উপজেলা প্রাঙ্গণ গণকবর

বাকস কবিক্ ্সকু্

নিকটবর্তী আরও স্থান
  • post-image
    উপজেলা প্রাঙ্গণ গণকবর
    <p>বাকস কবিক্&nbsp;্সকু্</p>
  • post-image
    ভবানীপুর গণহত্যা/ Bhabanipur Genocide
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;" lang="BN-BD">১৯৭১ সালের ৩ মে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী সুজানগর উপজেলার ভবানীপুর গ্রামে হামলা করে। এদিন তারা ঐ গ্রামের প্রায় ২০-৩০টা ঘরবাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয়। সেদিন পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী ভবানীপুর গ্রামের প্রায় ২০ জনকে গুলি করে হত্যা করে।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;" lang="BN-BD">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">On 3<sup>rd</sup> May, the Pakistani invaders attacked the village of Bhabanipur in Sujanagar upazila. On that day, they set fire about 25-30 houses in that village. They killed about 20 people in the village of Bhabanipur on that day.</span></p>
  • post-image
    সুজানগর কালীমন্দির বধ্যভূমি
    <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার কয়েকদিন আগে সুজানগর বাজারের কালীমন্দিরে ঘটে এক নরমেধযজ্ঞ। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>এদিন ছিলো শুক্রবার ১০ ডিসেম্বর। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>পাকিস্তানি সেনারা সুজানগর বাজারের প্রখ্যাত ব্যবসায়ী মানিকদি গ্রামের অজিত ও একই গ্রামের আব্দুল হামিদ এবং সুজানগর থানা সংলগ্ন কালীমন্দিরে অবস্থানকারী তৎকালীন কৃষি কর্মকর্তা গোপাল চন্দ্র ভাদুরীকে ধরে এনে কালীমন্দিরের সামনে হত্যা করে মন্দিরের পাশের একটি কুয়ার মধ্যে নিক্ষেপ করে চলে যায়।</span></p>
  • post-image
    সুজানগর কালীমন্দির গণহত্যা/ Sujanagar Kali Temple Genocide
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;" lang="BN-BD">বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার কয়েকদিন আগে সুজানগর বাজারের কালীমন্দিরে ঘটে এক নরমেধযজ্ঞ। এদিন ছিলো শুক্রবার, ১০ ডিসেম্বর। পাকিস্তানি সেনারা সুজানগর বাজারের প্রখ্যাত ব্যবসায়ী মানিকদি গ্রামের অজিত কুন্ডূ ও একই গ্রামের আব্দুল হামিদ এবং সুজানগর থানা সংলগ্ন কালীমন্দিরে অবস্থানকারী তৎকালীন কৃষি কর্মকর্তা গোপালচন্দ্র ভাদুরীকে ধরে এনে কালীমন্দিরের সামনে হত্যা করে। অতঃপর, মন্দিরের পাশের একটি কুয়ার মধ্যে নিক্ষেপ করে চলে যায়।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;" lang="BN-BD">***&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">A few days before the independence of Bangladesh, a hellish incident took place at KaliMandir (Hindu Temple) in Sujanagar Bazar. It was Friday, 10<sup>th</sup> of December. The Pakistani army took Ajit Kundu, a renowned businessman from Sujanagar Market, Abdul Hamid of the same village, Gopal Chandra Bhaduri, a agricultural officer and killed them in the Kalimandir adjacent to the Sujanagar thana. Later they throw their bodies in a well near the temple.</span></p>
  • post-image
    সাতবাড়িয়া গণহত্যা/ Satbaria Genocide
    <p class="MsoNormal">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;" lang="BN-BD">১৯৭১ সালের ১২ মে বুধবার পাকিস্তান হানাদার বাহিনী সাতবাড়িয়া ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের নিরীহ নিরপরাধ মানুষের উপর বর্বরোচিত গণহত্যা চালায়। তারা এদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা রাত পর্যন্ত সব গ্রামে সশস্ত্র হামলা করে প্রায় ৭০০/৮০০শ নারী-পুরুষকে নৃশংসভাবে হত্যা করে। এদের মধ্যে তারা প্রায় ২</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">&rsquo;<span lang="BN-BD">শ জনের