থুকড়া গণকবর, ২ নং রঘুনাথপুর ইউনিয়ন/Thukra Mass Grave, 2 No. Raghunathpur Union

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন পুরোটা সময় স্থানীয় রাজাকার কমান্ডারনওশেরের নেতৃত্বে এলাকার এবং বাইরের লোকজনদের ধরে এনে থুকড়া স্লুইস গেটের কাছে হত্যা করে লাশগুলো নদীতে ভাসিয়ে দিতো। এই নদীটির সাথে সংযোগ ছিলো ভদ্রা নদীর। ফলে লাশগুলো প্রচুর খরস্রোতা নদীতে ভেসে যেতো। তারপরেও কিছু লাশ আবার জোয়ারের পানিতে ভেসে আসতো। কিছু লাশ স্লুইস গেটের আশেপাশে বেঁধে থাকতো। এলাকার মানুষের ভাষ্যমতে বিভিন্ন সময়ে এ রকম প্রায় দুই শতের অধিক লাশ স্লুইসগেট থেকে ১৫০-২০০ গজ উত্তর পূর্বপাড়ে গর্ত করে পুতে রাখা হয়। বর্তমানে সেখানে বিভিন্ন স্থাপনা হয়ে গেছে। স্থানটিও অচিহ্নিত। গণকবরটি আজো অচিহ্নিত এবং এখানে কোনরকম স্মৃতিফলক নেই।

 

*** 

 

Pakistani army turned the Sluice gate of Thukra into a mass killing site in 1971. Throughout the war-time, the Rajakars killed nearly 5 thousand local villagers of Dumuria and the place nearby. The dead bodies were thrown to the river Bhadra, attached to the cannel. Some of the bodies (around 200) were buried at the north side of Sluice gate. Though it is one of the largest mass killing sites, there is no memorial or monument.

 

নিকটবর্তী আরও স্থান
  • post-image
    থুকড়া বধ্যভূমি, ২ নং রঘুনাথপুর ইউনিয়ন/ Thukra mass-killing site , 2 No. Raghunathpur Union
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালে থুকড়া গ্রামের স্লুইসগেট-টি ঘাতকরা বধ্যভূমিতে পরিণত করে। মুক্তিযুদ্ধের পুরোটা সময় ডুমুরিয়ার বিভিন্ন এলাকা থেকে প্রায় পাঁচ হাজারের অধিক লোককে রাজাকাররা ধরে এনে হত্যা করে এখানে ফেলে রাখে। এই খালের সাথে সংযুক্ত ভদ্রা নদীতে এ সকল লাশ ভেসে যায়। এ হত্যাকান্ডের নায়ক ছিলো টোলনা গ্রামের রাজাকার নওশের।<span>&nbsp;</span>এখানে যারা শহীদ হন তাদের মধ্যে কেশব চন্দ্র বৈরাগী</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">,&nbsp;</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">কেশব চৌকিদার</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">থুকড়া গ্রামের ইসলাম গাজী</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">,&nbsp;</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">রুদোঘরা গ্রামের সিরাজ ও রাজ্জাক।&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"><br />এত বিরাট বধ্যভূমিতে স্মৃতিফলক বা স্তম্ভ কোন কিছুই নেই।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNoSpacing"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush;">Pakistani army turned the Sluice gate of Thukra into a mass killing site in 1971. Throughout the war-time, the Rajakars killed nearly 5 thousand local villagers of Dumuria and the place nearby. The dead bodies were thrown to the river Bhadra, attached to the cannel. Though it is one of the largest mass killing sites, there is no memorial or monument.&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p>
  • post-image
    থুকড়া গণকবর, ২ নং রঘুনাথপুর ইউনিয়ন/Thukra Mass Grave, 2 No. Raghunathpur Union
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন পুরোটা সময় স্থানীয় রাজাকার কমান্ডারনওশেরের নেতৃত্বে এলাকার এবং বাইরের লোকজনদের ধরে এনে থুকড়া স্লুইস গেটের কাছে হত্যা করে লাশগুলো নদীতে ভাসিয়ে দিতো। এই নদীটির সাথে সংযোগ ছিলো ভদ্রা নদীর। ফলে লাশগুলো প্রচুর খরস্রোতা নদীতে ভেসে যেতো। তারপরেও কিছু লাশ আবার জোয়ারের পানিতে ভেসে আসতো। কিছু লাশ স্লুইস গেটের আশেপাশে বেঁধে থাকতো। এলাকার মানুষের ভাষ্যমতে বিভিন্ন সময়ে এ রকম প্রায় দুই শতের অধিক লাশ স্লুইসগেট থেকে ১৫০-২০০ গজ উত্তর পূর্বপাড়ে গর্ত করে পুতে রাখা হয়। বর্তমানে সেখানে বিভিন্ন স্থাপনা হয়ে গেছে। স্থানটিও অচিহ্নিত। গণকবরটি আজো অচিহ্নিত এবং এখানে কোনরকম স্মৃতিফলক নেই।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;">Pakistani army turned the Sluice gate of Thukra into a mass killing site in 1971. Throughout the war-time, the Rajakars killed nearly 5 thousand local villagers of Dumuria and the place nearby. The dead bodies were thrown to the river Bhadra, attached to the cannel. Some of the bodies (around 200) were buried at the north side of Sluice gate. Though it is one of the largest mass killing sites, there is no memorial or monument. </span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p>
