চরযোশহরদী গণহত্যা, ফদিরপুর-Charjoshahardi Genocide, Faridpur

৩০ এপ্রিল সকালে একদল পাকিস্তানি সেনা ফরিদপুরের নগরকান্দা থানার চরযোশহরদী গ্রামে প্রবেশ করে। তাদের সাথে ছিল দেশীয় দোসর ঘুঘু মিয়া, হালিম মুন্সি, টুকু প্রমুখ। চরযোশহরদীর নেপাল সাহার বাড়িতে ফরিদপুর ও ভাঙ্গা থানার অনেক হিন্দু পরিবার আশ্রয় নিয়েছিল।

সকাল ৭ টায় পাকিস্তান সেনারা নেপাল সাহার বাড়ির দিকে অগ্রসর হয়। তখন অনেকেই বাড়ি থেকে পালিয়ে যেতে সমর্থ হলেও অসুস্থ গুরুদাস রায়ের পক্ষে সরে যাওয়া সম্ভব হয়নি। পাকিস্তানি সেনারা তাঁকে ধরে বাড়ির আঙিনায় একটি গাছে বাঁধে। তারপর নির্মম নির্যাতন শেষে মুমূর্ষ গুরুদাস রায়কে গুলি করে হত্যা করে পাক হানাদার বাহিনী।

হিন্দুদের আশ্রয় দান ও তাদের ধনস¤পত্তি রাখার দায়ে একই গ্রামের বাবর আলী মাতুব্বরের বাড়িতে লুটপাট করে এবং বাড়িটি পুড়িয়ে দেয়া হয়।

সেদিন চরযোশহরদীতে নেপাল সাহার বাড়ি আক্রমণে ১০-১৫ জনের বেশি শহিদ হয়।

On the morning of April 30, a group of Pakistani soldiers entered the village of Charjoshahardi under Nagarkanda police station in Faridpur. They were accompanied by local allies Ghghu Mia, Halim Munshi, Tuku, and others. Many Hindu families from Faridpur and Vhanga police stations took shelter in Nepal Saha's house in Charjoshahardi.

At 7 am, the Pakistani army advanced towards Nepal Saha's house. Although many were able to flee from their homes sick Gurudas Roy could not. The Pakistani soldiers grabbed and tied him to a tree in the backyard. After the brutal torture, Gurudas Roy was shot dead by the Pakistani aggressors.

The house of Babar Ali Matubbar of the same village was looted and set on fire for sheltering the Hindus and depositing their wealth.

On that day, more than 10-15 people were martyred in the attack on Nepal Saha's house in Charjoshahardi.

