন করা হয়।

 

***

One of the most painful incidents took place on May 28, 1971. Hindus of the village Deara of Dighalia Upazila made a contract with a person named Mukarram Mate. The contract was like that, Mukarram will help them to cross the boarder in exchange of money. But, Mukarram betrayed them. He handed them over to the Pakistani military and Bihari. Some of them managed to escape, but 14 of them were killed brutally in this brickfield. The martyrs are -  1] Underworld Daughter 2] Arvindu Kumar Das 3] Dilip Kumar Das 4] Shekhar Kumar Das 5] Thakur Pad Das 6] Daula Kumar Nandi 7] Manoranjan Das 8] Kalipada Das 9] Kanek Chandra Das 10] Mangal Chandra Das 11] Rajindra Das 12] Haripada Das 13] Sanjay Kumar Das 14] Radhanath Das. Women were tortured also.

 

A memorial has been built in this place on 2017 by ‘1971: genocide-torture Archive and Museum’.

 

নিকটবর্তী আরও স্থান
  • post-image
    নসু খানের ইটভাটা শহীদ স্মৃতি ফলক/ Nosu Khan Brick field martyr memorial
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">খানজাহান আলী থানার অন্তর্গত মিরেরডাঙ্গা আর আর এফ কোয়ার্টারের পশ্চিমপাশে যশোর-খুলনা সড়কের পাশে<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>মুক্তিযুদ্ধের সময় নসু খানের ইটভাটা ছিল। একাত্তরে এখানে মর্মান্তিক হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়। সবচেয়ে বেদনাবহুল ঘটনাটি ঘটে ২৯ মে ১৯৭১। দিঘলিয়ার দেয়াড়া গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকেরা টাকার বিনিময়ে মুকাররম মেট নামক একজন ব্যক্তির সহযোগিতায় ভারতে পালিয়ে যাওয়ার চুক্তি করে। রওনাও হয়। কিন্তু মুকাররম মেট বিশ্বাসঘাতকতা করে দৌলতপুরে বসবাসরত অবাঙালি ইলিয়াস খানের ছেলে ইসমাইল খানের মাধ্যমে পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে তাদের তুলে দেয়। কয়েকজন পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও ১৪ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করে । তারা হলেন ১] অধির কুমার দাশ ২] অরবিন্দু কুমার দাস। ৩] দিলীপ কুমার দাস ৪] শেখর কুমার দাস ৫] ঠাকুর পদ দাস ৬] দয়াল কুমার নন্দী ৭] মনোরঞ্জন দাস ৮]কালীপদ দাস<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>৯] কনেক চন্দ্র দাস ১০] মংগল চন্দ্র দাস ১১] রাজিন্দ্র দাস ১২] হরিপদ দাস<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>১৩] সঞ্জয় কুমার দাস ১৪] রাধানাথ দাস<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>। এ ছাড়া নারী সদস্যদের<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>ইটের ভাটায় এবং ফরিদপুর জুট বেলিং অ্যান্ড শিপিং কোং লিঃ এর একটি নির্মিতব্য গুদামঘরে আটকে রেখে দিনের পর দিন নির্যাতন করে। </span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর-এর উদ্যোগে ২০১৭ সালে এখানে একটি স্মৃতিফলক স্থাপন করা হয়।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***</span></p> <p class="MsoNormal" style="line-height: normal; text-align: justify;"><span style="font-size: 14pt; font-family: 'Siyam Rupali';">One of the most painful incidents took place on May 28, 1971. Hindus of the village Deara of Dighalia Upazila made a contract with a person named Mukarram Mate. The contract was like that, Mukarram will help them to cross the boarder in exchange of money. But, Mukarram betrayed them. He handed them over to the Pakistani military and Bihari. Some of them managed to escape, but 14 of them were killed brutally in this brickfield. The martyrs are - &nbsp;1] Underworld Daughter 2] Arvindu Kumar Das 3] Dilip Kumar Das 4] Shekhar Kumar Das 5] Thakur Pad Das 6] Daula Kumar Nandi 7] Manoranjan Das 8] Kalipada Das 9] Kanek Chandra Das 10] Mangal Chandra Das 11] Rajindra Das 12] Haripada Das 13] Sanjay Kumar Das 14] Radhanath Das. Women were tortured also. </span></p> <p class="MsoNormal" style="line-height: normal; text-align: justify;"><span style="font-size: 14pt; font-family: 'Siyam Rupali';">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"> <span style="font-size: 14pt; line-height: 107%;">A memorial has been built in this place on 2017 by &lsquo;1971: genocide-torture Archive and Museum&rsquo;.</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';"><span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span></span></p>