  • post-image
    শাহপুর গণহত্যা, ২ নং রঘুনাথপুর ইউনিয়ন/ Shahpur genocide, 2nd Raghunathpur Union
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">শাহপুর একটি প্রসিদ্ধ গ্রাম। এখানে রয়েছে একটি<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>বিরাট বাজার। এ বাজারের পূর্ব পাশে বর্তমান বিদ্যুৎ অফিসের পাশে ১৯৭১ সালের নভেম্বর মাসের শেষ দিকে অথবা ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে রাজাকাররা আকস্মিক হামলা চালিয়ে ১৭ জনকে ধরে নিয়ে নির্মমভাবে নির্যাতন চালায়।</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">তাদেরকে বেওনেট দিয়ে খুঁচিয়ে রক্তাক্ত করে এবং পরে ব্রাশ ফায়ার করে হত্যা করে লাশগুলো পাশ্ববর্তী খালে ফেলে দেয়। স্রোতে লাশগুলোর আর সন্ধান মেলেনি।</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">জায়গাটি এখনও অনালোচিত ও অচিহ্নিত।</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;">*** </span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;">There is a bazaar (market) in the Shahpur village. In the end of November or in the first week of December, Razakars killed 17 people here. The peoples were brutally tortured, and then killed by brushfire. The bodies were thrown out in a khal (canal) and were not found later. </span></p>
  • post-image
    শাহপুর মরণতলা গণহত্যা, ২ নং রঘুনাথপুর ইউনিয়ন/ Shahpur Morontola genocide, 2nd Raghunathpur Union
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;"><span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span><span lang="BN">১৯৭১ সালে শাহপুর গরুর হাটে রাজাকার কমান্ডার হাবিবুর রহমান এলাকার লোকজন ডেকে এনে জড়ো করে। পরে এদের মধ্য থেকে ১১<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>জনকে রেখে বাকিদের বের করে দেয়। এ ১১ জনকে স্থানীয় রাঙা ডাক্তারের বাড়ির নিকটবর্তী<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>ওয়াপদা বাঁধের পাশে হত্যা করে ফেলে রেখে য়ায়। তখন থেকে এ জায়গাটির নাম হয় মরণতলা। এ জায়গাটিও অনালোচিত ও অচিহ্নিত।</span></span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;"><span lang="BN">***&nbsp;</span></span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; line-height: normal;"><span style="font-size: 14pt; font-family: 'Siyam Rupali';">In 1971, Razakar commander Habibur Rahman gathered local peoples in Shahpur cattle market (Gorur Haat). Razakars selected 11 of the local peoples, and then killed them. The dead bodies were </span><span style="font-size: 14pt; font-family: 'Siyam Rupali';">left in a place beside Wapda dam. Since then, people call this place &lsquo;Morontola&rsquo; (the place where people dies). &nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p>
  • post-image
    শাহপুর বাজার গণহত্যা, ২ নং রঘুনাথপুর ইউনিয়ন/ Shahpur Bazaar Genocide, 2 No Raghunathpur Union
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালের আগস্ট মাসের<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>শেষের দিকে শাহপুর বাজারের সুরতের দোকানের সামনে রাজাকার রমজান আলীর নেতৃত্বে একদল রাজাকার বাজারের ৫ জন লোককে ধরে এনে গুলি করে হত্যা করে। এখানে ওয়ার্কার্স পাটির পক্ষ থেকে শহীদদের স্মরণে একটি স্মৃতি ফলক নির্মিত হয়েছে। তবে কারো নাম উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify; mso-line-height-alt: 11.65pt; background: white;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">In 1971, near the end of August, 5 people had been killed by the lead of Razakar Ramjan Ali in front of Surot&rsquo;s shop at Shahpur Bazar. Worker&rsquo;s Party has built a memorial in this place. </span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"></span></p>
  • post-image