নিকটবর্তী আরও স্থান
  • post-image
    চরযোশহরদী গণহত্যা, ফদিরপুর-Charjoshahardi Genocide, Faridpur
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">৩০ এপ্রিল সকালে একদল পাকিস্তানি সেনা ফরিদপুরের নগরকান্দা থানার চরযোশহরদী গ্রামে প্রবেশ করে। তাদের সাথে ছিল দেশীয় দোসর ঘুঘু মিয়া</span>, <span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">হালিম মুন্সি</span>, <span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">টুকু প্রমুখ। চরযোশহরদীর নেপাল সাহার বাড়িতে ফরিদপুর ও ভাঙ্গা থানার অনেক হিন্দু পরিবার আশ্রয় নিয়েছিল। </span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সকাল ৭ টায় পাকিস্তান সেনারা নেপাল সাহার বাড়ির দিকে অগ্রসর হয়। তখন অনেকেই বাড়ি থেকে পালিয়ে যেতে সমর্থ হলেও অসুস্থ গুরুদাস রায়ের পক্ষে সরে যাওয়া সম্ভব হয়নি। পাকিস্তানি সেনারা তাঁকে ধরে বাড়ির আঙিনায় একটি গাছে বাঁধে। তারপর নির্মম নির্যাতন শেষে মুমূর্ষ গুরুদাস রায়কে গুলি করে হত্যা করে পাক হানাদার বাহিনী।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">হিন্দুদের আশ্রয় দান ও তাদের ধনস</span>&curren;<span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পত্তি রাখার দায়ে একই গ্রামের বাবর আলী মাতুব্বরের বাড়িতে লুটপাট করে এবং বাড়িটি পুড়িয়ে দেয়া হয়। </span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">সেদিন চরযোশহরদীতে নেপাল সাহার বাড়ি আক্রমণে ১০-১৫ জনের বেশি শহিদ হয়। </span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman',serif; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman';">On the morning of April 30, a group of Pakistani soldiers entered the village of Charjoshahardi under Nagarkanda police station in Faridpur. They were accompanied by local allies Ghghu Mia, Halim Munshi, Tuku, and others. Many Hindu families from Faridpur and Vhanga police stations took shelter in Nepal Saha's house in Charjoshahardi.</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman',serif; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman';">At 7 am, the Pakistani army advanced towards Nepal Saha's house. Although many were able to flee from their homes sick Gurudas Roy could not. The Pakistani soldiers grabbed and tied him to a tree in the backyard. After the brutal torture, Gurudas Roy was shot dead by the Pakistani aggressors.</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman',serif; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman';">The house of Babar Ali Matubbar of the same village was looted and set on fire for sheltering the Hindus and depositing their wealth.</span></p> <p><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman',serif; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">On that day, more than 10-15 people were martyred in the attack on Nepal Saha's house in Charjoshahardi.</span></p>
  • post-image
    সদরদী গণহত্যা, ফদিরপুর-Sadardi Genocide, Faridpur
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">১৬ বৈশাখ পাকিস্তানি সেনাদের সহযোগী দেশীয় দোসর রাজাকারা আক্রমণ করে সদরদী গ্রামের রায় বাড়ির ২ জন সহ ৮-১০ জন গ্রামবাসিকে গুলি করে হত্যা করে। এই গণহত্যায় যেসব শহিদদের পরিচয় পাওয়া যায় তাঁরা<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;&nbsp; </span>হলেন- গুরুদাস রায়</span>, <span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">কল্যানেশ</span>^<span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">র রায়</span>, <span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">নগেনচন্দ্র শীল</span>, <span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">লালু চাঁন</span>, <span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">রজনী মালো</span>, <span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">শষ্ঠীচরন সাহা ও সন্তোষকুমার সাহা।</span></p> <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Calibri',sans-serif; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">On 16 Baishakh, the Razakars, allies of the Pakistani army, attacked and killed 8-10 villagers, including two from Roy Bari in Sadardi village. The martyrs identified in this genocide are Gurudas Roy, Kalyanesh Roy, Nagen Chandra Shil, Lalu Chan, Rajni Malo, Shasticharan Saha and Santosh Kumar Saha.</span></p>
  • post-image
    চন্ডিদাসদি গ্রাম গণহত্যা, ফদিরপুর-Chandidasdi village Genocide, Faridpur