  • post-image
    নসু খানের ইটভাটা গণহত্যা, খানজাহান আলী থানা/Nosu Khan Brick field genocide, Khan Jahan Ali thana
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">খানজাহান আলী থানার অন্তর্গত মিরেরডাঙ্গা আর আর এফ কোয়ার্টারের পশ্চিমপাশে যশোর-খুলনা সড়কের পাশে মুক্তিযুদ্ধের সময় নসু খানের ইটভাটা ছিল। একাত্তরে এখানে মর্মান্তিক হত্যাকান্ড সংঘটিত হয়। সবচেয়ে বেদনাবহুল ঘটনাটি ঘটে ২৯ মে ১৯৭১। দিঘলিয়ার দেয়াড়া গ্রামের হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকেরা টাকার বিনিময়ে মুকাররম মেট নামক একজন ব্যক্তির সহযোগিতায় ভারতে পালিয়ে যাওয়ার চুক্তি করে। রওনাও হয়। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>কিন্তু মুকাররম বিশ্বাসঘাতকতা করে দৌলতপুরে বসবাসরত অবাঙালি ইলিয়াস খানের ছেলে ইসমাইল খানের মাধ্যমে পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে তাদের তুলে দেয়। কয়েকজন পালিয়ে যেতে সক্ষম হলেও ১৪ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করে। তারা হলেন ১] অধির কুমার দাশ ২] অরবিন্দু কুমার দাস। ৩] দিলীপ কুমার দাস ৪] শেখর কুমার দাস ৫] ঠাকুর পদ দাস ৬] দয়াল কুমার নন্দী ৭] মনোরঞ্জন দাস ৮]কালীপদ দাস<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>৯] কনেক চন্দ্র দাস ১০] মংগল চন্দ্র দাস ১১] রাজিন্দ্র দাস ১২] হরিপদ দাস<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>১৩] সঞ্জয় কুমার দাস ১৪] রাধানাথ দাস<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>। এ ছাড়া নারী সদস্যদের<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>ইটের ভাটায় এবং ফরিদপুর জুট বেলিং অ্যান্ড শিপিং কোং লিঃ এর একটি নির্মিতব্য গুদামঘরে আটকে রেখে দিনের পর দিন নির্যাতন করে। ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর-এর উদ্যোগে ২০১৭ সালে এখানে একটি স্মৃতিফলক স্থাপন করা হয়।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">One of the most painful incidents took place on May 2</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;">9</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush;">, 1971. Hindus of the village Deara of Dighalia Upazila made a contract with a person named Mukarram Mate. The contract was like that, Mukarram will help them to cross the border in exchange of money. But, Mukarram betrayed them. He handed them over to the Pakistani military and Bihari. Some of them managed to escape, but 14 of them were killed brutally in this brickfield. The martyrs are - 1] Underworld Daughter 2] Arvindu Kumar Das 3] Dilip Kumar Das 4] Shekhar Kumar Das 5] Thakur Pad Das 6] Daula Kumar Nandi 7] Manoranjan Das 8] Kalipada Das 9] Kanek Chandra Das 10] Mangal Chandra Das 11] Rajindra Das 12] Haripada Das 13] Sanjay Kumar Das 14] Radhanath Das. Women were tortured also.&nbsp;</span><span style="font-family: Kalpurush; font-size: 14pt;">A memorial has been built in this place on 2017 by </span><em style="font-family: Kalpurush; font-size: 14pt;">&lsquo;1971: genocide-torture Archive and Museum&rsquo;.</em></p>
  • post-image
    বাদামতলা গণহত্যা, খানজাহান আলী থানা/Badamtola Genocide, Khan Jahan Ali Thana