লাশ পার্শ্ববর্তী পদ্মা নদীতে ভাসিয়ে দেয়া হয়। হত্যাযজ্ঞের পাশাপাশি গোটা ইউনিয়নে ব্যাপক লুটপাট</span>, <span lang="BN-BD">ধর্ষণ এবং ২০০-৩০০ বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগ চালানো হয়</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;"><span lang="BN-BD">***&nbsp;</span></span></p> <p>&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">On 12<sup>th</sup> May in 1971, the Pakistani army perpetrated genocide on the innocent people of different villages of the Satbaria Union. They brutally killed about 700-800 men and women. Among them, about 200 bodies were floated in the nearby River Padma. Not only that, they also carried out massive robbery, rape and set fire 200-300 houses throughout the Union.</span></p> <p>&nbsp;</p> <p>&nbsp;</p>
  • post-image
    সারদিয়া গ্রাম গণহত্যা/ Sardia village Genocide
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;" lang="BN-BD">১৩ এপ্রিল ১৯৭১ মঙ্গলবার পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী পাবনা সদর উপজেলার আতাইকুলা ইউনিয়নের সারদিয়া গ্রামে গণহত্যা চালায়। সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত চলে তাদের এই গণহত্যা। এ হামলার মূল কারণ ছিলো এই এলাকা ছিলো হিন্দু প্রধান। যে কারণে পাকিস্তানি সৈন্য সম্পূর্ণ গ্রাম জ্বালিয়ে দেয় এবং এলোপাতাড়ি গুলি করতে থাকে। সারদিয়া গ্রামের যারা শহিদ </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">হন</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;" lang="BN-BD"> তাদের মধ্যে শুধু মাখনলাল পাল</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;" lang="BN"> এর নাম জানা যায়।</span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">*** </span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">On 13 April, the Pakistani </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN;">Military Force</span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;"> carried out a genocide at Sardia village of Atikula union of Pabna Sadar upazila. The main reason for the attack was that the area was Hindu inhabited. That is why the Pakistani army set fire to the whole village and fired randomly. Lot of people were exterminated during the genocide.&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p>
  • post-image
    কুচিয়ামোড়া গণহত্যা
    <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-family: Vrinda, serif;" lang="BN">১৯৭১ সালের ১৩ এপ্রিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী প্রথম পাবনা জেলা সদরের আতাইকুলা ইউনিয়নের কুচিয়ামোড়া গ্রামে প্রবেশ করে সকাল ৯ টা থেকে গণহত্যা চালাতে থাকে।&nbsp;&nbsp;গ্রামে হিন্দু প্রাধাণ্য থাকায় পাকিস্তানিদের বিশেষ নজর ছিল কুচিয়ামোড়া গ্রামের উপর।&nbsp;&nbsp;গ্রামে প্রবেশ করে পাকিস্তানি সৈন্য গ্রামে আগুন জালিয়ে দেয় এবং এলপাতাড়ি গুলি করতে থাকে।&nbsp;&nbsp;এদিনের হামলায় কুচিয়ামোড়া গ্রামে শহিদ হন- মনি গোপাল সাহা</span>,&nbsp;<span style="font-family: Vrinda, serif;" lang="BN">ফণী গোপাল সাহা</span>,&nbsp;<span style="font-family: Vrinda, serif;" lang="BN">সুষেণ কুমার সাহা</span>,&nbsp;<span style="font-family: Vrinda, serif;" lang="BN">রবীন্দ্রনাথ রায়সহ&nbsp;</span><span style="font-family: Vrinda, serif;">আরও প্রায় ২০-২৫ জন।৯৪ পরে পারিবারিকভাবে তাদের শেষকৃত্ত সম্পন্ন করা হয়।</span><span style="font-family: Vrinda, serif;">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal">&nbsp;</p>
  • post-image
    শাখারীপাড়া গণহত্যা/ Shakharipara Genocide