    আন্দুলিয়া গণহত্যা শহীদ স্মৃতি ফলক/ Andulia Genocide Martyr Memorial
    <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; text-align: justify; line-height: normal;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালে শবেবরাতের দিনে [মে মাসে] এই মসজিদের পাশের রাস্তায় পাকিস্তান বাহিনি ও রাজাকারদের বহনকারি একটি গাড়ি কাদায় আটকে যায়। রাজাকারা মসজিদ থেকে ও বাড়ী থেকে জোর করে মুসল্লিদের এনে কাদা থেকে গাড়িটি তোলার ব্যবস্তা করে। এরপর তাঁদের মসজিদ ও এই রাস্তার পাশে সারিবদ্ধ ভাবে দাঁড় করিয়ে গুলি করে হত্যা করে। আনুমানিক ১০ জন শহিদ হন। ৭ জন শহিদের নাম জানা গেছে। তাঁরা হলেন-১): মোকছেদ আলী আকুঞ্জি</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">গ্রাম আন্দুলিয়া ২) সলেমান</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">গ্রাম আন্দুলিয়া ৩) আব্দুল আজিজ</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">গ্রাম আন্দুলিয়া ৪) রহিস বকস</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">গ্রাম আন্দুলিয়া ৫) ইসাক</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">গ্রাম আন্দুলিয়া ৬) রাজ্জাক</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: black; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">গ্রাম আন্দুলিয়া ও ৭) রওশন আলী গ্যাম রঘুনাথপুর।</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Cambria',serif; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: Cambria; color: black; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="mso-margin-top-alt: auto; mso-margin-bottom-alt: auto; text-align: justify; line-height: normal;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Cambria',serif; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: Cambria; color: black; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">রবিবার স্মৃতিফলকটি উদ্বোধন করেন জাদুঘর ট্রাস্টের ট্রাস্টি কবি তারিক সুজাত।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;"><span style="font-family: Cambria, serif; font-size: 18.6667px;">***</span></span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">In September 1971, a car, carrying Pakistani force and Razakars, got stuck in the mud beside the Masjid&rsquo;s road. Then the Razakars forced people of the Masjid and neighborhood to pull the car out of the mud.<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>After pulling the car out of the mud they fired upon the people, and around 10 people died on the incident.</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush;">On 2<sup>nd</sup> September 2018 there has been built a memorial by &lsquo;1971: Genocide-Torture Archive and Musuem&rsquo;. </span></p>
  • post-image
    আন্দুলিয়া উত্তরপাড়া মসজিদ গণহত্যা, ২ নং রঘুনাথপুর ইউনিয়ন
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৯৭১ সালের শবেবরাতের দিনে দেড়</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">লি গ্রামের রাজাকার বক্কার ফকির সকাল ১১ টায় ডুমুরিয়ার আন্দুলিয়া গ্রামে পাকসেনাদের নিয়ে আসে। পাকসেনাদের গাড়িটি নরম মাটিতে দেবে যায়। মসজিদের মুসল্লি ও আশেপাশের বাড়ি থেকে লোকজনদের জোর করে<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>ডেকে আনে গাড়িটি উদ্ধারের জন্য। গ্রামবাসী অনেক কষ্টে গাড়িটি তুলে দেয়। এরপর রাজাকার বক্কার পাকসেনাদের বলে যে এরা সবাই মুক্তিযোদ্ধা। তখন পাকসেনারা তাদেরকে ধরে পাশের আন্দুলিয়া উত্তর পাড়া জামে মসজিদের কাছে একটি ডোবার পাশে নিয়ে লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে বেওনেট দিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করে। সৌভাগ্যক্রমে বেঁচে যান ছবেদ আলী। উল্লেখ্য শবেবরাতের এই দিনে যারা শহীদ হন তারা সবাই ছিলো<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>মুসলমান। শাহপুর মরণতলা গণহত্যা</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">২ নং রঘুনাথপুর ইউনিয়ন।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;"><span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span><span lang="BN">১৯৭১ সালে শাহপুর গরুর হাটে রাজাকার কমান্ডার হাবিবুর রহমান এলাকার লোকজন ডেকে এনে জড়ো করে। পরে এদের মধ্য থেকে ১১<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>জনকে রেখে বাকিদের বের করে দেয়। এ ১১ জনকে স্থানীয় রাঙা ডাক্তারের বাড়ির নিকটবর্তী<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>ওয়াপদা বাঁধের পাশে হত্যা করে ফেলে রেখে য়ায়। তখন থেকে এ জায়গাটির নাম হয় মরণতলা। এ জায়গাটিও অনালোচিত ও অচিহ্নিত। </span></span></p>