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালের শেষের দিকে স্থানীয় বারুই সম্প্রদায়ের ১৪-১৫ জন মানুষ পানের বোঝা মাথায় নিয়ে হাটে যাচ্ছিল। এমন সময় স্থানীয় শান্তি কমিটির লোকজন পাকিস্তানি সেনাদের<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>বুঝায় যে তারা হিন্দু</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পাকিস্তানের শত্রু।&nbsp;</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">তখন পাকিস্তানি সেনারা তাদের থামিয়ে লাইনে দাঁড় করিয়ে অটোমেটিক চাইনিজ রাইফেল দিয়ে ব্রাশ ফায়ার করে। ভাগ্যক্রমে কয়েকজন গুরুতর আহত হয়ে বেঁচে যায়।</span>&nbsp;&nbsp;<span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">একই সাথে তারা শিরোমণির<span>&nbsp; </span>মাহাতাপ উদ্দিনের বড় ছেলে এমলাক হোসেনকে ধরে নিয়ে বেধড়ক পিটিয়ে মাথা ফাটিয়ে দেয়। কাকুতি মিনতির ফলে গুলির হাত থেকে রক্ষা পেলেও সার্কিট হাউজে নিয়ে আবারো অত্যাচার চালায়।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify; mso-line-height-alt: 11.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">In the end of 1971, a group (14-15 people) of Barui community were going to market. In the meantime, some local people of Peace Committee ill-advised the Pakistani Army to kill the group by falsifying their religion. The Pakistani brushed fire on them, fortunately, a very few of them could survive, but with an immense injury.</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Cambria',serif; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: Cambria; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"></span></p>
  • post-image
    বারাকপুর গণকবর/ Barakpur Mass graves
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: black; background: white; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">রাজাকার কমান্ডার শরীফ আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে রাজাকাররা এপ্রিলের শেষদিকে বারাকপুরে যে গণহত্যা চালিয়েছিলো</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: black; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">,</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Cambria',serif; mso-bidi-font-family: Cambria; color: black; background: white;">&nbsp;</span></span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: black; background: white; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;">সেই গণহত্যায় যারা শহীদ হন তাদের লাশগুলোকে বারাকপুর বাজারের মসজিদের পাশে গণকবর দেওয়া হয়। এ স্থানটি এখনও অচিহ্নিত</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: black; background: white; mso-bidi-language: HI;" lang="HI">।<span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Cambria',serif; mso-bidi-font-family: Cambria; color: black; background: white;">&nbsp;</span></span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Cambria',serif; mso-bidi-font-family: Cambria; color: black; background: white;">&nbsp;***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Cambria',serif; mso-bidi-font-family: Cambria; color: black; background: white;">There was a genocide perpetrated by the Razakars in the month of April, 1971 at Barakpur. The death bodies were buried in a mass grave beside a mosque of Barakpur Bazar. The place is still unmarked. </span></p>
  • post-image
    বারাকপুর গণহত্যা/Barakpur Genocide
    <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">খালিশপুর ও দৌলতপুর সংলগ্ন ভৈরব নদীর অপর তীরে দিঘলিয়া থানার বারাকপুর গ্রামের রবিকান্ত বিশ্বাস ও ডাঃ হরিহর রায়ের পরিত্যক্ত বাড়িতে শরীফ আনোয়ার হোসেনের নেতৃত্বে রাজাকার ক্যাম্প স্থাপিত হয়। এ প্রতিষ্ঠার পর রাজাকাররা এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম করে। স্থানীয় দালালরা তাদের সহযোগিতা করত। এরা এপ্রিল মাসের শেষ দিকে নিকেরী পাড়া [জেলে পাড়া] মসজিদের পাশে ১০-১১ জন নিরীহ লোককে হত্যা করে। এর মধ্যে কয়েক জন মুক্তিযোদ্ধাও আছে। পরে স্থানীয় লোকজন তাদের মসজিদের পাশে কবর দেয়</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: HI;" lang="HI">।