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">২৭ মে সকালে পাকিস্তানি বাহিনী তিনটি ভাগে বিভক্ত হয়ে চন্ডিবর্দি গ্রাম আক্রমণ করতে গিয়ে চন্ডিদাসদি গ্রাম আক্রমণ চালায়। পাকিস্তানি বাহিনীর একটি দল ভাঙ্গা কুমার নদী পার হয়ে চন্ডিদাসদি গ্রামে প্রবেশ করে। রাজাকারা নিত্ররঞ্জন মল্লিকে মুক্তি বাহিনীর প্রধান হিসাবে বলে ধরিয়ে দেয়। রাজাকাররা ১০ম শ্রেণির ছাত্র স্বদেশ রায়কে নিত্যরঞ্জন বাবুর সহযোগী বলে ধরিয়ে দেয়। নিত্যরঞ্জন বাবুকে পাকিস্তানি সেনারা অত্যাচার করে এসিড দিয়ে পুড়িয়ে হত্যা করে এবং ১০ম শ্রেণির ছাত্র স্বদেশ রায়কে গুলি করে হত্যা করে ফেলে রেখে যায়। স্বদেশ রায় পাকিস্তানি বাহিনী যাওয়ার পরে মারা যায়।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">২৭ মে পাকিস্তানি সেনাদের আক্রমনে চন্ডিদাসদি গ্রামের ১৯ জন গ্রামবাসি শহিদ হয়। পাকিস্তানি বাহিনী শুধু ২৭ মে আক্রমণ করে শান্ত থাকেনি। তারা ২৮ মে সকালে আক্রমণ করে আরো ২ জনকে হত্যা করে।</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman',serif; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman';">On the&nbsp;morning of 27 May, the Pakistani forces divided into three divisions and attacked Chandidasdi village instead of Chandibardi village. A group of Pakistani troops crossed the Bhanga Kumar river and reached Chandidasdi. The Razakars caught up Nitraranjan Malli as the chief of the Mukti Bahini. And identified Swadesh Roy, a 10th class student, as an assistant of Nitraranjan Babu. Nitya Ranjan Babu was tortured and burnt to death with acid by the Pakistani army and 10th class student Swadesh Roy was shot dead. Later he died.</span></p> <p><span style="font-size: 12.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Times New Roman',serif; mso-fareast-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">On 27 May, 19 villagers of Chandidasdi village were martyred on the attack by the Pakistani forces. They did not remain stop just by attacking on 27 May. They attacked the morning of May 28 and killed two more.&nbsp; &nbsp;&nbsp;</span></p>
  • post-image
    চন্ডিদাসদি গ্রাম গণকবর, ফদিরপুর-Chandivardi village Mass Grave, Faridpur
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">২৭ মে সকালে পাকিস্তানি বাহিনী তিনটি ভাগে বিভক্ত হয়ে চন্ডিবর্দি গ্রাম আক্রমণ করতে গিয়ে চন্ডিদাসদি গ্রাম অক্রমণ চালিয়ে ১৯ জন গ্রামবাসিকে হত্যা করে। চন্ডিদাসদি গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া নদীর পাশে মাঠের মধ্যে অসংরক্ষিত অবস্থায় শহিদের গণকবর রয়েছে।</span></p> <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Calibri',sans-serif; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">On the morning of 27 May, the Pakistani forces divided into three groups and attacked the Chandivardi village and killed 19 villagers. There are the unpreserved mass graves of martyrs in the field next to the river flowing by the side of Chandidasadi village.</span></p>
  • post-image
    ভাঙ্গা থানা নির্যাতন ক্যাম্প, ফদিরপুর-Bhanga police station Torture Centre, Faridpur
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ভাঙ্গা উপজেলায় পাকিস্তানি সেনাদের মূল ক্যাম্পটি ছিলো ভাঙ্গা থানার মধ্যে। পাকিস্তানি সেনারা রাজাকারদের সহযোগিতায় অসংখ্য মানুষকে এই ক্যাম্পে এনে নির্যাতন করে হত্যা করতো। তবে শহিদের নাম পরিচয় জানা যায়নি।</span></p> <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Calibri',sans-serif; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">The main camp of the Pakistani army in Bhanga Upazila was in the Bhanga police station. The Pakistani army, in collaboration with the Razakars, used to bring countless people to this camp and torture and kill them. However, the name of the martyr was not known.</span></p>
  • post-image
    ভাঙ্গা তহশিল অফিস বধ্যভূমি, ফদিরপুর-Bhanga Tehsil office Mass killing site, Faridpur
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ভাঙ্গা থানার পাশে তহশিল অফিসে পাকিস্তানি সেনারা একটি ক্যাম্প স্থাপন করে। মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি সেনারা<span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp; </span>বিভিন্ন স্থান থেকে মুক্তিযোদ্ধা সন্দেহে সাধারণ বাঙালিদের ধরে এনে হত্যা করে ভাঙ্গা তাহশিল অফিসের পাশে ফেলে রাখে। স্বাধীনতার পরে ভাঙ্গা তহশিল অফিসের পাশে কিছু কঙ্কাল পাওয়া যায়। ভাঙ্গা তহশিল অফিস গণত্যায় শহিদদের মধ্যে মাহতার উদ্দিন লস্কর</span>, <span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ডা. শাহজাহান মুন্সী এবং নাসির উদ্দিনের নাম জানা গেলেও বাকি শহিদদের নাম পরিচয় পাওয়া সম্ভব হয়নি।</span></p> <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Calibri',sans-serif; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">The Pakistani army set up a camp at the tax office next to the Bhanga police station. During the Liberation War, the Pakistani army captured and killed many innocent Bangalis on suspicion of being freedom fighters from different places and left them next to the Vanga Tax office. Some skeletons were found next to the Vanga Tax office after independence. The names of Mahtar Uddin Lashkar, Dr. Shahjahan Munshi and Nasir Uddin was known among all the martyrs but the&nbsp;rest could not be identified.</span></p>
  • post-image
    ভাঙ্গা তহশিল অফিস গণহত্যা, ফদিরপুর-Bhanga Tehsil office Genocide, Faridpur