  • post-image
    শলুয়া বধ্যভূমি, ১২ নং রংপুর ইউনিয়ন, ডুমুরিয়া উপজেলা/ Sholua mass killing site, 12 No. Rangpur Union, Dumuria Upazila
    <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">দৌলতপুর </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">&ndash;</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">শাহপুর সড়কের পাশে শলুয়া বাজার। গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া নদীর উপর যুদ্ধকালীন সময় অনেকগুলো স্লুইস গেট ছিলো। পাকিস্তানি বাহিনী<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>খুলনা হতে আগত মুক্তিবাহিনির প্রবেশ ঠেকাতে<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>স্লুইস গেট গুলো সব ধ্বংস করে দেয়। পাকিস্তানি বাহিনী বিভিন্ন এলাকা থেকে নির্বিচারে বিভিন্ন মানুষ হত্যা<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>করে<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>এ নদীতে ভাসিয়ে দিত। </span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">এলাকাবাসি অসংখ্য নিরীহ মানুষের লাশ ভেসে থাকতে দেখেছেন যুদ্ধকালীন সময়ে। এ সকল হত্যাকান্ডের নায়ক ছিলো ফুলতলার কুখ্যাত সরো মোল্লা। মুক্তিযুদ্ধের পুরোটা সময় জুড়ে চলে এ বর্বরতা। নদীর স্রোতে লাশগুলো ভেসে যেত এবং বহিরাগত হওয়ায় পরিচয় জানা সম্ভব হুয়নি। এখানে ডিসেম্বরে ১১ জন শিখ সেনা নিহত হয়। দেশ স্বাধীন হয়ার পরে এখানে শহীদদের স্মরণে কিছু একটা লেখা ছিলো</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">কিন্তু বর্তমানে তার কোন অস্তিত্ব নাই।</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: 'Siyam Rupali';">Sholua Bazar is situated near Daulutpur-Shahpur road. There were many sluice gates in the river passing by the village. Pakistani military force destroyed all the sluice gates during war-time. They exterminated the innumerable innocents lives during that time. They used to throw out the dead bodies in the river. The brutality took place throughout the liberation war. Infamous Soro Molla of Fultala was a villain of this heinous crime.&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p>
  • post-image
    শলুয়া গণহত্যা, ১২ নং রংপুর ইউনিয়ন/ Sholua Genocide, 12 No Rangpur Union
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">দৌলতপুর শাহপুর সড়কের পাশে শলুয়া বাজার। গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া নদীর উপর যুদ্ধকালীন সময় অনেকগুলো স্লুইস গেট ছিলো। পাকিস্তানি বাহিনী<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>খুলনা হতে আগত মুক্তিবাহিনীর প্রবেশ ঠেকাতে<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>স্লুইস গেটগুলো সব ধ্বংস করে দেয়। <br /><br />পাকিস্তানি বাহিনী বিভিন্ন এলাকা থেকে নির্বিচারে বিভিন্ন মানুষ হত্যা<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>করে<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>এ নদীতে ভাসিয়ে দিত। এলাকাবাসি অসংখ্য নিরীহ মানুষের লাশ ভেসে থাকতে দেখেছেন যুদ্ধকালীন সময়ে। এ সকল হত্যাকান্ডের নায়ক ছিলো ফুলতলার কুখ্যাত সরো মোল্লা। মুক্তিযুদ্ধের পুরোটা সময় জুড়ে চলে এ বর্বরতা।&nbsp;</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">নদীর স্রোতে লাশগুলো ভেসে যেত এবং বহিরাগত হওয়ায় পরিচয় জানা সম্ভব হুয়নি। এখানে ডিসেম্বরে ১১ জন শিখ সেনা নিহত হয়।&nbsp;</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">দেশ স্বাধীন হয়ার পরে এখানে শহীদদের স্মরণে কিছু একটা লেখা ছিলো</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali';">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">কিন্তু বর্তমানে তার কোন অস্তিত্ব নাই।