</span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: HI;" lang="HI">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="margin-bottom: 10.0pt; text-align: justify; mso-line-height-alt: 12.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">A Razakar camp had been established by Razakar Sharif Anowar Hossen on an abandoned house of Rabikanta Biswas and Dr Horihor Roy of Barakpur village, besides Daulotpur and Khalispur. Some local brokers joined with the Razakars. At the end of April, they had killed nearly 10/11 people at Nikeripara. There were freedom fighters among the victims. Later the local people had buried them besides a Masque.</span></p>
  • post-image
    মহেশ্বরপাশা গণহত্যা, দৌলতপুর থানা/ Maheshwar Pasha genocide, Daulatpur thana
    <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; line-height: normal;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">দৌলতপুরের মহেশ্বরপাশা গ্রাম বনেদী হিন্দু অধ্যুষিত গ্রাম</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Mangal',serif; mso-ascii-font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-hansi-font-family: 'Siyam Rupali'; color: black; mso-bidi-language: HI;" lang="HI">।</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">এপ্রিল মাসের প্রথম সপ্তাহে পাকিস্তানি সেনারা এখানকার কালী মন্দিরের পুরোহিত শ্রী সতীশ চক্রবর্তীসহ ৬ জনকে এলোপাতাড়ি গুলি করে হত্যা করে</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Mangal',serif; mso-ascii-font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-hansi-font-family: 'Siyam Rupali'; color: black; mso-bidi-language: HI;" lang="HI">।</span></p> <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; line-height: normal;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: Mangal; color: black; mso-bidi-language: HI;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; line-height: normal;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: Mangal; color: black; mso-bidi-language: HI;">&nbsp;***</span></p> <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; line-height: normal;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: Mangal; color: black; mso-bidi-language: HI;">Most of the villagers of Maheshwar Pasha village are Hindus. In the first week of April 1971, Pakistani military killed 6 people of this village including Satish Chakraborty, priest of Kali temple.</span></p> <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; line-height: normal;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: Mangal; color: black; mso-bidi-language: HI;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; line-height: normal;"><span style="font-size: 7.5pt; font-family: 'Verdana',sans-serif; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p>
  • post-image
    মহেশ্বরপাশা নারায়ন মজুমদারের পরিত্যক্ত বাড়ি নিযার্তন কেন্দ্র, দৌলতপুর থানা/ Maheshwar Pasha Narayan Majumder's abandoned home Torture center, Daulatpur Thana
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ এর মার্চে নারায়ণ মজুমদার সপরিবারে ভারতে চলে গেলে তাঁর পরিত্যক্ত বাড়িটি পাকিস্তানি বাহিনী ক্যাম্প বানায়। মুক্তিযুদ্ধের পুরোটা সময় এখানে মুক্তিকামী নিরীহ মানুষদের ধরে এনে বিভিন্নভাবে নির্যাতন চালানো হতো।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">****</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="EN">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="EN">On March 1971, when Narayan Majumdar left the country, Pakistan Army set up their camp in his abandoned house. Pakistani Military used to abduct people from different regions and tortured them in this camp. </span></p>