    <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;" lang="BN-BD">আতাইকুলা ইউনিয়নের একটা প্রসিদ্ধ গ্রাম হল শাখারীপাড়া। </span><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">&rsquo;<span lang="BN-BD">৭১ এর ১৩ এপ্রিল পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী এ গ্রামে এক নির্মম হত্যাযজ্ঞ চালায়। সকাল থেকে চলে এ হত্যাকান্ড। গ্রামে প্রবেশ করে পাকিস্তানি সৈন্য গ্রামে আগুন জালিয়ে দেয় এবং এলপাতারি গুলি করতে থাকে। এদিন শাখারীপাড়া গ্রামের শহিদ হন- স্বপন কুমার সাহা চৌধুরী</span>, <span lang="BN-BD">গোপাল কুমার সাহা চৌধুরী</span>, <span lang="BN-BD">দ্বিজেন্দ্রনাথ সাহা</span>, <span lang="BN-BD">হরেন্দ্রনাথ সাহা</span>, <span lang="BN-BD">অশোক কুমার সাহা চৌধুরী</span>, <span lang="BN-BD">কালীপদ বাগচী প্রমুখসহ আরো অনেকে।</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;">&nbsp;</p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;"><span lang="BN-BD">***&nbsp;</span></span></p> <p class="MsoNormal" style="text-align: justify;"><span style="font-size: 14.0pt; line-height: 115%; font-family: Kalpurush; mso-bidi-language: BN-BD;">Shakharipara is a prominent village of Ataikula Union. On the morning of 13<sup>th</sup> April, the Pakistani Military Force carried out a brutal genocide in the village. The Pakistani troops set fire to the village and fired aimlessly. Lot of villagers including Swapan Kumar Saha Chowdhury, Gopal Kumar Saha Chowdhury, Dwijendranath Saha, Harendranath Saha, Ashok Kumar Saha Chowdhury, Kalipad Bagchi became martyr on that day.</span></p>
  • post-image
    ভাড়ারা গ্রাম গণহত্যা
    <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">&nbsp;</span></p> <p class="MsoNormal"><span style="font-family: 'Vrinda','serif'; mso-ascii-font-family: Calibri; mso-ascii-theme-font: minor-latin; mso-hansi-font-family: Calibri; mso-hansi-theme-font: minor-latin; mso-bidi-font-family: Vrinda; mso-bidi-language: BN;" lang="BN">পাবনা জেলার বিভিন্ন স্থানে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর আক্রমণের ধারাবাহিকতায় ১৯৭১ সালের ২৬ মে বুধবার পাবনা সদর উপজেলার ভাড়ালা গ্রামে এসে উপস্থিত হয়। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>তাদের আগমনে সাধারণ গ্রামবাসী হতবিহবল হয়ে পরে। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>যে যেদিকে পারে পালাতে থাকে। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী এসময় আতঙ্কগ্রস্ত কিছু মানুষকে ধরে ফেলে এবং তাদেরকে ভাড়ালা ঐতিহাসিক শাহী মসজিদ প্রাঙ্গণে নিয়ে আসে। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী সারা গ্রাম থেকে যাদের ধরে নিয়ে আসেন তাদের মধ্যে থেকে ২৫ জনকে বাছাই করে নিয়ে যায়। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span>তাদের আর কোন দিন খুজে পাওয়া যায়নি। <span style="mso-spacerun: yes;">&nbsp;</span></span></p>
  • post-image
    লক্ষ্মিপুর কালীবাড়ি গণহত্যা
    <h1>পাকিস্তানি পশুরা আটঘরিয়া থানার লক্ষ্মীপুর কালীবাড়িতে ৭১ এর ২০ আগস্ট এক নির্মম ও পাশবিক হত্যাকাণ্ড চালায়।</h1> <h1>আনুমানিক বেলা ১০ টার সময় পাকবাহিনী লক্ষ্মীপুর হামলা চালায়। গ্রামের বাসিন্দারা মুক্তিবাহিনী আসার কথা শুনে তাদের হাত থেকে রক্ষা পেতে যে যেদিকে পারে পালাতে থাকে। পাকিস্তানি বাহিনী সারা গ্রাম ঘুরে বাড়ি বাড়ি গিয়ে হিন্দু আর আওয়ামী লীগ সমর্থকদের খুঁজতে থাকে। যাদেরকে পায় তাদের হাত পিঠমোড়া করে বেঁধে গ্রামের কালি মন্দিরের সামনে নিয়ে আসে।</h1> <h1>এসময় ২৯ জনকে একসঙ্গে দাড় করিয়ে গুলি করা হয়। ২৯ জনের মধ্যে ২৮ জনই এ ফায়ারে শহীদ হন। মাত্র এক জন গুলি লেগে বেঁচে যায়।&nbsp;</h1>