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ভাঙ্গা থানার পাশে তহশিল অফিসে পাকিস্তানি সেনারা একটি ক্যাম্প স্থাপন করে। মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি সেনারা বিভিন্ন স্থান থেকে মুক্তিযোদ্ধা সন্দেহে সাধারণ বাঙালিদের ধরে এনে হত্যা করে ভাঙ্গা তাহশিল অফিসের পাশে ফেলে রাখে। ২১শে এপ্রিল থেকে শুরু করে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত পাকিস্তানি সেনারা তাদের সহযোগী এদেশীয় রাজাকারদের সহযোগিতায় অসংখ্য মানুষকে হত্যা করে। স্বাধীনতার পরে ভাঙ্গা তহশিল অফিসের পাশে কিছু কঙ্কাল পাওয়া যায়। ভাঙ্গা তহশিল অফিস গণত্যায় শহিদদের মধ্যে মাহতার উদ্দিন লস্কর</span>, <span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ডা: শাহজাহান মুন্সী এবং নাসির উদ্দিনের নাম জানা গেলেও বাকি শহিদের নাম পরিচয় পাওয়া সম্ভব হয়নি।</span></p> <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Calibri',sans-serif; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">The Pakistani army set up a camp at the tax office next to the Bhanga police station. During the Liberation War, the Pakistani army captured and killed many innocent Bangalis on suspicion of being freedom fighters from different places and left them next to the Vanga Tax office. From 21st April to 16th December, the Pakistani army, in collaboration with their local Razakars, killed several people here. Some skeletons were found next to the Vanga Tax office after independence. The names of Mahtar Uddin Lashkar, Dr. Shahjahan Munshi and Nasir Uddin were known among all the martyrs but the the rest could not be identified.</span></p>
  • post-image
    ভাঙ্গা তহশিল অফিস গণকবর, ফদিরপুর-Bhanga Tehsil office Mass Grave, Faridpur
    <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ভাঙ্গা থানার পাশে তহশিল অফিস। মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানি সেনারা ভাঙ্গা থানায় বিভিন্ন স্থান থেকে মুক্তিযোদ্ধা সন্দেহে সাধারন বাঙালিদের ধরে এনে হত্যা করে ভাঙ্গা তাহশিল অফিসের পাশে ফেলে রাখে। স্বাধীনতার পরে ভাঙ্গা তহশিল অফিসের পাশে কিছু কঙ্কাল পাওয়া যায়। পরে স্থানীয় জনগণ কঙ্কালগুলোকে তহশিল অফিসের পাশে মাটি চাঁপা দিয়ে রাখেন। ভাঙ্গা তহশিল অফিস গণত্যায় শহিদদের মধ্যে মাহতার উদ্দিন লস্কর</span><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Calibri',sans-serif; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">, </span><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">ডা. শাহজাহান মুন্সী এবং নাসির উদ্দিনের নাম জানা গেলেও বাকি শহিদের নাম পরিচয় পাওয়া সম্ভব হয়নি।</span></p> <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Calibri',sans-serif; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">The Tehsil office was next to the Bhanga police station. During the war of liberation, the Pakistani army captured and killed ordinary Bengalis on suspicion of being freedom fighters from different places in Bhanga police station and left them beside the Bhanga tehsil office. Some skeletons were found next to the broken tehsil office after independence. Later, the local people buried the skeletons next to the tehsil office. Mahtar Uddin Lashkar among the martyrs of the broken tehsil office count said. Although the names of Shahjahan Munshi and Nasir Uddin were known, the names of the remaining martyrs could not be ascertained.</span></span></p>
  • post-image
    ঈদগাহ মাদ্রাসা নির্যাতন কেন্দ্র, ফদিরপুর-Eidgah Madrasa Torture Centre, Faridpur
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পাকিস্তানি সেনারা ২১ শে এপিল ফরিদপুর জেলায় প্রবেশ করে ভাঙ্গা উপজেলা সদরের মধ্যে অবস্থিত ভাঙ্গা ঈদগাহ মাদ্রাসায় একটি ক্যাম্প স্থাপন করেন। এই ক্যাম্পে পাকিস্তানি সেনারা বিভিন্ন স্থান থেকে সাধারণ মানুষকে ধরে এনে নির্যাতন করে। তরে এই ক্যাম্পে কাউকে হত্যা করা হয়নি। কাউকে বেশি সন্দেহজনক মনে হতে পাকিস্তানি সেনারা তাকে ফরিদপুর স্টেডিয়াম মাঠ নির্যাতন কেন্দ্রে পাঠিয়ে দিতো।</span></p> <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Calibri',sans-serif; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">The Pakistani army came Faridpur district on 21st April and set up a camp at Bhanga Eidgah Madrasa in Bhanga Upazila Sadar. In this camp, they captured and tortured many civilians from different places. But they did not kill anyone in this camp. The Pakistani army used to send the more suspicious one to the Faridpur Stadium ground torture center.</span></p>
  • post-image
    ভাঙ্গা ডাক বাংলো নির্যাতন কেন্দ্র, ফদিরপুর-Bhanga Dakbungalow Torture Centre, Faridpur
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-family: 'Vrinda',sans-serif; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পাকিস্তানি সেনাদের উচ্চতন কর্মকর্তারা ডাক বাংলোতে থাকতেন। কাউকে সন্দেহজনক মনে করলে পাকিস্তানি সেনারা ডাক বাংলোতে এনে নির্যাতন করতো। এছাড়াও ডাক বাংলোতে অসংখ্য নারী নির্যাতন করা হয়েছিলো।</span></p> <p><span style="font-size: 11.0pt; line-height: 115%; font-family: 'Calibri',sans-serif; mso-fareast-font-family: Calibri; mso-bidi-font-family: 'Times New Roman'; mso-ansi-language: EN-US; mso-fareast-language: EN-US; mso-bidi-language: AR-SA;">The top Pakistani military officials used to live in the Dakbungalows. If anyone was suspected, they would bring them to here and torture them. Numerous women were also tortured in this Dakbungalow.</span></p>