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Siyam Rupali'; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify; background-image: initial; background-position: initial; background-size: initial; background-repeat: initial; background-attachment: initial; background-origin: initial; background-clip: initial;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">Shoula Market is situated besides Daulatpur Shahpur Road. During Wartime, there were many Sluice Gate on the river flowed by the village. The Pakistani army had destroyed all the Sluice gates to preclude the Mukti Bahini (Freedom fighters) coming from Khulna.</span><span style="font-size: 14.0pt; font-family: 'Cambria',serif; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-bidi-font-family: Cambria; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify; background-image: initial; background-position: initial; background-size: initial; background-repeat: initial; background-attachment: initial; background-origin: initial; background-clip: initial;"><span style="font-size: 14.0pt; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-bidi-language: BN;">The Pakistani Army had killed several people from different area and thrown the bodies in this river. This barbarism continued throughout the wartime. Many of the martyrs were from outside of the village so their identity remains unknown. On December, 11 Sikh Army became martyred here.&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p>
  • post-image
    রংপুর গণকবর (ডুমুরিয়া)/ Rangpur Mass grave (Dumuria)
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পয়লা বৈশাখের দিন ১৪ এপ্রিল ডুমুরিয়ার রংপুর ইউনিওয়নের রংপুর কালিবাটি গ্রাম আক্রমণ করে পাকিস্তানি বাহিনী</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="EN">, </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সাথে ছিল তাদের এদেশীয় সহযোগীরা।<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>সেদিন সকাল ৮ টার দিকে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর একটি গাড়ি শলুয়া বাজারে এসে থামে। তারপর হঠাৎ করে গুলি করতে করতে গ্রামের দিকে প্রবেশ করতে থাকে। গুলির শব্দে মানুষ আশেপাশের ঝোপঝাড়ের মধ্যে পালাতে থাকে। পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে প্রথম ধরা পড়ে রতন ও নিহার ঢালী নামে দুভাই। অকথ্য নির্যাতন করে অচেতন অবস্থায় তাদের গাড়িতে তোলে। তাদের আর কোন খোজ পাওয়া যায়নি। এখানে মুল হত্যাকান্ড সংঘটিত হয় কালিবাড়ি হাইস্কুলের দক্ষিণ পাশে বিশ্বাসের বাড়ি সংলগ্ন বিলে। এছাড়াও রংপুর গ্রামের প্রাণপুরুষ বাবু প্রফুল্ল্য বিশ্বাসসহ ১২ জনকে নির্মমভাবে হত্যা করে। আহত হয় অনেকে। পাকিস্তানি সেনাবাহিনী চলে যাওয়ার পরে গ্রামবাসী গর্ত খুড়ে ৩/৪ জনকে একত্রিত করে সমাহিত করে রাখে। এছাড়াও প্রফুল্ল বিশ্বাসসহ অনেকের আলাদা আলাদা করে গ্রামবাসী সমাহিত করে রাখে।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; color: #222222; mso-ansi-language: EN; mso-bidi-language: BN;" lang="EN">On the day of Paila Baisakh (14th April), the Pakistani military forces, along with their allies, attacked the village of Rangpur Kalibati, Rangpur Union, Dumuria. At 8 am in that morning, a Pakistani army car came to Shalua Bazaar and stopped. Then they suddenly enter the village to shoo and people escaped into the surrounding bushes.&nbsp;</span><span style="font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: #222222;" lang="EN">Two brothers, named Ratan and Nihar Dhali, were first caught in the hands of Pakistani forces. They had tortured the brothers brutally and took them with them. The killing took place here on the south of Kalibari High School, on a marsh adjacent to Biswas House. Besides, they had killed 12 people including Babu Prafulla Biswas, a very famous person of Rangpur village. And many were injured also. </span><span style="font-size: 14pt; line-height: 107%; font-family: Kalpurush; color: #222222;">Villagers then buried the dead bodies.</span></p>