  • post-image
    দৌলতপুর পানচাষী বিল্ডিং নিযার্তন কেন্দ্র, দৌলতপুর থানা/ Daulatpur Panchashi Building Torture Center, Daulatpur Thana
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">দৌলতপুর বহুকাল থেকে ব্যবসাকেন্দ্র হিসেবে বেশ পরিচিত। দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে লোকজন এখানে ব্যবসা করতে আসতো। মুক্তিযুদ্ধকালে দৌলতপুরের প্রাণকেন্দ্রে অবস্থিত পানচাষী বিল্ডিংটি রাজাকাররা তাদের ক্যাম্প হিসেবে ব্যবহার করতো। এই ক্যাম্পে রাজাকাররা পাকিস্তানি মিলিটারির সহযোগিতায় নিরীহ মুক্তিকামী মানুষদের ধরে আনতো। সেখানে তাদের উপর চলতো নির্যাতন। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>নির্যাতিত লোকগুলোকে রাতে দৌলতপুর বাজার ঘাটে নিয়ে জবাই করে গুলি করে বেওনেট চার্জ করে মেরে ফেলা হতো। এরপর সেগুলো নদীতে ফেলে দেওয়া হতো। জায়গাটা নির্যাতন কেন্দ্র হিসেবে চিহ্নিত করে কোন স্মৃতিফলক স্থাপন করা হয়নি।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="EN">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="EN">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="EN">Daulatpur has long been known as a business centre. People from different parts of the country used to come here to do business. During the wartime, the Panchashi Building, located at the heart of Daulatpur, was used by the Razakars as their camp. </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">In this camp, Pakistani Army, with the help of local Razakars, tortured Bengali people. </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="EN">The victims were taken to the Daulatpur Bazar Ghat at night and killed afterwards. </span></p>
  • post-image
    দৌলতপুর গণহত্যা, দৌলতপুর থানা/ Daulatpur genocide, Daulatpur Thana
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">২৯ জুলাই ১৯৭১ পাকিস্তানি বাহিনী এবং স্থানীয় রাজাকাররা বিএল কলেজের তৎকালীন ছাত্র ও ছাত্র ইউনিয়নের নেতা রওনাকুল ইসলাম বাবর এবং তার ছোট ভাই এস এম জাকিরসহ বেশ কয়েক জনকে হত্যা করে। </span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পাট ব্যবসায়ী রাজাকার আকবর আলী বিশ্বাস এর নেতৃত্বে রাজাকার বাহিনী তাদেরকে বিভিন্ন ভাবে নির্যাতন করে হত্যা করে। পরে মহেশ্বরপাশা প্রাইমারি স্কুলের পাশে তাদের দু</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">&rsquo;</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ভাইয়ের গলিত লাশ পাওয়া যায়।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Times New Roman',serif;">On July 29, 1971, Pakistani military forces and local razakars killed several people including Rounakul Islam Babor - a Student Union (Chatro Union) leader of BL college of that time - and his younger brother.&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p>
  • post-image
    দেয়াড়া গণকবর/ Deara Mass Grave
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">২৭ আগস্ট ১৯৭১ তারিখে রাজাকার কমান্ডার শওকত মিয়া এবং শরীফ বিহারীর নেতৃত্বে যে গণহত্যা সংঘটিত হয়েছিলো তাতে ৩৭ জনের মত নিরীহ বাঙালি প্রাণ হারায়। এই ৩৭ জনের মধ্যে ১৯ টির<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>মত লাশ একসঙ্গে করে এলাকাবাসী একটি গণকবরে সমাহিত করে। বাকীগুলো এখানে ওখানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে ছিলো। এই গণকবরের উপর একটি স্মৃতিফলক ও স্মৃতিস্তম্ভ নির্মিত হয়েছে স্থানীয় কিছু মানুষের উদ্যোগে।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;">The genocide, led by Razakar commander Shawkat Mia and Sharif Bihari, on August <span lang="BN">8</span>, killed around 37 Bengalis in the massacre. About 19 out of these 37 dead bodies were buried in a mass grave. Rest of the dead bodies were scattered here and there. A memorial and plaques have been built there with the initiative of some local people.</span></p>